ঢাকারবিবার , ৫ জুন ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

২২ ঘণ্টা পর সীতাকুণ্ডের আগুন নিয়ন্ত্রণে

আবু বকর সিদ্দিক
জুন ৫, ২০২২ ৬:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে লাগা আগুন ২২ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছ। রবিবার (৫ জুন) সন্ধ্যা ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। ফায়ার সার্ভিসের (মিডিয়া) কর্মকর্তা শাহজাহান শিকদার এসব তথ্য জানিয়েছেন।তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ ২২ ঘণ্টার চেষ্টায় বিএম কনটেইনার ডিপোতে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। এখন আগুন নির্বাপণের কাজ চলছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা প্রত্যেকটি কনটেইনার খুলে চেক করছেন। কনটেইনারগুলো থেকে ফের আগুনের সূত্রপাত হতে পারে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।’ তিনি আরো জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ২৫টি ইউনিট ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১টি কোম্পানি যৌথভাবে কাজ করেছে।সীতাকুন্ডের বিশাল সেই বিএম কন্টেনার ডিপোটি জ্বলে-পুড়ে অঙ্গার হয়ে নরককুন্ডে পরিণত হয়েছে।

ঘটনা তদন্তে চট্টগ্রাম বন্দর, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস কর্তৃপক্ষ, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসন, ফায়ার সার্ভিস, স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পৃথক পৃথক তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের গঠিত কমিটিসমূহকে আলাদা আলাদাভাবে রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়েছে। মর্মান্তিক এই ঘটনায় রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পীকার, বিভিন্ন মন্ত্রী-এমপিসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরের পক্ষ থেকে গভীর শোক ও সমবেদনা জানানো হয়েছে। সংসদেও নিহতদের স্মরণে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার রাত সাড়ে ৮টার পর ডিপোর একটি কেমিক্যাল (হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড) বোঝাই কন্টেনারে আগুন লাগার পর যখন ফায়ার কর্মীরা এটা নেভানোর জন্য তৎপরতা শুরু করেন তখনই বিকট শব্দে জ্বলন্ত একটি কন্টেনার বিস্ফোরিত হয়। বিস্ফোরণের আগুনে আশপাশের কন্টেনারগুলোতে একের পর এক আগুন লেগে যায়। এ সময় ডিপোটি শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং কন্টেনার পরিবহনে নিয়োজিতদের নিয়ে সরগরম ছিল। বিস্ফোরণে ডিপোর সন্নিহিত প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকা বিকট শব্দে প্রকম্পিত হয়।

পাশ্ববর্তী বাড়িঘর ও একটি মসজিদের দরজা-জানালার কাচ ভেঙ্গে যায়। একদিকে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে থাকে, অপরদিকে বিস্ফোরণে নিহত ও আহতদের সরানোর কাজ চলতে থাকে। রবিবার রাত ৮টা পর্যন্ত জোরালো উদ্ধার তৎপরতায় সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৯। এর মধ্যে ফায়ার কর্মী রয়েছেন ৯ জন। এ ছাড়া আহতের সংখ্যা চার শ’ ছাড়িয়ে গেছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে। আহতদের সীতাকুন্ডের স্থানীয় হাসপাতাল ক্লিনিক, বিএসবিআরএর হাসপাতাল এমনকি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম হাসপাতালেও নেয়া হয়েছে। এরপর গুরুতর কয়েকজনকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় নেয়া হয়েছে বলে আইএসপিআর সূত্রে জানানো হয়েছে।

ঘটনার আকস্মিকতা থাকলেও মৃত ও আহতের সংখ্যা এত উর্ধে চলে যাবে তা শনিবার রাত পর্যন্ত কারও ভাবনায় আসেনি। রাত যত গভীর হচ্ছিল, নিহতের সংখ্যা ততই বাড়ছিল। আহতদের আহাজারিতে আকাশ বাতাস ভারি করেছে। রাতেই চমেক কর্তৃপক্ষ হাসপাতালের সকল ডাক্তারকে জরুরী নির্দেশনা দিয়ে কর্মে নিয়ে আসে। কিন্তু যে পরিমাণ আহত আসতে থাকে সে পরিমাণে তাদের সহায়তা দিতে ডাক্তারদের নিদারুণ বেগ পেতে হয়। ওষুধসহ বিভিন্ন সাহায্য সামগ্রীর কোন অভাব ছিল না। কেননা, একদল মানবিক কর্মী এ ঘটনায় নিহত ও আহতদের উদ্ধার এবং তাদের প্রয়োজনীয় ওষুধ ও পণ্য সামগ্রী নিয়ে এগিয়ে আসে। এটা ছিল মানবিকতায় চট্টগ্রামে অতীত ইতিহাসের একটি রেকর্ড। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, ছাত্র সংগঠন, সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মী এবং বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীদের ভূমিকা ছিল অসাধারণ। চট্টগ্রাম গাউছিয়া কমিটি নামে একটি সংগঠনের তৎপরতা সর্বত্র প্রশংসা কুড়িয়েছে। এরা আগুন লাগার শুরু থেকে রবিবার বিকেল পর্যন্ত আহত-নিহতরা যাবতীয় কর্মে নিয়োজিত ছিল।

বিএম কন্টেনার ডিপোটি ২৪ একর জমি নিয়ে সীতাকুন্ডের সোনাইছড়ির শীতলপুর এলাকায় প্রতিষ্ঠিত। এ গ্রুপের মালিকানায় রয়েছে চট্টগ্রামের শিল্প গ্রুপ স্মার্ট গ্রুপ। এ গ্রুপের কর্ণধার ও বিএম কন্টেনার ডিপোর পরিচালক মজিবুর রহমান ঘটনার পর প্রদত্ত বক্তব্যে বলেছেন, কী কারণে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তাদের নিজস্ব একটি কমিটি এ নিয়ে কাজ করছে। তবে কন্টেনার থেকে আগুন ধরেছে বলে তিনি মনে করছেন। নৈতিকতা ও মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে হতাহতদের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন। আহতরা যাতে সর্বোচ্চ চিকিৎসা পান সেদিকে নজর দেয়া হয়েছে বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন। আহতদের সম্পূর্ণ চিকিৎসার ব্যয়ভার এ শিল্প গ্রুপ বহন করবে। এ ছাড়া হতাহতদের সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে। হতাহতদের পরিবারের দায়িত্বও নেবে এ গ্রুপ। তিনি আরও জানিয়েছেন, প্রশাসন যেভাবে সিদ্ধান্ত দেবে সেভাবেই সহায়তা কার্যক্রম চালানো হবে। মানবিক বিপর্যয়ের এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট সকলকে পাশে থাকার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে বিএম কন্টেনার ডিপোর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, ডিপোটির কন্টেনার ধারণক্ষমতা ১০ হাজার টিইইউএস। বর্তমানে সেখানে রয়েছে ৪ হাজার কন্টেনার, যার মধ্যে ৩শ’টি খালি। বাকিগুলো আমদানি-রফতানির পণ্য বোঝাই। এর মধ্যে কি পরিমাণ কন্টেনারে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড ছিল তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

অসমর্থিত বিভিন্ন সূত্রে জানানো হয়েছে, ২০ থেকে ২৫টি কন্টেনারে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড ছিল, যেগুলো বিদেশে রফতানির জন্য রাখা হয়েছে। হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড যেহেতু দাহ্য পদার্থ সেক্ষেত্রে শনিবার রাত সাড়ে আটটার পর যে কোন সময়ে এসবের একটি কন্টেনারে আগুন লেগে যায়। ঠিক কি কারণে আগুন লেগেছে তা সুনির্দিষ্টভাবে কোন সূত্রই জানাতে পারেনি। প্রায় দু’ঘণ্টা পর জ্বলন্ত কন্টেনারটির ওপর যখন আগুন নেভানোর জন্য পানি পড়ে তখনই এটি বিস্ফোরিত হয়। বিস্ফোরণে কন্টেনারটি ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় এবং আগুন লাগোয়া কন্টেনারগুলোতে একের পর এক বিস্তৃতি ঘটে। বিএম গ্রুপের পক্ষ থেকে আগুনের এ ঘটনায় ক্ষতির পরিমাণ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে বলে দাবি করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড নিজে থেকে জ্বলে উঠতে পারে না। অতিরিক্ত আগুনে এটি জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরিতে পরিণত হয়। ঘটনার সময় ডিপোতে বেশকিছু কর্মকর্তা ও শতাধিক শ্রমিক কাজ করছিলেন। আগুনের সূত্রপাত হওয়ার পর আশপাশের লোকজন এতে ভিড় জমায়। অনেকেই আগুন নেভানোর জন্য তৎপরতা চালায়। কিন্তু আগুনের লেলিহান শিখার কারণে ধারে কাছে যাওয়া সম্ভব ছিল না। এর মধ্যেই চলে আসে ফায়ার কর্মীদের দল। একেএকে সীতাকুন্ড, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম এবং সুদূর বান্দরবান, খাগড়াছড়ি থেকেও গভীর রাতে ফায়ার সার্ভিসের বহর আসতে থাকে। আগুন লাগার পর আধঘণ্টার মধ্যে পাশর্^বর্তী সীতাকুন্ড উপজেলা ও কুমিরা থেকে ফায়ার কর্মীরা হাজির হয় এবং আগুন নেভানোর কাজে যোগ দেয়। এরপর রাত সাড়ে এগারোটার দিকে চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন স্টেশন থেকে আরও পনেরোটি গাড়ি কাজে যোগ দেয়। আর ওইদিকে আগুনের ভয়াবহতারও বিস্তৃতি লাভ করছিল। একপর্যায়ে সুনির্দিষ্টভাবে প্রথমে যে কন্টেনারটিতে আগুনের সূত্রপাত ঘটে সেই কন্টেনারের ওপর পানির ঝাপটা পড়ার সঙ্গে সঙ্গে এটি বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। বিস্ফোরিত কন্টেনারের ভেতরে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড থাকার কারণে আগুনের লেলিহান শিখা বিস্তৃত হতে থাকে। একের পর এক কন্টেনার জ্বলে-পুড়ে অঙ্গার হতে থাকে। সঙ্গে ডিপোর কর্মচারী এবং আগুনের লেলিহান শিখা দেখতে আসা অনেকে গুরুতর আহত হয়ে যায়। বিস্ফোরিত কন্টেনারের ভগ্নাংশ এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে যায়। এভাবে রাতভর চলার পর রবিবার দুপুরের আগে মোতায়েন হয় সেনা বিশেষজ্ঞ দল। সেনাবাহিনীর ২৪ পদাতিক ডিভিশনের দুই শতাধিক কর্মী বাহিনীকে আগুন নেভানোর কাজে নিয়োজিত করা হয়। ফায়ার কর্মীদের সঙ্গে তারা একযোগে কাজ শুরু করে। এরা প্রথমে ডিপোর সঙ্গে লাগোয়া, ড্রেন, নালা ইত্যাদি বন্ধ করে দেয়, যাতে এ ড্রেন নালা দিয়ে কেমিক্যাল বর্জ্য সাগরে গিয়ে না পড়ে।

সেনাবাহিনীর লে. কর্নেল আরিফ সাংবাদিকদের জানান, কি পরিমাণ হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড বোঝাই কন্টেনার রয়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, বেশ কয়েকটি কন্টেনারে এ দাহ্য পদার্থ রয়েছে।সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শনে দেখা যায়, ভয়াবহ এক বিভীষিকার চিত্র। রবিবার দুপুর দুটা পর্যন্তও বিভিন্ন কন্টেনারে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। ফায়ার কর্মীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পানি ছিটিয়ে অগ্নিনির্বাপণের চেষ্টা করে যাচ্ছিলেন। তাদের সঙ্গে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে যোগ দেন স্থানীয় লোকজনও।

ছুটে আসা এলাকাবাসীর একজন জানান, রাতে এতটাই বিকট বিস্ফোরণ ঘটে যে, পুরো এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। ভূমিকম্পের সময়ও এতটা আতঙ্কিত আমরা হইনি। আগুনের লেলিহান শিখা উঠে যায় অনেক ওপরে। রাতের মধ্যেই আমরা অনেকেই ছুটে এসেছি বটে, কিন্তু সেখানে প্রবেশের মত অবস্থা ছিল না। মেঝেতে গড়ানো কেমিক্যাল মিশ্রিত পানিগুলোও ছিল বিপজ্জনক। আগুনের সংস্পর্শে এসে এগুলো মারাত্মক অবস্থার সৃষ্টি করে। এতে অনেকের পা পুড়ে যায়।

বিএম কন্টেনার ডিপোতে কর্তব্য পালনরত ফায়ার সার্ভিস এবং পুলিশের কর্মকর্তারা দুপুরে জানান, আহতদের অধিকাংশকেই রাতের মধ্যে বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। রবিবার দিনের বেলায় যাদের উদ্ধার করে নেয়া হচ্ছে তাদের অধিকাংশই ছিল মৃত। মৃত যাদের পরিচয় শনাক্ত হয়নি তাদের ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে চিহ্নিত করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুক।চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডের বিএম ডিপোতে যে ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটে গেছে স্মরণকালে এমন আর হয়নি। বিশেষ করে চট্টগ্রাম মহানগর এবং এর সন্নিহিত এলাকাজুড়ে যে সব কন্টেনার ডিপো রয়েছে তাতে এ ধরনের ঘটনা অতীতে আর ঘটেনি। ফলে কন্টেনার ডিপো এবং এর হ্যান্ডলিংয়ের সঙ্গে জড়িত সকলেই বিস্ময়ে হতবাক হয়ে আছেন। ঘটনার পর সময় যতই অতিবাহিত হচ্ছিল ততই সকলের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বাড়ছিল। কেননা, এতে একের পর এক আহত এবং নিহতদের একদিকে যেমন বেরিয়ে আসছিল, অন্যদিকে আমদানি-রফতানির পণ্য বোঝাইয়ের বিপরীতে ক্ষতির বিষয়টি সংশ্লিষ্ট সকলের সামনে চলে এসেছে।

চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের কমিশনার মোঃ ফখরুল আলম জানান, বাংলাদেশ থেকে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড রফতানি হয়। বিএম ডিপো থেকে প্রতিমাসে ন্যূনতম দুই থেকে তিনটি চালান রফতানি হয়ে থাকে। এ ছাড়া অন্যান্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানও অনুরূপভাবে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড রফতানি করে থাকে। বিএম গ্রুপের চট্টগ্রামে অবস্থিত অঙ্গ প্রতিষ্ঠান আল রাজি কেমিক্যাল কমপ্লেক্স লিমিটেড হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড উৎপাদন ও রফতানির সঙ্গে জড়িত। কাস্টম সূত্রে জানানো হয়, সাধারণত পাকিস্তান ও ভারতে এ কেমিক্যাল রফতানি হয়ে আসছে।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।