রুপগঞ্জের গোলাকান্দাইলে হাত বাড়ালেই মাদক

রূপগঞ্জ উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডেই হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে ইয়াবা, ফেনসিডিল, হেরোইন, গাঁজা, বিয়ার,মদ। কোনোভাবেই থামছে না মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসা। পুলিশের তৎপরতা কম থাকায় দিন দিন মাদকের বিস্তার বেড়েই চলেছে। মাদকের ফাঁদে পড়ে স্কুল কলেজের শিক্ষাথীসহ উঠতি বয়সী যুবকরা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এই মাদকের অর্থ জোগাড় করতে চুরি বা ছিনতাই ও ডাকাতিসহ মানুষ খুনের কাজও করছে মাদকসেবীরা। মাদক সেবীদের ভয়ে গোলাকান্দাইলে সব সময় আতঙ্ক বিরাজ করে। এমনকি রাস্তায় চলাচল করতে মানুষ হিমশিম খাচ্ছে। মাদক প্রতিরোধে মাদকমুক্ত করার জন্য জেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন বাহিনীর পক্ষ থেকে অভিযান পরিচালিত হলেও মাদক ব্যবসা ও সেবন কাজ থেমে নেই। গোলাকান্দাইলে মাদক এখন অনেকটা ভাত-মাছের মতো সহজলভ্য হয়ে গেছে। সংঘবদ্ধ মাদক পাচারকারী চক্র নতুনভাবে কৌশল পরিবর্তন করে অবাধে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এভাবে মাদকদ্রব্য বিকিকিনি দিনকে দিন বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন গোলাকান্দাইলবাসী। অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নে মাদকের সয়লাব সবচেয়ে বেশি।

মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন, গোলাকান্দাইল ১ নং ওয়ার্ডের কালী এলাকার আব্দুল মান্নান গাঁজা ব্যবসায়ী, আমলাব এলাকার কাজী নাসির উদ্দিনের ছেলে আলম,পোনাব এলাকার মৃত আব্দুল কাদিরের মেয়ে শাহিনুর। গোলাকান্দাইল ২নং ওয়ার্ডে প্রকাশ্যে রাত-দিন মাদক বেচাকেনা চলছে দেদাছে। গোলাকান্দাইল ২নং ওয়ার্ডের মেম্বার মোঃ বাচ্চু ভূঁইয়া মাদক ব্যবসায়ীদের তথ্য প্রকাশে না রাজ। গোলাকান্দাইল ৩নং ওয়ার্ডের মাহনা এলাকার গাফুরের ছেলে আরমান বিয়ার, ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী, আলীর ছেলে মামুন বিয়ার ব্যবসায়ী, হেফাজুলের ছেলে মিঠু ইয়াবা ও বিয়ার ব্যবসায়ী, হালিমের ছেলে রিফাত ইয়াবা ও বিয়ার ব্যবসায়ী, জলিলের ছেলে আল আমিন ইয়াবা ব্যবসায়ী, দানিসের ছেলে হৃদয় বিয়ার ব্যবসায়ী।

গোলাকান্দাইল ৪নং ওয়ার্ডের বিজয় নগর এলাকার মেন্টাল ফারুক ইয়াবা ব্যবসায়ী, গনি গাঁজা ব্যবসায়ী, গোলাকান্দাইল উত্তর পাড়া এলাকার মৃত আজিজুলের ছেলে বাবুল ইয়াবা ব্যবসায়ী, গোলাকান্দাইল পূর্বপাড়া এলাকার তারু গাঁজা ব্যবসায়ী, রাবী পাগলীর ছেলে ফারুক ও ইমান, হারুনের ছেলে রাকিব ও মেয়ে মুন্নি তারা সবাই ইয়াবা, ফেন্সিডিল, বিয়ার ব্যবসায়ী।গোলাকান্দাইল ৫নং ওয়ার্ডের মধ্য পাড়া এলাকার মৃত দাউদ মিয়ার ছেলে রমজান গাঁজা ব্যবসায়ী, আক্কাস ফকিরের ছেলে খলিল ইয়াবা ব্যবসায়ী, মৃত ওহাব মিয়ার ছেলে হানিফ ইয়াবা ব্যবসায়ী, গোলাকান্দাইল। ৬ নং ওয়ার্ডের নতুন বাজার এলাকার রিপন ইয়াবা ব্যবসায়ী, মনির ও তার স্ত্রী গাঁজা ব্যবসায়ী, দেন্দা নজরুল গাঁজা ব্যবসায়ী, গোলাকান্দাইল ব্রিজের পাশে আলমাছের ছেলে জিলাপি জাকির ইয়াবা ও গাঁজা ব্যবসায়ী, মৃত জলিলের ছেলে মাহবুবও গাঁজা ব্যবসায়ী, নজরুলের ছেলে জিপু ইয়াবা ব্যবসায়ী, নতুন বাজার এলাকার আক্তার গাঁজা ব্যবসায়ী, গোলাকান্দাইল নাগের বাগ ্এলাকার নুর করিম ইয়াবা ব্যবসায়ী।

গোলাকান্দাইল ৭নং ওয়ার্ডের সাওঘাট এলাকার রনজু ইয়াবা,ফেন্সিডিল, বিয়ার ব্যবসায়ী, সুফিয়ান ইয়াবা ব্যবসায়ী, সিদ্দিকের ছেলে হাবিবুর রহমান ইয়াবা ব্যবসায়ী, মজিদের ছেলে আবু তাহের গাঁজা ব্যবসায়ী, সেতারা সব ধরনের মাদক ব্যবসা করেন, পাপুষা মদ, গাঁজা,বিয়ার ব্যবসায়ী, কানা আজিজ গাঁজা ব্যবসায়ী, জয়নাল গাঁজা ব্যবসায়ী। গালাকান্দাইল ৯নং ওয়ার্ডের প্রতিটি পাড়ায় পাড়ায় প্রকাশ্যে চলছে মাদক ব্যবসা। ইয়াবা,ফেন্সিডিল, বিয়ার, গাঁজা যেন তাদের জন্য মাছ-ভাতের মতো সহজলভ্য হয়ে উঠেছে। ফলে যুবক থেকে শুরু করে শিক্ষার্থীরাও ঝুঁকে পড়েছে মাদকের নেশায়। এদিকে এই মাদক ব্যবসায়ীদের তথ্য প্রকাশে গোলাকান্দাইল ৯নং ওয়ার্ডের মেম্বার নাঈম ভূঁইয়া না রাজ হওয়ায় সচেতন মহলে নানা রহস্যজনক প্রশ্ন উঠেছে। এছাড়া গোলাকান্দাইল ইউনিয়নে আরো অনেকে প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে মাদকের সাথে জড়িত। এই ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডেই রয়েছে গাঁজা সেবনের আড্ডার আখড়া। নারী-পুরুষ সকলে মিলেই মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া যুবক ও শিক্ষার্থীরা এই ভয়াবহ ব্যবসায় যুক্ত হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। অধিক মুনাফা লাভের আশায় ইয়াবা ও ফেনসিডিলসহ বিয়ার ব্যবসায় নিজেকে যুক্ত করছে তারা। গোলাকান্দাইল এখন মাদক স্পট বলে বেশি পরিচিত।খানে প্রকাশ্য দিবালোকে বিক্রি হচ্ছে মাদক, রাতের আঁধার তো আছেই। লাগামহীনভাবে মাদক ব্যবসার কারণে সমাজে বেড়ে গেছে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি ও ইভটিজিংসহ নানা ধরনের অপরাধ। এ প্রেক্ষাপটে সামাজিক ও ধর্মীয় রীতিনীতি কলুষিত হবার পাশাপাশি সার্বিক অবস্থা ধ্বংসের পথে।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম সায়েদ বলেন, মাদকের সঙ্গে পুলিশের কোন আপস নেই। আমরা দিনরাত চেষ্টা করছি। মাঝে মাঝে গ্রেফতার করতেও সক্ষম হচ্ছি। তবে জনগণ যদি সহযোগিতা করে তাহলে মাদক নিয়ন্ত্রণে পুলিশের পক্ষে কাজ করতে সুবিধা হয়। আমরা সব সময় মাদক নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে তৎপর আছি। রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহ নুসরাত জাহান বলেন, মাদক সমাজ ও মানুষের জীবনকে দূর্বিসহ করে তোলে। পুলিশের সহযোগিতায় বারবার অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। মাদকের সঙ্গে কোন আপস নেই। মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করা হয়েছে। মাদক ব্যবসা, বিস্তার ও বেচাকেনা বন্ধে উপজেলা প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ