ঢাকারবিবার , ২২ মে ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শুভ্রত হত্যাকান্ড মোড় নিচ্ছে কোন দিকে?

আবু বকর সিদ্দিক
মে ২২, ২০২২ ৬:৩৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাতের খাবার শেষে মায়ের সাথে কথা বলছিলেন নারায়ণগঞ্জের হোসিয়ারী শ্রমিক শুভ্রত চন্দ্র মন্ডল। হঠাৎ মোবাইলে ফোন আসে পরিচিত একটি নাম্বার থেকে। ‘এই শুভ্রত একটু বাহিরে আয়’ বাহিরে বের হতেই মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে অপহরণ। এর পর নির্মম নির্যাতনের পর মৃতভেবে শুভ্রতর নিথর দেহ তার বাড়ির সামনে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। এই ঘটনার আট দিন পর ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কের সাইনবোর্ড এলাকায় প্রো-এক্টিভ হাসপাতালের নিবির পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) তিন দিন ও লাইফ সাপোর্টে দুই দিন থাকার পর শুভ্রতর দেহ প্রাণ হারায়। পরিবারের দাবি নাসিক নির্বাচনে কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান মনিরের পক্ষে কাজ না করায় সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন শুভ্রত।

এর আগে গত রবিবার (১৫ মে) রাত সোয়া ১২টার দিকে সায়েম তার এক সহযোগীকে নিয়ে মটর সাইকেলে করে শুভ্রতর বাড়ির সামনে এসে তাকে দু’দফা ফোন করে বাড়ি থেকে বের করেন। শুভ্রত বাড়ি থেকে বের হলে সায়েম (২৪) তার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে হুন্ডায় করে নিয়ে তার অন্নান্য সহযোগীদের সাথে নিয়ে গিয়ে পাশবিক নির্যতন চালায়। ঘটনার আট দিন পর আজ রবিবার (২২ মে) ভোর ৬টায় চিকিৎসাধীন আবস্থায় তার মৃত্যু হয় বলে জানায় নিহতের ভাই মঞ্জয় চন্দ্র মন্ডল। নগরীর দেওভোগ জিউস পুকুর পার এলাকার শনিমন্দিরের সামনে মাইনুদ্দিনের বাড়ির ভাড়াটিয়া শুভ্রত মৃত সুরেশ চন্দ্র মন্ডলের বড় সন্তান।

শুভ্রতর পরিবারের একাধিক সদস্যের সাথে কথা বলে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে নগরীর ১৪ নং ওয়ার্ডের নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী সফিউদ্দিন প্রধানের হয়ে নির্বাচনী প্রচারণার কাজ করেছিলেন। সেই সময় একই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মনিরূজ্জামান মনিরের কর্মীরা তাকে বহুবার তাদের প্রার্থীর হয়ে কাজ করতে চাপ প্রয়োগ করে। এতে শুভ্রত রাজি না হওয়ায় বেশ কয়েকবার তাদের সাথে বাকবিতন্ডা হয়। নির্বাচনের দিন ১৬ জানুয়ারী ফল প্রকাশের পর রবিবার সন্ধায় বিজয়ী কাউন্সিলর মনিরুজ্জামানের কর্মী-সমর্থকরা শুভ্রতর সাথে হাতাহাতির ঘটনা ঘটায়। সে কোন মতে সেই দিন প্রাণে বেঁচে ফিরলেও শেষ রক্ষা হয়নি। এবার তার উপর সন্ত্রাসীদের নির্মমতা মদ্যযুগীয় পাশবিক নির্যাতনকেও হার মানিয়েছে বলে পরিবারের দাবি।

শুভ্রতর ছোট ভাই মঞ্জয় চন্দ্র মন্ডল জানায়, শুভ্রত চন্দ্র মন্ডল (২৩) নারায়ণগঞ্জের স্থানীয় একটি হোসিয়ারীতে কাজ করতেন। প্রতিদিনের মত রোজকার কাজ শেষে রাতে ১১টায় বাড়ী ফিরেছিলেন। সবে মাত্র হাত মুখ ধুয়ে রাতের খাবার খেতে বসবে এমন সময় হঠাৎ শুভ্রতের মোবাইলে একটি ফোন আসে তার পরিচিত নাম্বার থেকে। সায়েম ওরফে ইয়াবা সায়েম শুভ্রতকে কল দিয়ে বলে, ‘শুভ্রত কই আছস? একটু গেটের বাইরে আয়তো। শুভ্রত বারণ করে বলে, মা-য় ভাত দিচ্ছে, এখন খেতে বসবো। একটু পর রাত সোয়া ১২টার দিকে সায়েম আবারও শুভ্রতকে কল করে বাইরে যেতে বলে। এরপর মাকে নিয়ে শুভ্রত বাসা থেকে বের হয়। মঞ্জয় বলে, বাড়ীর গেটের বাইরে বের হওয়ার পর পরই পিস্তল ও দেশীয় অস্ত্র ঠেকিয়ে আমার মায়ের সামনে থেকে শুভ্রতকে হুন্ডায় উঠিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এরপর আমি ও আমার মা সহ আত্মায় স্বজনরা বিভিন্নস্থানে খুঁজতে থাকি। কিন্তু কোথাও পাই নাই। পরে রাত তিনটার দিকে গেটেরে সামনে ফেলে গেছে।

বেঁচে থাক অবস্থায় হাসপাতালের বিছান শুয়ে শুভ্রতর একটি ভিডিও দেখিয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জিয়স পুকুর এলাকার একজন স্থানীয় ব্যক্তি জানায়, শুভ্রতকে তুলে প্রথমে জিউস পুকুরের পশ্চিম পারের ঘাটলায় নিয়ে এলোপাতারি লাথি, ঘুষি ও লঠি দিয়ে পেটায়। পরে পশ্চিম দেওভোগ ইউসূফ মিয়ার বাড়ীর সামনের রাস্তায় ফেলে ইয়াবা সায়েম, সাজিদ, নাঈমুদ্দিন, সাজু, দোলন, রাকেশ, আল আমিন, শুভ, শুভ (২), নিরব, প্রণয়, নোমান শিকদার,অন্তু সাহা ও প্রিতমসহ প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন সন্ত্রাসীরা তার উপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। এসময় বাঁচার জন্য শুভ্রত চিৎকার করে আর্তনাদ করছিল। তবে এতে সন্ত্রাসীদের মন ভরেনি, পরে হত্যার উদ্দেশ্যে দেশীয় অস্ত্রদিয়ে তার একাধীকস্থানে কোপায় সন্ত্রাসীরা। শুভ্রত যতবার প্রাণভিক্ষা চায়, ততবারই সন্ত্রাসীরা টর্চার আরও বাড়িয়ে দেয়। এসময় শুভ্রতের দুইটি আঙ্গুল কেটে নেয় তারা, পায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ দিয়ে বড় ধরনের যখম করে।

একপর্যায়ে সন্ত্রাসীদের নির্যাতনের মাত্রা সইতে না পেরে শুভ্রতর দেহ নিথর হয়ে পররে তারা ভাবে শুভ্রত মরে গেছে। এরপর রাত তিনটার দিকে শুভ্রতকে তাদের ভাড়া বাড়ির সামনে ফেলে যায় দুর্বিত্তরা।শুভ্রতকে উদ্ধারের পর তার ছোট ভাই মঞ্জয় ও তার মামা প্রথমে নারায়ণগঞ্জ ১’শ শয্যা (ভিক্টোরিয়া) জেনারেল হাসাপাতালে নিয়ে যায় তারা। পরে শুভ্রতের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে সাথে সাথে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর তার জন্য আইসিইউ প্রয়োজন বলে জানায় কর্তব্যরত চিকিৎসক। সেখানে আইসিইউ না পেয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের প্রো-এক্টিভ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শুভ্রতর মাসি লতা মন্ডলের (৪৬) অভিযোগ, পূর্ব শত্রুতার কারণেই শুভ্রতকে খুন করেছে সন্ত্রাসীরা। ডাক্তার বলেছিল সন্ত্রাসীদের মারধরের কারণে তার দুটি কিডনিই ড্যামেজ হয়ে গেছে। এই রোগী টিকানো আনেক কঠিন। ডাক্তারের কথাই সত্যি হল, আমাদের শুভ্রত আর নাই। এত নিমর্ম ভাবে মেরে খুন করলো অথচ সন্ত্রাসীরা শুভ্রতকে কুপিয়ে বুক ফুলিয়ে সারা এলাকায় ঘুরে বেড়াইসে। আমরা কিছু করতে পারিনাই। আমরা এখন কোথায় যাবো? শুব্রততো মরে গেছে ভাই, এখন কি ওদের বিচার হবে? আমরা কি বিচার পাবো?শহরের মর্গ্যান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ঝিঁয়ের কাজ করেন শুভ্রতর মা গৌরি রানী মন্ডল (৫০)।

নারী ছেড়া ধণ হারিয়ে আর্তনাদ করে ঢাকা পোষ্টকে জানায়, আমার সন্তান কি আপরাধ করেছিল যে তাকে এভাবে খুন করা হল। আরে দেশে কি আইন নাই, ও যদি কোন অপরাধ করে থাকে তবে, ওর একটা হাত কেটে দিত। তবুওতো বেঁচে থাকতো, আমার বুকে থাকতো। ওরা এইভাবে অত্যাচার করে আমার ছেলেকে মেরে ফেললো। আমি কছিুই চাই না শুধু সুষ্ঠু বিচার চাই, সন্ত্রাসীদের ফাঁসি চাই।তিনি আরোও বলেন, আমি শুনেছি, প্রথমে মারধর করার পরে শুভ্রতকে নিয়ে সন্ত্রাসীরা ওয়ার্ড কাউন্সিলরের অপিসে নিয়ে গিয়েছিল, তিনি অফিসে ছিলেন না। পরে তার সাথে এই বিষয়ে কথা বলে ওকে নিয়ে পশ্চিম দেওভোগে নিয়ে গিয়ে আবারো অত্যাচার করে সন্ত্রাসীরা। পরে বাড়ির গেইটের সাসনে এসে ফেলে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে হাসপাতালে ভর্তি করলে হাসপাতালের খরচ দিয়েছেন তার বন্ধরা ও সাবেক কাউন্সিলর সফিউদ্দিন প্রধান।

এদিকে এ বিষয়ে ১৪ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর মনিরূজ্জামান মনিরের প্রতিকৃয়া জানার জন্য একাধিকবার তার ব্যবহৃত দু’টি মোবাইল নাম্বারে বার বার ফোন করেও তার সাথে সংযুক্ত হওয়া যায়নি।নারায়নগঞ্জ সদর মডের থানার পুলিশ পরিদর্শক আনিচুর রহমান মোল্লা ঢাকা পোষ্টকে বলেন, শুব্রত হত্যায় গতকাল রাতে নিহতের বোন সম্পা মন্ডল বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। আসামী যে-ই হোক না কেন তদন্ত করে সকলকে আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়া শুভ্রত বেঁচে থাকাকালীন সময়ে, সে নিজেই কিছু আসামীদের চিহ্নিত করে গেছে। সেই ভিডিও আমরা পেয়েছি। আসামীদের আইনের আওতায় আনতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।