ঢাকারবিবার , ৫ জুন ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিদ্ধিরগঞ্জে জমজমাট মাদক ব্যবসা

আবু বকর সিদ্দিক
জুন ৫, ২০২২ ৬:০২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজিতে থানা পুলিশকে ম্যানেজ করে নিশ্চিন্তে জমজমাট মাদক ব্যবসা করার অভিযোগ উঠেছে এলাকার চিহ্নিত বিভিন্ন অপরাধীদের বিরুদ্ধে। যাদের মধ্যে অন্যতম জসিম বাহিনী। এ ঘটনায় স্থানীয় এলাকাবাসী র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১১) এর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জে ধর্ষণসহ একাধিক মামলার আসামী, পেশাদার ছিনতাইকারী ও মাদক সিন্ডিকেটের মুলহোতা জসিমের ও তার কয়েকজন সহযোগী মিলে গঠন করেছে কয়েকটি শক্তিশালী দল। যাদের কারও কাজ কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ফেনী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন সীমান্তবর্তী এলাকা মাদক ক্রয় করে সিদ্ধিরগঞ্জ পর্যন্ত নিরাপদে পৌঁছানো। আরেকটি টিমের সদস্যরা মাদক সিদ্ধিরগঞ্জ পৌঁছানোর পর নিরাপদ স্থানে তা সংরক্ষণের দায়িত্বে থাকে। এই টিমে নারী মাদক ব্যবসায়ীরা বেশি সম্পৃক্ত। এই মাদক নিরাপদে ক্রেতাদের হাতে তুলে দিয়ে টাকা বুঝে নেয় আরেক টিম। আর জসিমের এই কয়েকটি টিমকে অর্থ ও প্রশাসনের হাত থেকে শেল্টার দেয় সব চেয়ে শক্তিশালী চক্র। এর আগে গ্রেপ্তার হলেও তার মাদক ব্যবসায় কোনো প্রভাব পড়ে নাই।ছিনতাইকারী জসিম হচ্ছে সিদ্ধিরগঞ্জের মাদক সম্রাট টাইগার ফারুক ওরফে চিকনা ফারুক এবং ছাত্রদল নেতা মো. জুয়েল রানার ভাই এবং আদমজী জুট মিলের সাবেক শ্রমিক দল নেতা আবু সাঈদের ছেলে। বর্তমানে তারা সিদ্ধিরগঞ্জ থনাধীন নাসিক এক নম্বর ওয়ার্ডস্থ বাতান পাড়া এলাকায় পাঁচতলা বাড়ী করে আয়েশী দিন যাপন করছেন টাইগার ফারুক ও তার পরিবার। তাদের দুই ভাইয়ের প্রত্যক্ষ শেল্টারে জসিম এক নম্বর ওয়ার্ডে গড়ে তুলেছে একটি মাদকের শক্তিশালী সিন্ডিকেট। তার নেতৃত্বেই এই ওয়ার্ডে অবাধে চলছে মাদক, চুরি, ছিনতাই, মারামারী, নারী নিয়ে ফুর্তি। বন্ধ হয়ে যাওয়া সেই আদমজীর নিউ কলোনী থেকে এসে এই এলাকায় গড়ে তুলেছে রাম রাজত্ব। ক্ষমতাসীন দলের কতিপয় শীর্ষ নেতার ছত্র-ছায়ায় বনে গেছে যুবলীগ নেতা। লোক চক্ষুর অন্তরালে অবৈধ কর্মকান্ড করে বনে গেছেন কোটি পতি। যা দেখে অনেকেই হতভম্ব। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি থেকে নিজেদেরকে আড়াল করে তাদের এই অবৈধ কর্মকান্ড ঠিক রাখতে আবার সোর্সের ভুমিকায়ও দাবরিয়ে বেড়াতো জসিম। কেউ তার অপকর্মের বিরুদ্ধে মুখ খুললেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদেরকে দিয়ে হয়রানী করতো সে।

বিভিন্ন সূত্রে থেকে জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জ পাইনাদী কবরস্থানের পিছনে পুষ্কুনীপাড়, সিআই খোলা বৌ-বাজার, তেরা মার্কেট, আল-আমিন নগর, মুজিব বাগ, কাঠেরপুল, সাইলোরোড এর চৌরাবাড়ী পাম্প সংলগ্ন পুকুরপার, গেরেজ, সাইলোগেট, নদীর পাড়, আজিবপুর রেললাইন, মিজমিজি পাগলাবাড়িসহ অলিগলিতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে জসিম বাহিনীর সদস্যরা।জসিম বাহিনীর সদস্য সংখ্যা প্রায় দু’শ তবে এদের মধ্যে এলাকায় পরিচিত হচ্ছে, চাঁন বাদশা (চাঁন্দু), তার স্ত্রী সুমি, কতিথ সোর্স, ডাকাতী মামলার আসামী ও বর্তমান মাদক ব্যাবসায়ী ইলিয়াস, পাগলা বাড়ির চিহ্নিত মাদক ও দেহ ব্যবসায়ী রহিমা, আব্বাস, শুভ, করিম, ইমরান, পলাশ, সোয়াদ, খোকন, মানিক, দেলুসহ সিন্ডিকেটের আরো অনেকে।

এদের অনেকেই নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ মাদকদ্রব্যসহ একাধিকবার গ্রেফতারও করেছে। তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলাও রয়েছে। যতবারই তারা গ্রেফতার হয়েছে কিছুদিন পর আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে অভিনব কৌশলে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। কতিথ কিছু সোর্সসহ এদের একটি সিন্ডিকেট তৈরী করে এ মাদক ব্যবসাটি চালিয়ে আসছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানায়। এদের বিরুদ্ধে একাধিক বার সংবাদ প্রকাশও হয়েছে। তারা শক্তিশালী একটি সঙ্গবদ্ধ সিন্ডিকেট গড়ে তুলে যার ফলে ধ্বংস হচ্ছে যুবসমাজ, বৃদ্ধি পাচ্ছে এলাকায় মারামারী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, ছিনতাই, চুরি, ধর্ষণসহ সামাজিক অপরাধ।

তবে রহস্যজনক কারনে স্থানীয় কিছু বড় ভাইয়েরা দেখলেও সুবিধা পেয়ে দেখেনা। যেমন, তাদের কথা শুনা, ডাক দিলেই পাওয়া যায়, মিটিং, মিছিল, রাস্তায় ফিটিং, বড় ভাইদের সেবনের জন্য ফ্রি মাদক সরবরাহ, কেও মানতিও খায়, (মানে প্রতিদিন কিছু খরচ) স্থানীয়দের এই অবস্থা দেখে কোনঠাসা হয়ে এখন নিরব বসবাসকারীরা। যারা এখানে এসে বাড়ী-ঘর করে বসবাস করছে। বসবাসকারী নিরহ জনসাধারণ প্রশাসনের প্রতি সুদৃষ্টি দিয়ে গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে সুষ্ঠ তদন্ত করে এই ছিনতাইকারী, চোর, ধর্ষণকারী ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিষাক্ত এ ছোবল থেকে যুবসমাজকে রক্ষা করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ জরুরী। এসব মাদক ব্যবসায়ী ও তার মদদ দাতাদের বিরদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য র‌্যাব-১১ ও নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকার সচেতন মহল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবঢু এলাকাবাসী বলেন, আমরা সারাক্ষণ ভয়ের মধ্যে জীবনযাপন করি। কখন যে কার পেটে এই মাদক ব্যবসায়ীরা ছুরি ঢুকিয়ে দেয় তা বলা যায় না। এদের মধ্যে সব চেয়ে ভয়ানক হচ্ছে ভায়রা জসীম, ইমরান ওরফে ছাদু ইমরান। এরা সব সবসময় এলাকায় তাদের দল নিয়ে মহড়া দেয়। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ চুপচাপ দেখে। এলাকায় প্রতিদিন কোনো না কোনো বাড়িতে চুরি হয়। আমরা চাই এলাকায় মাদকের ছড়াছড়ি কমাতে ও শান্তিতে বসবাস করতে র‌্যাব- ১১ এর হস্তক্ষেপ।এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মশিউর রহমান পিপিএম-বার বলেন, থানা পুলিশের সঙ্গে মাদক ব্যবসায়ীদের কোন সম্পর্ক নেই। পুলিশ সব সময় মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। যদি কারও বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেয় তাহলে তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।