ঢাকাসোমবার , ৩০ মে ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দগ্ধ রোজিনার বাড়িতে উঠতে বাড়িওয়ালা বাঁধা

আবু বকর সিদ্দিক
মে ৩০, ২০২২ ৬:২৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ফতুল্লায় গ্যাস লাইন লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ হওয়া রোজিনা ২০ দিন পর হাসপাতাল থেকে মুক্তি পেলেও নিজ ভাড়া বাসায় উঠতে দিচ্ছেনা বাড়ীর মালিক কাউছার। অগ্নিকান্ডের ঘটনায় স্বামী হারানো দগ্ধ রোজিনা বেগম ২০ দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসা শেষে ৩০ মে সোমবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ছাড়পত্র প্রদান করে। হাসপাতাল থেকে মুক্তি পেয়ে সে সোমবার দাপা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের পূর্বে দূর্ঘটনার শিকার হওয়া সেই ভাড়া বাসায় আসলে বাড়ী ওয়ালা তাকে তালা খুলতে বারনের পাশাপাশি অনত্র বাড়ী ভাড়া নিয়ে থাকার কথা বলেন। অনেক কাকুতি মিনতি করার পরেও বাড়ীর মালিক কাউছার তালা খুলে দেয়নি। ফলে রোজিনা খোলা আকাশের নিচে নিজ ঘরের সামনেই বসে আছে।

এ বিষয়ে রোজিনা নিকটাত্মীয় পরিচয়দানকারী বাদশা জানান, ১০ মে গ্যাসলাইন লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে শিশুসহ একই পরিবারের ৪জন দগ্ধের ঘটনায় রোজিনার স্বামী আনোয়ার হোসেন ১৯ মে চিকিৎসারতবস্থায় মারা যায়। রোজিনা চিকিৎসা শেষে সোমবার বাসায় ফিরে এসে তালাবদ্ধ রুমের তালা খুলতে চাইলে বাড়ীর মালিক বাধা দেন এবং অনত্র বাসা ভাড়া নিয়ে চলে যেতে বলেন।মোবাইল ফোনে কান্নারত কন্ঠে দগ্ধ রোজিনা বেগম জানায়, স্বামী মারা গেছে কয়েকদিন পূর্বে। সোমবার তার ছেলের বার্ন ইউনিটে একটি অপারেশন হচ্ছে। তাকে চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। হাসপাতাল থেকে ভাড়া বাসায় এসে তালাবদ্ধ রুম খুলতে চাইলে বাড়ীওয়ালা তালা খুলতে নিষেধ করে তাকে অনত্র চলে যেতে বলেন।

তিনি আরো বলেন যাদের কর্তব্য অবহেলার কারনে দগ্ধ হয়ে তার স্বামী মারা গেছেন এবং সে সহ সন্তানেরা দগ্ধ হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে এবং বাড়ীর মালিকের বিরুদ্ধও লিখিত অভিযোগ দায়ের করবেন।বাড়ীর মালিক কাউছার মুঠোফোনে জানান, রোজিনাকে বাসায় উঠতে দেওয়া হয়নি কারণ রুমটিতে বিদ্যুতের সংযোগ নেই। তাছাড়া রুমটি ঝুকিপূর্ণ তাই কোন প্রকার রিস্ক নিতে চাননি সে।

উল্লেখ্য ১০ মে ভোর সকালে দাপা ইদ্রাকপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের পূর্বে কাউছারের ভাড়া বাসায় গ্যাসলাইন লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে শিশুসহ একই পরিবারের ৪জন দগ্ধ হয়। তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ১৯ মে দগ্ধ রিক্সাচালক আনোয়ার হোসেন (৪০) মারা যায়।দগ্ধ রোজিনা বেগম ওইদিন ভোরে তিনি জেগে ছিলেন। তবে বাসায় স্বামী রিকশাচালক আনোয়ার হোসেন, ছেলে কারখানা শ্রমিক রোমান (১৭) ও আরেক ছেলে স্কুলছাত্র রোহান (৯) ঘুমিয়ে ছিল। হঠাৎ বিস্ফোরণে বাসার ভেতর দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। মুহূর্তেই আগুন লেগে যায় তাদের শরীরে। ঘুমন্ত অবস্থা থেকে ছেলেদের তুলে দৌড়ে বাড়ির বাইরে বের হন তিনি। ততক্ষণে তাদের ৪ জনের শরীরই ঝলসে যায়।আনোয়ার হোসেনের ভাবি রুনা আক্তার অভিযোগ করেন, ওই বাড়িটির পাশ দিয়ে অন্য বাড়ির একটি গ্যাস লাইন নেওয়া হয়েছে। পুরাতন সেই পাইপ ছিলো আনোয়ারদের ঘরের জানলার পাশে। সেখান থেকে সব সময়ই গ্যাস বের হতো। বলার পরও তা মেরামত করে দেননিং বাড়ির মালিক। এজন্য ২-৩ মাস ধরে পরিবারটি বাসাটি ছেড়ে দিতে চাইছিল।

স্থানীয়দের অভিযোগ,দগ্ধ রুমটির পাশ দিয়ে গ্যাসের লাইন গিয়েছে। সেখানে লিকেজ হয়ে গ্যাস বের হতো। তাই গ্যাস সংযোগ নেওয়া বাড়ীগুলোর মালিক সাত্তার,আনায়ার সহ অপর একজন কে গ্যাস লাইন ছিদ্রের বিষয়টি অবগত করে। কিন্ত তারা কোন কর্ণপাত বা পদক্ষেপ না নেওয়ায় বিস্ফোরনের ঘটনা ঘটে। সময় মতো তারা পদক্ষেপ নিলে দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতো।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।