ঢাকাসোমবার , ১৩ জুন ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

সোনারগাঁয়ে সড়কের নির্মাণ কাজে ধীরগতি, জনসাধারণের ভোগান্তি

আবু বকর সিদ্দিক
জুন ১৩, ২০২২ ৬:৪২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দি ইউনিয়নের সনমান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে অলিপুরা বাজার পর্যন্ত রাস্তার কাজ নিয়ে ঠিকাদার এর অবহেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দরপত্র অনুযায়ী সড়কটির পাকা করার কাজ শেষ করার কথা ছিল ১৪ মাস আগে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কাজ হয়েছে মাত্র পাঁচ ভাগের এক ভাগ। এর মধ্যে সড়কটির বিভিন্ন জায়গায় তৈরি হয়েছে বড় বড় গর্ত। ফলে যানবাহন চলাচলে সড়কটি একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের খোঁজখবর নিচ্ছে না ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানও। এতে ভোগান্তির শেষ নেই ১০ গ্রামের অন্তত ২৭ হাজার বাসিন্দার।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) অধীন বৃহত্তর ঢাকা গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প-৩-এর অধীন সড়কটি পাকা করার কাজ চলছে। এলজিইডির নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী দরপত্র আহ্বান করেন ২০১৯ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর। ২০২১ সালের ২৫ মার্চ কাজ শেষ করার সময় বেঁধে দেওয়া হয়। কাজটির প্রাক্কলন ব্যয় ধরা হয় ২ কোটি ৯৯ লাখ ৯২ হাজার টাকা। কাজটির কার্যাদেশ দেওয়া হয় এস সরকার এন্টারপ্রাইজ’ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে।

এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে আরও জানা যায়, কার্যাদেশ অনুযায়ী কাজটি শেষ করার বেঁধে দেওয়া সময়ের ১৪ মাসের বেশি অতিবাহিত হয়েছে। অথচ পুরো কাজের মাত্র ২০ শতাংশ শেষ হয়েছে। ইতোমধ্যে ঠিকাদার প্রথম চলতি বিল উঠিয়ে নিয়েছেন।সড়কের কাজ দ্রুত শেষ করার দাবিতে গত শনিবার স্থানীয় আমিন মার্কেট এলাকায় সড়কটিতে দাঁড়িয়ে গত শনিবার বিক্ষোভ করেছেন ১০ গ্রামের লোকজন। সনমান্দি অলিপুরা সড়কে সরেজমিন দেখা যায়, সড়কটিতে কোনো যানবাহন চলছে না। বড় বড় গর্তের কারণে চলার সুযোগও নেই। স্থানীয় ব্যক্তিরা বলেন, সড়কটি নির্মাণে ধীরগতি চলছে। কাজটি ফেলে ঠিকাদার চলে গেছেন।

পশ্চিম সনমান্দি গ্রামের আবদুর রউফ বলেন, ১৪ মাস আগেই এ সড়কের কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ ফেলে চলে গেছে। এ ছাড়া সড়কটি নির্মাণে ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্নমানের সামগ্রী।এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আরজুরুল হক বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে একাধিকবার লিখিতভাবে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এস সরকার এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি বুলবুল আহম্মেদ বলেন, কাজটি দ্রুততম সময়ের এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় মধ্যে আবারও শুরু করা হবে।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।