চেম্বার করেন মাতুয়াইলে রোগীর সেবা দেন নিজ হাসপাতালে

রাজধানী ঢাকার মাতুয়াইল মা ও শিশু মার্তৃ স্বাস্থ্য ইনষ্টিটিউটের শিশু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা: মো: মুজিবুর রহমান সময়মত অফিস না করে রোগী ভাগাতেই ব্যস্ত সময় পাড় করেন। বেশীর ভাগ সময়েই যেসকল হাসপাতালে চেম্বার করেন সেই রোগীদের নিজের হাসপতালে এনে বেশী টাকায় চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। এমনই অভিযোগ উঠেছেন তার বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় সময় নিয়ে রোগী না দেখা, রোগীর প্রতি অবহেলা, ইচ্ছেমাফিক চিকিৎসা সেবা দেওয়ার এমন অহরহ ঘটনা রয়েছে ডাক্তার মুজিবুর রহমারকে নিয়ে। ইতিমধ্যে সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় বাংলাদেশ নবজাতক হাসপাতাল নামে একটি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানও হয়েছেন ওই ডাক্তার।

খোঁজ খবর নিয়ে জানাগেছে, ডাক্তার মুজিবুর রহমান চিকিৎসা সেবার আড়ালে অতিমুনাফা লোভে রোগী ভাগিয়ে নিজের কবজায় নিয়ে রোগীদের কাছ থেকে মোটা অংকের বাণিজ্য করে থাকেন। সুন্নতে খাৎনা, সিজারসহ নবজাতকের যে কোন ছোট থেকে ছোট সমস্যায় তার কাছে আসলেও রোগীদের গুনতে হয় ইচ্ছেমতো টাকা। টাকা ছাড়া যেন অসহায় রোগীর স্বজনরা। মাতুয়াইল মা ও শিশু মাতৃ স্বাস্থ্য ইনষ্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক সরকারি নিয়ম নীতিকে বৃদ্ধগুণি দেখিয়ে সাইনবোর্ডে গড়ে তুলেছেন বাংলাদেশ নবজাতক হাসপাতাল। যার চেয়ারম্যানের দায়িত্বে রয়েছেন ডা: মুজিবুর রহমান।

সরেজমিনে সাইনবোর্ড স্বর্বস্ব প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ নবজাতক হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানটির হাসপাতালের কোন কাঠামো না মেনে মনগড়াভাবে নির্মিত হচ্ছে। ওয়ার্ডবয়, নার্সসহ প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন বিভাগে লোক নিয়োগে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন ডা:মুজিবুর রহমানের নিয়োগ করা প্রতিনিধিরা। প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন ফ্লোরে কাজ চলছে। তবে তারপরও বিভিন্ন জায়গা থেকে রোগী বাগিয়ে এনে ব্যবসা চালাচ্ছেন ডা: মুজিবুর রহমান। একটি হাসপাতাল করতে যে সকল সরকারের নিয়ম নীতি মেয়ে কাগজপত্রের দরকার হয় সেগুলো তাদের আছে কিনা জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানটির ম্যানাজার দাবি করেন সবই জানেন ডা: মুজিবুর রহমান।

সানারপাড় এলাকা থেকে আব্দুল হান্নান নামে এক রোগীর স্বজনের সাথে কথা হলে তিনি অকপটে বলেন, ধোলাইপাড়ে অবস্থিত ডেল্টা হাসপাতালে ডা: মুজিবুর রহমানের কাছে নিয়মিত তার বাচ্চাকে দেখাতেন তিনি। সম্প্রতি সেখানে তাকে দেখাতে গেলে ডা: মুজিবুর রহমান তাকে তার সাইনবোর্ডের নতুন হাসপাতাল বাংলাদেশ নবজাতক হাসপাতালে এসে ভর্তি হতে বলেন। তিনি বলেন, ডাক্তারের কাছে আমরা অসহায়। তারা যা বলেন বাচ্চাকে সুস্থ্য করতে তার কথা মাফিকই চলছি। কুমিল্লার হোমনা থেকে এসেছেন সাফায়াত উল্লাহ, ছেলেকে মুসলমানী করাতেই তার গুনতে হয়েছে ছত্রিশ হাজার টাকা। আরো লাগবে ডাক্তার বলেছে।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, সুন্নতে খাৎনা করতে সামান্য কটা টাকা হলেই হয়ে যায়। ঢাকায় এনে আমাদের সবকাটা শেষ করেছেন ডা: মুজিবুর রহমান। জানাগেছে, ডা: মুজিবুর রহমান যেখানেই চেম্বার করেছেন বানিজ্য তার প্রধান হাতিয়ার। বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানীর সাথে আঁতাত করে কোটি কোটি টাকা কামিয়ে নিয়েছেন তিনি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডা: মুজিবুর রহমানের এক সহযোগী জানান, রোগীদের বাগে ফেলে ইনজেকশন পুষ করে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করেন এই কসাই নামের ডাক্তার মুজিবুর রহমান। স্বাধীনতা চিকিৎসা পরিষদ স্বাচিবসহ সরকারের বিভিন্ন দফতরে তার উঠাবসা আছে বলেই তিনি দিনের পর দিন একের পর এক সাধারণ রোগীদের সাথে এমন হীন কাজ করে যাচ্ছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডা: মুজিবুর রহমান বলেন, আমি কোন অন্যায় কাজ করি না। সেবামুলক পেশায় আছি, সেবাই করে যাচ্ছি। সরকারি নিয়মনীতে মেনেই বাংলাদেশ নবজাতক হাসপাতাল চলবে বলেও জানান তিনি। মাইতুয়াইল শিশু মাতৃ স্বাস্থ্য ইনষ্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ডা: এম এ মান্নান জানান, সরকারি চাকুরী করে আরেকটি প্রতিষ্ঠানের মালিক হওয়ার বিধান নেই। বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহনের কথা জানান।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা: এ এফ এম মুশিউর রহমান জানান, ডাক্তারী পেশায় এমন কাজ খুবই জঘন্যতম অধ্যায়। আর সরকারি নিয়মনীতি না মেনে কোন হাসপাতাল করা যাবে না। যদি এমন কেউ করেন তাহলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নারায়নগঞ্জ জেলা প্রশাসক মঞ্জুর হাফিজ জানান, ডাক্তারী পেশা একটি সন্মানজনক পেশা। সেই পেশাকে কলংকিত করে কেউ যদি রোগী ভাগানোর কাজটি করেন। রোগীদের চিকিৎসার নামে তাদের গলা কাটেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ