সিদ্ধিরগঞ্জে নেতার নাম ভাঙিয়ে জমি দখলের চেষ্ঠা

সিদ্ধিরগঞ্জে গোদনাইল চৌধুরীবাড়ি বৌ-বাজার এলাকায় পৈতৃক সূত্রে মৃত আব্দুল রফিকের ১০ ওয়ারিশ মালিকানাধীন ১৪ শতাংশ জমি ওয়াকিল আহমেদ নামে এক ব্যক্তি কর্তৃক বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। উক্ত জমি ক্রেতা নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী রাজনৈতিক এক ব্যক্তির নাম ভাঙিয়ে দখলে নেওয়ার পায়তারা করছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

এ ঘটনায় ওয়ারিশ সূত্রে প্রকৃত মালিকগণ নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানিয়ে হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।জানা যায়, মুল সিএস/আরএস রেকর্ডে লালচান ও কালাচান দুই ভাই। লালচানের ওয়ারিশ হচ্ছে মৃত আব্দুল রফিক। কালাচানের এসএ/আরএস ভুলবশত অন্যজনের নাম এসেছে। তাদের কাছ থেকে সাহাবুদ্দিন জায়গা কিনে। এখন আব্দুল রফিকের জায়গা দখলের জন্য বিভিন্ন নেতা ও মাস্তানের নাম ভাঙিয়ে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে সাহাবুদ্দিন মিয়া। এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সহযোগীতা ও সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

এসএ ৯৬১ নং দাগে পৈত্রিক সূত্রে মৃত্যুর পর আব্দুল রফিকের ৬ ছেলে ও ৪ কণ্যা পৈতৃক সূত্রে ঐ জমির মালিক। তারা হলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত মো. মজিবর রহমান, মো. সিরাজুল ইসলাম, মো. আমিজুল হক, মো. আবুল হোসেন, মো. মনির হোসেন, মো. দেলোয়ার হোসেন, মোসাঃ মমতাজ বেগম, মোসাঃ রহিমা বেগম, মোসাঃ সুফিয়া বেগম ও মোসাঃ রীণা আক্তার। উক্ত জমির কিছু অংশে ওয়ারিশ সূত্রে মালিকগণের সম্মতিতে শরীফ নামে এক ব্যক্তি কেয়ার টেকার হিসেবে ঘর তুলে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছেন গত ২০ বছর যাবৎ। বাকী অংশ খালি পড়ে আছে।

ভুক্তভোগীরা জানায়, ক্রেতা সাহাবুদ্দিন নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক কারো অনুসারী পিতজা শামীমের ভয় দেখিয়ে লোকজন নিয়ে আমাদের জায়গা দখলে নিতে আসে। পরে আমরা পরিবারের সকল সদস্য এসে বাধা দিলে তারা চলে যায়। আমরা এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করবো। আমরা এর সুষ্ঠু সমাধান চাই।

এ বিষয়ে নাসিক ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রুহুল আমিন বলেন, বিষয়টি আমি অবগত। দুইবার এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আমরা বসেছি। কাগজপত্র অনুযায়ী দেখা যায়, সিএস/আরএস/এসএ অনুযায়ী মৃত আব্দুল রফিক মৃত লালচানের ওয়ারিশ হিসেবে উক্ত জমির মালিক। সে মোতাবের আব্দুল রফিকের দশ ছেলে-মেয়েও ওয়ারিশ সূত্রে মালিক। অপরদিকে এসএ/আরএস ভুলবশত অন্যজনের নামে হওয়ায় সাহাবুদ্দিন তাদের কাছ থেকে ক্রয় করে মালিকানা দাবি করছে। পর্যালোচনা করে দেখা যায় ক্রেতা সাহাবুদ্দিনের জায়গা ধারাবাহিকভাবে সঠিক নেই। সে যদি ঐ জায়গায় যেতে চায়, তাহলে কালাচানের জায়গায় যেতে পারে কিন্তু কোন ক্রমেই রফিকের জায়গায় যেতে পারেনা।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ