কদমতলীতে যুবলীগ কর্মীকে সজু বাহিনীর হামলা

সম্প্রতি সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলীতে দুধর্ষ সন্ত্রাসী ও কিশোরগ্যাং লিডার হিসেবে বেশ আলোচিত হয়ে উঠেছে তানজিম কবির সজু। এলাকাবাসীর অভিযোগ তার নেতৃত্বে ওই এলাকায় গড়ে উঠেছে একাধিক বাহিনী। যাদের একটি অংশ সেই টাইগার ফারুকের অধিনে ছিলো সম্প্রতি এরা যোগ দিয়ে সজুর অপরাধ কর্মকান্ডের হাতকে করেছে আরো শক্তিশালী। এদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করেই সজু গড়ে তুলেছে এসব বাহিনী। এ বাহিনীর নেতৃত্ব সজু নিজেই দিয়ে থাকেন। আধিপত্য ধরে রাখতে যে কোনো অপরাধ কর্মকান্ড করতে পিছপা হয়না এ বাহিনী। সজু থানা পুলিশকে ম্যানেজ করেই একের পর এক অপরাধ কর্মকান্ড করে যাচ্ছে। কোনো অপরাধ কর্মকান্ড ঘটানোর পরপরই সজু বা তার লোকজন উল্টো ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করে। এরপর কেউ থানায় অভিযোগ দিলে সজুর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ পুলিশ তদন্ত না করেই থানায় বাদিপক্ষকে বসিয়ে সজুকে নিয়ে আপোষ মিমাংসা করে থাকে। যার ফলে সজু ও তার বাহিনী নির্বিঘ্নে যে কোনো অপরাধ কর্মকান্ড করছে।

এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার (১০ জুন) রাত সাড়ে ১১টায় কদমতলী গ্যাস রোড এলাকায় এক যুবলীগ কর্মী সাগর (২৯) এর উপর দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়েছে দুধর্ষ সন্ত্রাসী ও কিশোরগ্যাং লিডার তানজিম কবির সজু বাহিনী। এসময় সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে সাগরের মাথায় রক্তাক্ত জখম হয়। এ ঘটনায় সাগরসহ দুইজন আহত হয়েছেন। আহতরা হলো, কদমতলী উত্তরপাড়া এলাকার রুহুল আমিনের ছেলে সাগর ও কদমতলী গ্যাস রোড এলাকার ডা: কাজী রওশন আলীর ছেলে মাহবুবুর রহমান বাবু (৩১)। হামলার শিকার যুবলীগ কর্মী সাগরের বাবা রুহুল আমিন সাবেক ৭নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি এবং বর্তমান ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক এবং তার মা সেলিনা আক্তার নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও বঙ্গবন্ধু মহিলা পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা সভানেত্রী।

হামলার শিকার সাগর জানায়, অনেকদিন ধরে সজু তার লোকজন দিয়ে আমাকে নানা ভাবে হয়রানী করে আসছে। আমি বিরক্ত হয়ে এ বিষয়গুলো সজুর বড় ভাই মুন্নার কাছে জানিয়ে এর জন্য বিচার চাই। এতে সে আমার উপর আরো বেশী ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। শুক্রবার রাতে আমি আমার দুই বন্ধুর সাথে কদমতলী গ্যাস রোডে সবুজ-শ্যামল সামাজিক সংঘের অফিসে বসে কথা বলছিলাম। তখন সজুর নির্দেশে তার সহযোগী ফরহাদ, মহসিন, মিলন, বাবু ও মেহেদীসহ আরো অজ্ঞাত ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী দেশীয় ধারালো অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে আমাকে টার্গেট করে অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় তাদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আমার কপালে গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয় এবং আমার নাক দিয়ে প্রচন্ড রক্ত ক্ষরণ হয়। এছাড়া আমার সাথে থাকা আমার দুই বন্ধুকেও তারা মারধর করে। এসময় আমাদের ডাক চিৎকারে আশ-পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে আমাকে নারায়ণগঞ্জ ভিক্টরিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়। এ ঘটনায় রাতেই থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

হামলার শিকার সাগরের বাবা রুহুল আমিন জানায়, আমরা বংশগতভাবে আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। আমি এক সময় ৭ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ছিলাম বর্তমানে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক এবং আমার স্ত্রী নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও বঙ্গবন্ধু মহিলা পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা সভা নেত্রী। আর আমার ছেলে যুবলীগের রাজনীতি করে। বর্তমানে দেশে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলেও আমরা বিএনপির সন্ত্রাসীদের হাতে মার খাই। থানা পুলিশ আমাদের কথা শুনে না, শুনে বিএনপির লোকজনের কথা। সজুর বাবা একজন চিহ্নিত বিএনপির লোক। বিএনপি নেতার ছেলে হয়েও সজু এলাকায় যা খুশি তাই করে বেরাচ্ছে। এই দেশের সকল মাদক ব্যবসায়ী ও ছিনতাইকারীদের নিয়ে সজু একটি বাহিনী তৈরী করে এলাকাটিকে সন্ত্রাসের আখড়ায় পরিনত করেছে। কেউ ভয়ে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলে না। তাদের বাপ-ছেলের অত্যাচারে নারীরা ঘরে ঘুমাতে পারে না। আমরা প্রতিবাদ করি বলেই বার বার আমাদের উপর তারা অত্যাচার করে যাচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে তানজিম কবির সজুর মোবাইল ফোনে একাধিক বার কল করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হাফিজুর রহমান মানিক জানায়, এ ঘটনায় উভয় পক্ষই অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ