ঢাকারবিবার , ৫ জুন ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিদ্ধিরগঞ্জে ওয়াক্ফ সম্পত্তি বিক্রির পায়তারা

আবু বকর সিদ্দিক
জুন ৫, ২০২২ ৫:৫৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সিদ্ধিরগঞ্জে আজগর হাজী ওয়াক্ফ এস্টেটের সম্পত্তি ফের বিক্রির পায়তারা করছে মতিন গংদের। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর পক্ষে সংশ্লিষ্ট দফতর বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন মিজমিজি দক্ষিণ পাড়া বাইতুল মামুর জামে মসজিদের মোতোয়াল্লী মো. আমিনুল হক ভূইয়া রাজু। রোববার (৫ জুন) বিকেল ৪ টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় মতিন গংরা ভেকু দিয়ে মিজমিজি দক্ষিনপাড়া এলাকায় ভুইয়া বাড়ি সংলগ্ন ওয়াক্ফ সম্পত্তিতে মাটি কাটছে মতিন গংরা। তারা এ সম্পত্তি তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি বলে দাবি করে আসছে। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময়ে বড় ধরনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওয়াক্ফ এস্টেটের প্রায় ৫.৬২ একর জমির মধ্যে সমস্ত সম্পত্তি ওয়াকিফের বিভিন্ন ওয়ারিশগণ অবৈধ ভাবে বিক্রি করে সম্পত্তি ধ্বংস করেছে। বর্তমানে ০.৫১ একর জমি অবশিষ্ট রয়েছে। অবশিষ্ট থাকা সম্পত্তিটিতে বালু ভরাট করে মতিন গংরা অবৈধ ভাবে বিক্রি করার পায়তারা করছে। আর এ সব কিছু ওয়াক্ফ সম্পত্তি ওয়াক্ফ এস্টেটের নামে রেকর্ড না থাকার কারনে পূর্ববর্তী মোতোয়াল্লীগণদেরকে রেকর্ড সংশোধন করার জন্য মামলা করার অনুমতি দেওয়া হলেও মোতোয়াল্লীগন তা করেনি। যার তফসিল হলো সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ি মৌজার সিএস ও এসএ দাগ নং-৪৫৭, আর এস দাগ নং- ১৫০৫, জমির পরিমান-০.৫০ একর এবং সিএস ও এসএ দাগ নং- ৪৫৮, আরএস -১৫০৬ জমির পরিমান০.০১ একর একুনে দুই দাগে ০.৫১ একর সম্পত্তি। বর্তমানে ওয়াক্ফ এস্টেটটি মোতোয়াল্লীবিহীন অবস্থায় রয়েছে। এস্টেটের যুগ্ম মোতোয়াল্লীদয় মৃত্যু বরণ করেছেন। ওয়াক্ফ এস্টেটটি রক্ষার জন্য স্থানীয় ওয়াক্ফ পরিদর্শক জেলা প্রশাসককে প্রধান করে একটি কমিটি অনুমোদন দেওয়ার জন্য দুই বার প্রতিবেদন দখিল করা হয়েছে। বর্তমানে অবৈধ ভাবে বালু ভরাট করে দখল নেয়া বন্ধ করা জরুরি প্রয়োজন বলে মনে করেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, মতিন ওরফে পাগলা মতিনের নেতৃত্যে মো: আব্দুর রহমান ভূইয়া, মো. আজাহার, রহমানের ছেলে মো. আল-আমিন ভূইয়া ও আরিফ ভূইয়া জোর পূর্বক ভাবে উক্ত জমিতে বালু ভরাট করছে। তাদের কাছে এলাকার মানুষ এক প্রকার জিম্মি রয়েছেন। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক রাজু জানায়, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সহযোগীতা পেলেও এড়িয়ে যাচ্ছে ওয়াক্ফ প্রশাসক কর্তৃপক্ষ। কোটি কোটি টাকার ওয়াক্ফ জমি কয়েক দফা বেচা কিনা হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত হওয়ার পরও ওয়াক্ফ প্রশাসক কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা। এই সুযোগ নিয়ে মতিন গংরা যারা এই ওয়াক্ফা সম্পত্তি উদ্ধারে এগিয়ে আসছে তাদেরকে সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজ আখ্যাসহ বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দিয়ে হয়রানী করছে।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. ইকবাল হোসেন জানান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দান করা ওয়াক্ফ সম্পত্তি বিক্রি করে অর্থ আত্মসাত করা দুঃখজনক। এই জমি উদ্ধার করতে ওয়ার্ডবাসীকে সঙ্গে নিয়ে যা প্রয়োজন তাই করবো।উল্লেখ্য, আজগর হাজীর মৃত্যুর পর তার রছলে দবু মোহাম্মদ, নূও রমাহাম্মদ ও দিল মো‏হাম্মদ সত্য গোপন করে ওয়াক্ফ জমি বিক্রি করে। তিন ভাইয়ের মৃত্যুর পর তাদের সন্তানরাও একইভাবে জমি বিক্রি করে। পরবর্তীতে মৃত দবু মোহাম্মদের ছেলে আলি হোসেন ও আব্দুল মতিন ওরফে মতিন পাললা, মৃত নূও মোহাম্মদের ছেলে শুক্কুর আলি এবং একই এলাকার মিয়াচানের ছেলে কামাল প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে ওয়াক্ফ জমি বিভিন্ন লোকদের কাছে বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। শুধু তারাই নয় মিজমিজি দক্ষিণ পাড়া জামে মসজিদ ওয়াক্ফ এস্টেট এর পক্ষে মোতওয়াল্লা মো. রফিক মিয়া ও মো. জহিরুল ইসলাম (বর্তমানে দুই জনই মৃত) বিক্রি করেন ৫৩ শতাংশ। জমি বিক্রির টাকা দুই ওমাতওয়াল্লী মসজিদের কাছে না লাগিয়ে নিজের বাড়ি নির্মাণ করেছে বলে জানান মসজিদ কমিটির সভাপতি হাজি মো. মোস্তফা কামাল ও স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।