প্রধানমন্ত্রী ও সরকার নিয়ে কটুক্তি-শ্লোগান মুখোমুখি ছাত্রদল-ছাত্রলীগ

তারা ‘৭৫ এর হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেক বার’, ‘শেখ হসিনার গদিতে আগুন জ্বালাও একসাথে’, সাকির উপর হামলা কেন খুনী সরকার জবাব চাই’ শ্লোগান শুনে নিজেদের ধওে রাখতে পারলো ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তাই প্রধানমন্ত্রী ও সরকারকে নিয়ে কটুক্তি ও বিরুপ শ্লোগান দেয়াকে কেন্দ্র করে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ধাওয়া দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা পাল্টা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটালে উভয় গ্রুপ মুখোমুখি অবস্থানে পৌছে। খবর পেয়ে আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতারা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর খানপুর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশ বলছে ঘটনাস্থলে গিয়ে তারা কাউকে না পেলেও এলাকাবাসীর কাছে পটকা বিস্ফোরণের সংবাদ পেয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার রাত ১১টার দিকে শহরের খানপুর এলাকায় মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শাহেদ আহমেদ এর নেতৃত্বে ৩০/৩৫জন নেতাকর্মী ঝটিকা মশাল মিছিলের প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এসময় তারা ‘৭৫ এর হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেক বার’, ‘শেখ হসিনার গদিতে আগুন জ্বালাও একসাথে’, সাকির উপর হামলা কেন খুনী সরকার জবাব চাই’ শ্লোগান দিচ্ছিল। খবর পেয়ে জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের ১০/১৫জন নেতাকর্মী ঘটনাস্থলে গিয়ে ধাওয়া করে ছাত্রল নেতা কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এক পর্যায়ে ছাত্রদলের কর্মীরা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে বেশ কয়েকটি ককটেল নিক্ষেপ করে। এই খবর পেয়ে ছাত্রলীগের আরো নেতাকর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছলে উভয় গ্রুপ মুখোুমখি অবস্থানে পৌছে। এক পর্যায়ে ঘটনা ছড়িয়ে পরলে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ঘটনাস্থলে ছুটে যান মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড.খোকন সাহা, নগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদত হোসেন সাজনু, মহানগর কৃষকলীগের যুগ্ম আহবায়ক জিল্লুর রহমান লিটনসহ সিনিয়র নেতারা। তাদের উপস্থিতি দেখে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা এসময় এলাকা ত্যাগ করে। ছাত্রলীগের নেতা কর্মীদের নিবৃত করে বাড়ি ফেরান সিনিয়র নেতারা। এসময় ছাত্রলীগেরনেতাকর্মীরা সিনিয়র নেতাদের সামনে দলীয় সভানেত্রীকে নিয়ে ছাত্রদল নেতা কমীদের বিরূপ মন্তব্যের বিচার দাবি করে শ্লোগান দেয়। পরে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নিবৃত করে বাড়ী ফেরান সিনিয়ররা।

এ বিষয়ে সত্যতা জানিয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা জানান, ছাত্রদল নেতা কর্মীরা একটি মিছিল শহরের খানপুর এলাকায় বের করে। ওই সময় মিছিল থেকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে নানা বাজে মন্তব্য করা হয়। এসময় ছাত্রলীগের কিছু কর্মী সেখানে এর প্রতিবাদ করলে তাদের উপর ককটেল নিক্ষেপ করে ছাত্রদলের সন্ত্রাসীরা। খবর পেয়ে আমরা আওয়ামীলীগ যুবলীগের সিনিয়র নেতারা গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেছি।

খোকন সাহা ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, আমরা অনেক কিছু সহ্য করেই নারায়ণগঞ্জে রাজনীতি করছি। নেত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করা লোকেরাও আমাদের দলের কারো কারো ‘কোলে’ বসে আছে। হঠাৎ করেই নারায়ণগঞ্জে বিএনপি-জামাতের আস্ফালনের নেপথ্যে ঘরের ও বাইরের শর্ষের ভুতরাই দায়ী। গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এই বিষয়টি অবশ্যই জানেন বলে আমার বিশ্বাস।

ঘটনাস্থলে যাওয়া কৃষকলীগ নেতা জিল্লুর রহমান লিটন বলেন, ক্ষমতায় আওয়ামীলীগের সরকার অথচ শহরে সরকার বিরোধী মশাল মিছিল হয়, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে অশ্রাব্য ভাষায় বক্তব্য দেয়া হয়। আমরা মাথা ঠান্ডা রাখলেও ছাত্রলীগের ছেলেদের পক্ষে সেই পরিবেশ পরিস্থিতি সহ্য করাটা কঠিন। তাই আমরা ঘটনা চরম পর্যায়ে চলে যাওয়ার আগেই ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রলীগে নেতা কমীদের নিবৃত করে আনি। নইলে বড় ধরণের কোন ঘটনা ঘটে যেত। তিনি বলেন, এভাবে অব্যাহতভাবে আমাদের নেত্রী সম্পর্কে বাজে মন্তব্য করলে নারায়ণগঞ্জের নেতা কর্মীদের নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব নাও হতে পারে। আর আমরাও ঘবে বসে থাকবে না। এটাই স্বাভাবিক। আমরা এতদিন সহ্য করেছি। এখন থেকে পাল্টা জবাব দেব। এব্যপারে মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শাহেদের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

এবিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সাইদুজ্জামান জানান, আমরা খবর পাওয়ার সাথে সাথেই সেখানে পুলিশ পাঠিয়েছি কিন্তু ঘটনাস্থলে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে এলাকাবাসী জানিয়েছেন তারা ঘটনার সময় কয়েকটি পটকা ফোটার শব্দ পেয়েছেন। এব্যপারে থানায় কোন জিডি বা অভিযোগ কেউ করেনি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ