বাড়ছে শীতলক্ষ্যার পানি

নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীর পানি বাড়তে শুরু করেছে। বর্তমানে নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত না হলেও ইতোমধ্যে শহরের পানি নিষ্কাশন ড্রেনের মুখে চলে এসেছে। ফলে এভাবে আরো পানি বাড়তে থাকলেও শহরের ড্রেনগুলো দিয়ে নিচু এলাকায় পানি প্রবেশের সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছেন নগরবাসী। সেই সঙ্গে নদী পারাপারে মানুষের ঝুঁকিও বাড়ছে।২০ জুন সোমবার বিকেলে শহরের সেন্ট্রাল খেয়াঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, ঘাটের এখনও দুটি সিড়ি ছাড়া বাকি সবই পানিতে তলিয়ে গেছে। এছাড়াও বন্দর রূপালী এলাকায় তীরের কাছাকাছি চলে এসেছে পানি। ৫নং খেয়াঘাট দীর্ঘদিন ধরে নিচে থাকলেও এখন সেটাও ওপরে নিয়ে এসেছে।’

এদিকে শীতলক্ষ্যা নদীর পানি বাড়ায় নিজের রূপ ফিরে পেয়েছে। নদীতে পানি বেড়ে যাওয়ায় তীব্র স্রোতও শুরু হয়েছে। নোংরা কালো ময়লা পানি দূর হয়ে গেছে। তবে এখনও পরিস্কার স্বচ্ছ হয়নি। বন্যার নতুন পানি সেটা স্পষ্টই বুঝা যাচ্ছে। এতে করে নদী পারাপারে যাত্রীদের ঝুঁকিও বেড়েছে।’

এছাড়াও এক অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীও বলেন, ‘শীতলক্ষ্যা নদীর পানিও বাড়তে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে ড্রেনের মুখগুলো সমান হয়ে গেছে।’উল্লেখ্য বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড এর বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের অনলাইন তথ্য অনুযায়ী, শীতলক্ষ্যা নদীর পানি বর্তমানে ৩ দশমিক ২৯ মিটারে প্রবাহিত হচ্ছে। শীতলক্ষ্যার বিপদসীমা ৫ দশমিক ৫০ মিটার। তাছাড়া ধলেশ্বরী নদীর পানি বর্তমানে ৩ দশমিক ০৩ মিটারে প্রবাহিত হচ্ছে। ধলেশ্বরীর বিপদসীমা ৫ দশমিক ১৮ মিটার। মেঘনা নদীর পানি বর্তমানে ২.৯৪ মিটারে প্রবাহিত হচ্ছে। মেঘনার বিপদসীমা ৫ দশমিক ০৩ মিটার। বুড়িগঙ্গা নদীর পানি বর্তমানে ৩ দশমিক ৩০ মিটার। বুড়িগঙ্গার বিপদসীমা ৬ দশমিক ০০ মিটার আর বালু নদীর পানি বর্তমানে ৩ দশমিক ৩০ মিটার। বালু নদীর বিপদসীমা ৬ দশমিক ০০ মিটার।’

সেন্ট্রাল খেয়াঘাটের মাঝি খলিলুর রহমান বলেন, ‘যেভাবে নদীর পানি বাড়ছে এমনভাবে আরো এক সপ্তাহ পানি বাড়লে শহরে পানি ঢুকে যাবে। তাছাড়া নদীর পানি না কমলে আর এর মধ্যে বৃষ্টি হলে শহর পানিতে তলিয়ে যাবে। কারণ এখনই নদীর পানির সঙ্গে ড্রেনের মুখগুলো সমান হয়ে গেছে। এতে করে শহরের পানিগুলো নদীতে নামতে পারবে না। তখনই শহরে জলাবদ্ধতা দেখা দিবে।’

তিনি বলেন, ‘আমি ১৯৯৮ ও ২০০৪ সালের বন্যা দেখেছি। এমনি ভাবেই পানি বাড়তে শুরু করেছিল। তখন শহর ডুবে গিয়েছিল বিভিন্ন এলাকা।’খেয়াঘাটের ইজারাদারের কর্মী মনির বলেন, ‘এক সপ্তাহের মধ্যে দুই বার জেটি ওপরে উঠাতে হয়েছে। কারণ এক সপ্তাহের মধ্যেই পানি বেশি বেড়েছে। এভাবে পানি বাড়তে থাকলে ঘাটই আগে ডুবে যাবে।’

খেয়াপার হয়ে বন্দর থেকে শহরে আসা মাসুদ বলেন, ‘পানি বেড়ে নদীর প্রস্থ বেড়ে গেছে। এখন নদী বড় মনে হয়। নৌকায় বা ট্রলারে নদী পারাপারে ভয় লাগে।’তিনি বলেন, ‘এখন ট্রলারগুলোতে লাইফ বয়া রাখলে ভালো হবে। এতে কোন দুর্ঘটনা ঘটলে মানুষ রক্ষা পাবে। কারণ এখন নদীতে যে স্রোত ও পানি তাতে দুর্ঘটনা ঘটলে বাঁচার সম্ভাবনা কম।’

যাত্রী মুরাদ হোসেন বলেন, ‘ট্রলারগুলোতে, নৌকাগুলোতে এখনও অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চলাচল করে। একটু বৃষ্টি হলেই নদীতে স্রোত বেড়ে যায়। ডেউ উঠে যায়। তারপর লঞ্চ, বাল্কহেডগুলো গেলে ডেউ দ্বিগুন হয়। আর তখনই ঝুঁকি লাগে। কারণ ডেউগুলো উঠতে থাকলে ট্রলার বা নৌকা কাত হয়ে ডুবে যাওয়ার উপক্রম হয়। যেকোন মুহূর্তে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ বিষয়ে এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ