আকাশে শকুনেরা পাখা মেলে উরছে : শামীম ওসমান

আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেছেন, পদ্মাসেতুর পিলার হচ্ছে ৪১টি, আর বাংলাদেশের পিলার হচ্ছে ১টা সেটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে বাংলাদেশ পৃথিবীতে মাথা উচু করে দাঁড়িয়েছে। শেখ হাসিনা প্রমাণ করেছে বাংলাদেশ করো পায়ের উপর ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে নেই, বাংলাদেশ নিজের পায়ের উপর ভর দিয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা আজ যেই স্বপ্ন দেখছি, শেখ হাসিনার হাতে দেশের দায়িত্বভার থাকলে সেই স্বপ্ন দ্রƒত বাস্তবায়িত হবে। শনিবার (২ জুলাই) একটি বেসরকারী টেলিভিশনে দেওয়া স্বাক্ষাৎকারে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এসব কথা বলেন।

শামীম ওসমান বলেন, বঙ্গবন্ধু এই দেশের স্বাধীনতার জন্য তার জীবনকে উৎসর্গ করেছিলেন। অথচ তাকেই কিন্তু বাঁচতে দেওয়া হয়নি। খন্দকার মোস্তাকরা জাতির পিতাকে পেছনের দরজা দিয়ে হত্যা করেছে। আমরা যখন ছোট ছিলাম, তখন আমাদের ভবিষ্যতকে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে ধ্বংশ করেছে। বঙ্গবন্ধু হত্যা হওয়া মানে কিন্তু একটি ব্যক্তির হত্যা হওয়া না, একটি প্রযন্মের ভবিষ্যতকে হত্যা করা হয়েছে। তাই আমি মনে করি, যেহেতু নারায়ণগঞ্জ একটি শিল্প অঞ্চল, এই উন্নয়ন প্রকল্পগুলো অর্থনৈতিক উন্নয়নে কী পরিমাণ প্রভাব ফেলবে তা আমি বুঝতে পারছি। যদিও বলা হচ্ছে ১.২ জিডিপি বাড়বে, তবে আমার বিশ^াস এইট জিডিপি ২ ছাড়িয়ে যাবে।

তিনি বলেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধও করোনার কারনে পুরো বিশ্ব পিছিয়ে আছে, সাথে আমরা ও আছি। আমি একটি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান এবং আমার দাদার বাড়িতে আওয়ামী লীগের সৃষ্টি হয়েছে। আমি যেটা মনে করি, সমস্ত উন্নয়নের পাশাপাশি যেই জিনিসটি লক্ষ করা দরকার সেটি হল স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তিরা ৭১’এ ঐক্যবদ্ধ ছিল, ৭৫’এ ও ছিল এবং তারা এখনো ঐক্যবদ্ধ আছে। ভবিষ্যতে তারা মরণ ছোবল মারবে। যেহেতু ছোবল দিবে তাই আমাদের রিলাক্স হবার কোন কারণ নাই। সবচেয়ে বড় শক্তি হচ্ছে আওয়ামী লীগের জন্য নিবেদিত প্রাণ। আমার কাছে মনে হয়, কোথায় যেন তাদের মাঝে চাপা একটা কষ্ট আছে।

জাতীয় পর্যায়ের নেতাদের অনুরোধ করে বলেন, যারা শেখ হাসিনা, আওয়ামী লীগ আর নৌকা ছারা কিছুই বুঝে না তাদের মনে যেন কোন কষ্ট না থাকে। তাদেরকে সেই কষ্ট থেকে বের করে নিয়ে আসতে পারলে আমার বিশ্বাস, আকাশে যেই শকুনেরা পাখা মেলে উড়ছে তারা আর থাবা দিতে পারবে না। আমার মনে হয় শেখ হাসিনা যেই দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছেন, তার পিছনে আমরা যারা রয়েছি, আমরা হয়তো সেই গতিতে এগোতে পারছি না। আমি নিজেকে সবচেয়ে কম যোগ্যতা সম্পন্ন বলে মনে করি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু দেশটাকে স্বাধীন করতে পেরেছিলেন কারণ তার পিছনে সেই ধরণের গতিশীল একটা টিম ছিল।

আমার মনে হয়, রাজনিতীতে আমরা যারা আছি, সবাই আমার থেকে বেশি যোগ্যতা সম্পন্ন। আমিই সবার থেকে কম যোগ্যতা সম্পন্ন। উনাকে সাপোর্ট করার জন্য অন্তত পক্ষে সামনের দিনগুলোতে আমাদের উচিত হবে নিজেদের ব্যাক্তিগত চাওয়া পওয়া ভুলে গিয়ে, পদ পদবীর কথা ভুলে গিয়ে তাকে সাপোর্ট করা। আর যদি তা না করতে পারি তবে, সমস্ত অর্জনই শেষ হয়ে যাবে যেমনটা বঙ্গবন্ধু হত্যার পরে শেষ হয়ে গিয়েছিল।

সমস্ত অপশক্তিরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে ওৎ পেতে আছে, যেকোন সময় তারা ছোবল দিবে। আমার মনে হয় জাতীয় পর্যায়ে অনেক নেতারা আছেন যারা এই অপশক্তিকে রুখে দিতে পারেন। যেহেতু বাংলাদেশের পিলার একটা, সেহেতু ওই পিলারটাকে আঘাত করার চেষ্টা করা হবে। সুতরাং আমাদের সজাগ থাকতে হবে। যেন তাকে আঘাত করার আঘে সেই আঘাতটাকে আমরা মোকাবেলা করতে পারি। মন্ত্রী হবার জন্য নয় বরং একজন দেশ প্রেমিক হিসাবেই আমরা তা করবো বলে আমি বিশ্বাস করি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ