এই বছরের মধ্যেই সরকার পতন হবে: আব্দুস সালাম

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ বলেছেন, এই সৈরাচারী সরকার ক্ষমত্য় আসার পর বলেছিলেন দশ টাকা সেড় চাল খাওয়াবেন, ঘরে ঘরে চাকরী দিবেন, দেশকে উন্নয়নের শীর্ষে নিবেন ও দেশে আইনের শাষন জারি করবেন। আজকে দেশেরে অবস্থা কী? শেখ মুজিব ক্ষমতায় আসার পরে যেমন বাকশাল কায়েম করে ছিলেন, ঠিক সেভাবেই আজকে শেখ হাসিনা নির্বচন ব্যবস্থাকে ধ্বংশ করে দিয়ে বহুদলীয় গনতন্ত্র ব্যবস্থার কবর রচনা করেছেন। আগামী দিনে তারেক রহমানের নেতৃত্বে আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে এই বছরের মধ্যেই এই অবৈধ সরকারের পতন ঘটানো হবে।

শনিবার (১১ জুন) নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গ্যাস, বিদুৎ সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ ও মূল্য হ্রাসের দাবিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, আরেকটি অবৈধ নির্বাচন করার আশায় শেখ হাসিনা নির্বচন কমিশন করেছেন। আজকে ভোট দিতে দেওয়া হয় না, ভোট কেন্দ্রে যেতে দেওয়া হয় না। ভোটের আগের দিন রাতেই ভোট শেষ করা হয়। এই বাংলাদেশের মটিতে আর কোন অবৈধ নির্বাচন হবে না। এইটাই শেষ অবৈধ সরকার। আমি নির্বাচন কমিশনকে বলতে চাই, এই বাংলার মাটিতে কোন অবৈধ নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। এজন্য আপনাদেরকে শপথ নিতে হবে, জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। মেহনতি মানুষ, ছাত্র-শ্রমিক সমাজ সবাইকে ঐক্য বদ্ধ হতে হবে। আগামী দিনে তারেক রহমানের নেতৃত্বে আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে সরকার পতন করে গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হবে।

বেগম জিয়ার চিকিৎসা প্রসঙ্গে দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম বলেন, এই দেশে কোন চিকিৎসা নেই। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জার্মন, ব্রীটেনের মত উন্নত দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। আজকে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি দেখে উদ্দেশ্যপ্রনদিত ভাবে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। দেশনেতৃ বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হলে তার দ্বায় এই সরকারকেই নিতে হবে। একাট মিথ্যা মামলা করে তাকে কারা নির্যাতিত করে তাকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে সরকার। আপনার তাকে গৃহবন্দি করে রেখেছেন। আমি সরকারের কাছে অনুলোধ করে বলছি, আপনারা তাকে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিন, বিদেশ থেকে তাকে চিকিৎসা করে আনা হোক। খালেদা জিয়ার যদি কোন অঘটন ঘটে,তবে এই সৈরাচারী সরকারের তাৎক্ষণিক কবর রচনা করো হবে। আমাদের নেত্রীর সংকটকালীন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। তাকে মুক্তি দিয়ে তার সুচিকৎসার ব্যবস্থা করুন।

মহানবী (সা.) কে কুটুক্তির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের ধর্মমন্ত্রী মুসলমান, আমাদের প্রধানমন্ত্রী মুসলমান। অমি ধর্মমন্ত্রীকে বলতে চাই নবীকে কুটুক্তির বিষয়ে আপনাকে কথা বলতে হবে, অথবা আপনাকে পদত্যাগ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমরা আপনাকে ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করতে বলি নাই। কিন্তু আপনার প্রতিবাদ করতে ভয় কোথায়? অপনি যদি মুসলমান হয়ে থাকেন, তবে আপনাকে এর প্রতিবাদ করতে হবে। আর না হলে আপনাকে এই বাংলাদেশ থেকে বিদায় নিতে হবেই হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মনিরূল ইসলাম রবির সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মামুন মাহমুদের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপস্থিত বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আজহারুল ইসলাম মান্নান। এসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ, মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আল ইউসুফ খান টিপু, জেলা বিএনপির সদস্য মাসুকুল ইসলাম রাজীব, জেলা যুবদলের সদস্য সচিব মশিউর রহমান রনি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম সজীব প্রমুখ।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ