চরম বিভেদ নিয়ে রাজপথে দুই দল

নারায়ণগঞ্জে দলীয় কোন্দল ও বিভেদ জিইয়ে রেখে রাজ পথে নেমেছে বাংলাদেশের বৃহত দুইটি রাজনৈতিক দল। টানা তিন মেয়াদে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থেকে আওয়ামী লীগের মধ্যকার দুটি অংশ দেশ ব্যাপি সমান সমালোচিত। এদিকে দীর্ঘদিন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় না আসতে পারা বিএনপির অবস্থান সরকার দল আওয়ামী লীগের চেয়েও ভয়াবহ। এর প্রমাণ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের নিজ দলের নেতাকর্মীদের ইন্ধনে ছুরিকাঘাত হওয়া। তবে নিজেদের মধ্যে চরম বিভেদ নিয়ে দুই দলই আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে উদ্দেশ্য করে রাজপথে বেশ স্বক্রীয় হয়ে উঠেছে।

সম্প্রতি সারা দেশের মত নারায়ণগঞ্জে ও দুই দলের রাজনীতি সভা-সেমিনার ও দলীয় পার্টি অফিস ছাপিয়ে রাজপথে ও সমাবেশের পুরোনো রূপে ফিরেছে। এরই সাথে তাল মিলিয়ে রাজনৈতিক নানা বিষয়, উক্তি রাজনৈতিক নেতাদের বক্তব্য পত্র পত্রিকার খবরগুলোকে ‘তাজা খবর’, ‘গড়ম খবর’ এ রূপান্তরীত করছে। সর্বশেষ সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে পদ্মাসেতু থেকে ফেলে দেওয়ার ইস্যুতে বেশ সরব হয়ে উঠে বিএনপি। এর পর আসে বর্তমান সরকার প্রধান ও প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি। এর প্রতিবাদে রাজপথ এখন আওয়ামী লীগের দখলে। তবে এমন রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে দুই দলের স্পষ্ট বিভেদ সাধারনের মনে হাস্যরস সৃষ্টি করছে।এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ চলছে উত্তরমেরূ ও দক্ষিনমেরূ সমীকরনের হিসাব মিলিয়ে।

একদিকে নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী নেতা শামীম ওসমান বলয় অন্যদিকে মেয়র আইভী বলয়। তবে দল ক্ষমতায় থাকা কালীন এখন পর্যন্ত দলের যে কোন দুঃসময়ে শামীম ওসমান অনুসারীরা রাজপথে থেকে রাজপথ প্রকম্পিত করেছেন এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই। বিএনপি সরকারের আমলে জালাও পোড়াও কর্মকান্ড প্রতিহত করতে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান অনুসারী ছাত্রলীগ, যুবলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগের অবদান বেশ প্রসংষা কড়িয়েছিল। তবে সেই সময় সেই দক্ষিন মেরূর নেতাকর্মীদের অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বাম দলের গা ঘেঁসে চলার কারনে।

খোদ মেয়র আইভী ও তার অনুসারীদের সরকার দলের কড়া সমালোচনা কর বামদের সাথে এই সৃসম্পর্ক স্বাভাবিক ভাবে নিতে পারেনি আওয়ামী লীগের বৃহত একটি অংশ। অভিযোগ রয়েছে সরকার প্রধানকে জড়িয়ে কড়া সমালোচনাকারীদের সাথে এক টেবিলে বসে সভা আর সমাবেস করেন বর্তমান মেয়র। তার সামনে দল, সরকার ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে তার সামনেই বেফাঁস মন্তব্য আর সমালোচনা করার পরও তাকে এর প্রতিবাদ করতে দেখা যায়নি বলেও অভিযোগ দলটির একাধিক নেতাকর্মীর।

অন্য দিকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবদী দলের নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর ইউনিটের বিভেদ এখন বেশ দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে। আওয়ামী লীগের চেয়ে বিএনপিতে দলীয় কোন্দলের উপস্থিতি আরোও সোচনীয়। এখানে দলের বিভিন্ন নেতাকর্মীরা তাদের আহ্বায়ক ও সদস্য সচিবের উপর আস্থার বাতি জালাতে পারছেন না। বিশেষ করে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদকে ঘিরে সমালোচনা পিছু ছাড়ছে না কোন ভাবেই। তার বিরূদ্ধে সবচেয়ে বড় অভিযোগ হল, তিনি কমিটি নিয়ে ব্যাপক বাণিজ্য করে প্রকৃত নেতাকর্মীদের দুরে রেখেছেন বরাবরই। অর্থের বিনিময়ে তার নিজস্ব পকেট কমিটি দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে অনেক। এর আগে এই কমিটি বাণিজ্যের প্রতিবাদে তার কুশপুত্তলিকা দাহ করেছে ছাত্রদল, যুবদলসহ অন্যান্য অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীরা।

এদিকে নাসিক নির্বাচনে অংশ নেওয়া তৈমূর আলম খন্দকারের বহিস্কারাদেশ আলোচনায় উঠে আসে। জানা যায় এই আদেশের পিছনে কলকাঠি নেড়েছেন দলটির সাবেক এক প্রভাবশালী সংসদ সদস্য। তার এজেন্ডা বাস্তবায়নে বর্তমান সদস্য সচিব কাজ করছেন বলে দলটির তৃণমূলের একাধিক নেতাকর্মীদের অভিযোগ রয়েছে। আবার সেই নেতা বর্তমান মেয়রের সাথে দহরম মহরম সম্পর্কের বিষয়টিও সাথানীয় রাজনীতির আলোচনা সমালোচনার খোরাক জুগিয়েছে সময়ে সময়ে।এদিকে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে ও সুস্থ্য-স্বাভাবিক রাজনৈতিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে দুই দলের বিভেদকে দমন করে আরোও সংযত হয়ে প্রতিহিংসার রাজনীতি বর্জণ করে গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার আহ্বান সুশিল সমাজের।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ