নৌ পুলিশকে ম্যানেজ করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলছে দূরপাল্লার ট্রলার যাত্রা

সরকারীভাবে স্পষ্ট নির্দেশনা থাকার পরেও তা অমান্য করে নৌ-পুলিশের সহযোগিতায় নারায়ণগঞ্জ লঞ্চঘাট থেকে অনেক রুটেই চলছে ট্রলার দিয়ে যাত্রী পারাপার। বর্ষা মৌসুমে নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে যে কোন সময়ে ট্রলার ডুবির ঘটনায় প্রাণহানি ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে। সর্বশেষ শীতলক্ষ্যা নদীতে ফতুল্লার ধর্মগঞ্জ এলাকায় মালবাহী জাহাজের ধাক্কায় মুন্সিগঞ্জ রুটে চলাচলরত একটি লঞ্চ ডুবির ঘটনায় ব্যাপক প্রানহানী হয়েছিলো।

সরেজমিনে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় লঞ্চঘাটে গিয়ে জানা যায়, নৌ ফাড়িঁর তদন্তের দায়িত্বে থাকা মো. গোলাম মোস্তফাকে ম্যানেজ করে খেয়াঘাটের পাশ থেকে নারায়ণগঞ্জ থেকে সম্ভুপুরা রুটে প্রতিদিন একটি যাত্রীবাহী ট্রলার চলাচল করছে। এ জন্য তাকে মাসে ২০ হাজার টাকা প্রদান করছে চলাচলকারী ট্রলারের মালিক।

সেখানে গিয়ে যাত্রীবাহী ও মাছবাহী ট্রলার চালকদের সাথে কথা বললে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক মাঝি জানান, মোস্তফা স্যারকে টাকা দিয়ে অনেকেই সরকারী নির্দেশনা উপেক্ষা করে ট্রলার চালাচ্ছে। আবার রাতে বা ভোরে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা মাছবাহী ট্রলারের মাঝিদের কাছ থেকে ২ থেকে ৪ হাজার টাকা আদায় করছে মোস্তফা স্যার। যদি কেউ টাকা দিতে অস্বীকৃতি প্রকাশ করে তাহলে তাদেরকে মামলার ভয় কিংবা ট্রলার আটক করে রাখার হুমকী দেন। চৈত্র মাসে ল্যাংটা মেলাতেও ট্রলার প্রতি ৩/৪ হাজার টাকার বিনিময়ে প্রায় ৫০টি ট্রলার যাত্রী নিয়ে বেলতলীতে যাতায়াত করেছিলো। বর্তমানে বিভিন্ন রুটে তাকে টাকা দিয়ে অনেকটাই ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীবাহী ট্রলারগুলো চলাচল করছে।

এ বিষয়ে মো.গোলাম মোস্তফার মুঠোফোনে যোগাযোগ করে জানতে চাইলে তিনি সবকিছু অস্বীকার করে বলেন,আমি টাকা নিয়ে এসব করি কেউ কিছু বলতে পারবেনা। কারন নদীতে এসকল ট্রলার বা ৬০ ফুটের নিচে কোন নৌযান চলাচল নিষিদ্ধ করেছে। সেখানে কিভাবে এ কাজ সম্ভব। জাটকা নিধনের সময় কিছু ট্রলার আটক করা হয়েছিলো। আমার সর্ম্পকে সে সকল মাঝিরাই এমন কথা বলেছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ