ঢাকাশুক্রবার , ৩ জুন ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

এবার প্রয়াত এমপি আফজাল হোসেনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা!

আবু বকর সিদ্দিক
জুন ৩, ২০২২ ৬:১৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত রোগী তথা সমগ্র নারায়ণগঞ্জবাসীকে চিকিৎসা সেবা দেয়ার লক্ষ্যে অনেক মেধা ও শ্রম দিয়ে তিলে তিলে নারায়ণগঞ্জ ডায়াবেটিক হাসপাতাল ও সমিতি গড়ে তুলেছিলেন প্রয়াত এমপি আফজাল হোসেন। কিন্তু মহান এ ব্যক্তি তো আর জানতেন না যে, পরবর্তীতে তাকেই বিতর্কিত করার চেষ্টা করবে কতিপয় দুস্কৃতিকারীরা। এমনই ন্যাক্কারজনক এক ঘটনা ঘটেছে নারায়ণগঞ্জ ডায়াবেটিস হাসপাতাল ও ডায়াবেটিক সমিতিতে।জানা গেছে, হাসপাতালটিতে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে এবং এর অর্থ আত্মসাৎ করার চেষ্টায় উঠে পড়ে লেগেছে একটি চক্র।

দীর্ঘ ৩৫ বছর হাসপাতালটির সাথে জড়িত থেকে মানবসেবায় নিয়োজিত থাকা এক ব্যক্তিকে ভুয়া অভিযোগের ভিত্তিতে হাসপাতালের সদস্য পদ থেকে বাদ দেয়ার পর চক্রটি এবার প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতাকেও বিতর্কিত করার জন্য আট ঘাট বেধে মাঠে নেমেছে বলে জানা গেছে। তবে, দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নেয়া রোগী, তাদের স্বজন, হাসপাতালের স্টাফ, সমিতির সদস্য, আফজাল হোসেনের পরিবারসহ সমগ্র নারায়ণগঞ্জবাসী এতে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। তাদের মতে, যে ব্যক্তিটি অক্লান্ত পরিশ্রম করে তিল তিল করে এ প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেছেন, আজ সেই প্রতিষ্ঠানেরই কতিপয় পথভ্রষ্ট সদস্য ও স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে তাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে যা কখনো কাম্য নয়। প্রতিষ্ঠানটিকে বাঁচাতে এবং নারায়ণগঞ্জবাসীর সেবা অক্ষুন্ন রাখার স্বার্থে তারা দ্রুত জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জ ডায়াবেটিক হাসপাতালের বেশ কয়েকজন স্টাফ ও ডায়াবেটিক সমিতির বেশ কয়েকজন সদস্য জানান, মূলত ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিল না হওয়ায় বহিস্কৃত নেতা এ ওয়াই এম হাসমত উল্লাহ’র নেতৃত্বে চক্রটি গভীর এক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। কেননা বহু আগে থেকেই তিনি নারায়ণগঞ্জ ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হওয়ার স্বপ্ন দেখছিলেন, কিন্তু বারবার বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারণে কখনোই তার সেই স্বপ্ন পূরণ হয়নি।

জানা গেছে, হাসমত উল্লাহ গংদের ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবেই জনৈক ইব্রাহিমের নাম দিয়ে নারায়ণগঞ্জের বিশিষ্ট নাগরিক ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরীর বিরুদ্ধে নাম কাটাকাটি করে আজীবন সদস্য হওয়ার ভুয়া অভিযোগ করেন হাসমত উল্লাহ নিজে। যদিও কোনো অভিযোগ করেন নি বলে জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটির কাছে জানিয়েছেন ইব্রাহিম সাহেব নিজেই। যার কারণে পরবর্তীতে সমিতির সকল সদস্যদের সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে ডায়াবেটিক সমিতি থেকে বহিস্কার করা হয় হাসমত উল্লাহকে। ফলে সাধারণ সম্পাদক হওয়ার তার যে স্বপ্ন তা স্বপ্নই রয়ে যায়। কিন্তু বহিস্কৃত হওয়ার পরেও চুপ করে বসে না থেকে অরাজনৈতিক এ সংগঠনটিতে রাজনীতি শুরু করেন হাসমত উল্লাহ। কতিপয় সদস্যকে ভুল-ভাল বুঝিয়ে এবং তারই পরিবারের কিছু লোকদের দিয়ে ডা. শাহনেওয়াজের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করিয়ে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করে তোলেন তিনি এমনটাই দাবী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের স্টাফ ও সমিতির বেশ কয়েকজন সদস্যের।তাদের দাবি, এরই ধারাবাহিকতায় এবার প্রয়াত এমপি আফজাল হোসেনকে বিতর্কিত করার চেষ্টায় লিপ্ত হয়েছেন রিটায়ার্ড এই সরকারী কর্মকর্তা। যে অভিযোগটি করা হয়েছিলো ডা. শাহনেওয়াজের বিরুদ্ধে তা ছিলো, মরহুম গোলাম মোস্তফা নামে এক ব্যক্তির নাম কেটে ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরীর নাম লিখেছেন খোদ শাহনেওয়াজ চৌধুরী নিজে। কিন্তু শাহনেওয়াজ চৌধুরীর দাবি ছিলো এটি লিখেছিলেন প্রয়াত এমপি আফজাল হোসেন সাহেব নিজে। যা তার সন্তান তারেক আফজালও নিশ্চিত করেছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে প্রয়াত আফজাল হোসেনের ছেলে তারেক আফজাল জানান, যেহেতু অভিযোগটি সাথে আমার বাবা, ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরীসহ প্রতিষ্ঠানটির ভাবমূর্তি জড়িয়ে আছে সেহেতু অধিকতর তদন্ত করা প্রয়োজন। অধিকতর তদন্ত ছাড়া বা আমাদের কারো দ্বারা সনাক্ত না করে কিভাবে ডায়াবেটিক সমিতি এ হাতের লেখা সম্পর্কে নিশ্চিত হলো তা আমাদের জানা নেই। আর কিভাবেই বা তারা একজন প্রবীন সদস্যের সদস্য পদ বাতিল করলো তাও আমাদের বোধগম্য হয় না।অপরদিকে, খোদ তদন্তকারী কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, এ হাতের লেখাটি আফজাল হোসেন সাহেবের তা আমরা নিজেরাও জানি এবং নিশ্চিত হয়েছি। তাহলে ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরীকে কেন সদস্য পদ থেকে বাদ দিলেন এমন প্রশ্নের উত্তরে ওই সদস্য সঠিক কোনো উত্তর দিতে পারেন নি। উত্তর দিতে না পারলেও একদিকে সবাই জানে এই লেখাটি ছিলো প্রয়াত এমপি আফজাল হোসেনেরই। বিপরীতে ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরী এ বিষয়ে কিছুই জানতেন না। ফলে ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরীকে বাদ দেয়ার মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠাতাকেই বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিমত সমিতির সদস্যদের।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।