নৌ পুলিশের চাঁদাবাজী বন্ধে ৫ সংগঠনের মানববন্ধন

নৌ পথে পুলিশের হয়রানী ও চাঁদাবাজী বন্ধসহ নৌ শ্রমিকদের নুন্যতম মজুরী ২০ হাজার টাকা ও ১১ দফা দাবী আদায়ে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন নৌ-শ্রমিক ঐক্য পরিদষ। এসময় নৌ পথের পাঁচটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা সংহতি জানিয়ে এই মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেয় তারা।

শনিবার (১৮ জুন) বেলা ১২টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাব ভবনের সামনে নৌ-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাথে ৫টি সংগঠনের সমন্বয়ে ওই মানববন্ধন অনুষ্ঠিতি হয়। মানববন্ধন শেষে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে দুপুর ২টায় বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে প্রেসক্লাব চত্বর থেকে নগরীর ২নং রেল গেইট এলাকা প্রদিক্ষণ করেন নৌ পথের বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী ও নৌ শ্রমিকরা।বাংলাদেশ জাহাজী শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ কার্গো ট্রলার বাল্কহেড শ্রমিক ইউনিয়ন, বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিকলীগ, বাংলাদেশ নৌ-যান শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়নসহ ট্রলার (বাচ্চহেড) শ্রমিক ইউনিয়নের সমন্বয়ে মনববন্ধন করে নুন্যতম ২০ হাজার টাকা মজুরী ও নিরাপদ নৌ পথ বাস্তবায়ন সহ ১১ দফা দাবি তোলেন নেতাকর্মীরা।

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া বিভিন্ন সংগঠনের বক্তারা বলেন, নৌ-শ্রমিকদের নুন্যতম মজুরী ২০ হাজার টাকা ও ১১ দফা দাবী আদায়সহ নৌ-পথে চাঁদাবাজী, ডাকাতী, ছিনতাই ও নৌ-পুলিশ কর্তৃক নৌ শ্রমিকদের বিভিন্ন ট্রেড ইউনিয়ন ও সংগঠনের সদস্যপদ কার্ড ছিনিয়ে নেওয়া ও বিভিন্ন এলাকায় শ্রমিকদের হয়রানী মূলক মামলা বন্ধ ও মাষ্টার ড্রাইভার শীপ পরীক্ষায় অনিয়ম দুর্ভোগ বন্ধের দাবী তোলেন।

বিভিন্ন সংগঠনের নৌ শ্রমিক নেতারা বলেন, নৌ পুলিশ একসময় আমাদের গর্ব আর অহংকার ছিলেন। কিন্তু অত্যন্ত দুক্ষজনক হলেও সত্যি আজ তারা বিপথগামী হয়ে উঠেছে। শীতলক্ষ্যা, বুড়িগঙ্গা, সুরমা ও মেঘনা নদীসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন নদীতে চলমান অথবা নোঙ্গর করা নৌযানে তারা শ্রমিকদের মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে শ্রমিকদের কাছ থেকে টাকা পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছে।

তারা আরোও বলেন, কোথাও কোথাও শ্রমিকদের জিম্মি করে মোটা অঙ্কের টাকা আদায়ও নির্যাতন করছেন নৌ পুলিশের কিছু অশাধু সদস্যরা। এছাড়াও নদী পথের নির্জন স্থানে জলদস্যুদের মত চড়াও হয়ে নৌ শ্রমিকদের বিভিন্ন সংগঠনের সদস্যপদের কার্ড ছিনিয়ে নেওয়ারও অনেক অভিযোগ এসেছে। নৌ পুলিশ হওয়ার আগে সিলেট থেকে ঢাকায় আসতে দই থেকে তিন হাজার টাকা খরচ হতো। আর এখন এই পথে চাঁদা দিতে হয় বাল্কহেড প্রতি পঁচিশ থেকে ত্রিশ হাজার টাকা। এই অসহনীয় মাত্রায় চাঁদাবাজী আর মেনে নেওয়া যাচ্ছে না। আমরা এই চাঁদাবাজী, হয়রানী ও নির্যাতন থেকে মুক্তি চাই।

এছাড়াও নৌ পুলিশের কিছু বেপরোয় সদস্যদের দ্বারা মামলার ভয়ভীতি সৃষ্টি করা, শ্রমিকদের আটকে রেখে টাকা পয়সা আদায় এবং চলন্ত নৌযানে হানা দিয়ে শ্রমিকদের ইউনিয়ন সদস্য কার্ড ছিনিয়ে নেওয়া বন্ধ করতে হবে, নতুবা নৌ পথে শৃঙ্খলা ফেরাতে নৌযান শ্রমিকরা বড় ধরনের আন্দোলন বা ধর্মঘটের পথে ধাবিত হলে এর দ্বায় নৌ পুলিশকেই নিতে হবে বলে হুঁশিয়ারী দেন নেতাকর্মীরা। শ্রমিক নেতা মো. জাহাঙ্গীর আলম বেপারীর সভাপতিত্বে ও সবুজ শিকদারের পরিচালনায় এসময় উপস্থিত ছিলেন, শেখ মো. ওমর ফারুক, মাহমুদ হোসের, আনিসুর রহমান প্রমূখ।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ