পুলিশের ওপর হামলা করে আসামী ছিনতাই

গ্রেপ্তারী পরোয়ানা ভুক্ত আসামী আটকের সময় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় রড ও লাঠিসোটার আঘাতে ২ পুলিশ সদস্য গুরুত্বর আহত হয়েছেন। হামলাকারীরা একটি ওয়াকিটকি ওয়ারলেস, ইস্যুকৃত ওয়ারেন্টের কাগজ ও দু’টি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সোনারগাঁ থানায় রোববার (১২ জুন) সকালে এই ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।অভিযুক্তরা হলেন- সোনারগাঁয়ের উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের ভারগাঁও গ্রামের আব্দুল আউয়ালের ছেলে মো. আমিন, তার স্বজন হাফিজউদ্দিন, বিনা বেগম, আছমা বেগম, আউয়াল, শরীফ আরমানসহ ১০-১২ জন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, আসামী আমিনুলের বিরুদ্ধে আদালতের গ্রেপ্তারী পরোয়ানা ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার দুপুরে আসামীর অবস্থান যানতে পেরে কাঁচপুরের সিনহা ওপেক্স গার্মেন্টসের সামনে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ ভ্যানে ওঠানোর সময় কৌশলে তিনি ভ্যান থেকে পালিয়ে যান। পরে পার্শ্ববর্তী রূপগঞ্জ উপজেলার যাত্রামূড়া এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ড কার্যালয়ের সামনে থেকে তাকে পুনরায় গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় আসামি আমিনের নেতৃত্বে তার স্বজন হাফিজউদ্দিন, বিনা বেগম, আছমা বেগম, আউয়াল, শরীফ আরমানসহ ১০-১২ জনের একটি দল লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে অতর্কিত হামলা করে। ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) মো. বিল্লাল হোসেন।

সোনারগাঁ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, ‘একটি মারামারির মামলায় আসামী আমিনের ওয়ারেন্ট হয়। আসামীকে গ্রেপ্তার করতে গেলে তাদের মারধর করে আসামীকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, আহত পুলিশ কর্মকর্তা মেরাজুল ইসলাম সোহাগের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আর ফারুক হোসেন সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ছিনিয়ে নেওয়ার আসামিসহ ওয়াকিটকি ওয়ারলেস, ইস্যুকৃত ওয়ারেন্টের কাগজ ও মোবাইল ফোন উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ