আড়াইহাজারে মা ছেলেকে জবাই করে হত্যা

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে নৃশংসভাবে জবাই করে খুন করা হয়েছে মা ও তার একমাত্র শিশু সন্তানকে। শনিবার দিবাগত রাতে আড়াইহাজার উপজেলার ব্রাক্ষন্দী ইউনিয়নের উজান গোবিন্দী পশ্চিমপাড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। রবিবার ভোরে স্বজনরা লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দিলে থানা পুলিশের টিম এসে লাশ উদ্ধার করে। নিহতরা হলেন ঐ এলাকার মৃত আউয়াল নবীর স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা কাকলী(৪০) ও তার ছেলে ২য় শ্রেনীর ছাত্র তালহা(৮)।এদিকে মা ও ছেলের খুনীরা ছিল পূর্ব পরিচিত। প্রাথমিকভাবে ডাকাতির ঘটনা মনে করা হলেও পারিপার্শ্বিক পরিবেশ দেখে নিশ্চিত হওয়া গেছে এটি নিছক ডাকাতির ঘটনা ছিলনা। মা ও ছেলেকে খুন করা হয়েছে বটি বা দা দিয়ে কুপিয়ে।

লাশের সুরতহাল করা পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মাকে বটি দিয়ে একটি ও ছেলেকে পর পর তিনটি আঘাত করা হয়েছে। এদিকে ধারনা করা হচ্ছে এই ঘটনার নেপথ্য কারণ থাকতে পারে সম্পত্তি কিংবা পাওনা টাকা। তবে কোন পরকীয়ার ঘটনা ছিল কিনা এমন সন্দেহ মানতে নারাজ পুরো এলাকাবাসী ও রাজিয়ার স্বজনরা।

তারা জানিয়েছেন, স্বামী মারা যাওয়ার পর রাজিয়া সুলতানা তার ভাসুর কিংবা যে কোন পুরুষের সাথেই আড়াল করে কথা বলতেন। এলাকায় একজন পর্দানশীল নারী হিসেবে তার সুনাম রয়েছে। অপরদিকে নিজ পরিবারের শত আহবান থাকা সত্ত্বেও স্বামীর ভিটা ছেড়ে যেতে চাননি নিহত রাজিয়া সুলতানা। স্বামী আউয়াল নবীকে হারিয়ে কয়েক বছর ধরে একমাত্র শিশু সন্তান ছেলে তালহা (৮) নিয়ে স্বামীর ভিটাতেই বসবাস করছিলেন তিনি।সে মনোহরদী মডেল স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র ছিল। সেই স্বামীর ভিটাতেই লাশ হলেন সন্তান সমেত। নিহত ফলে পরিবারটির আর কেউই এখন বেঁচে রইলো না।

নৃশংস এই ঘটনার পর আড়াইহাজার উপজেলার ব্রাক্ষন্দী ইউনিয়নের উজান গোবিন্দী পশ্চিমপাড়া এলাকার মৃত আউয়াল কাজীর বাড়ীতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, আধা-পাকা সুন্দও বাড়িটির বারান্দায় কোলাপসিবল গেইটটি খোলা অবস্থায় এবং তালা ছিল অক্ষত। বাইরে থেকে দেখা গেল ভেতরে তিনটি রুম, রান্নাঘর ও বাথরুম। গেইট দিয়ে প্রবেশ করতেই বাম পাশের রুমের মেঝেতে মা রাজিয়া সুলতানা কাকলির লাশ পড়ে আছে। আর পাশের রুমের বিছানায় ছেলে তালহার লাশ। দুই রুমের মেঝেতে ও বারান্দায় রক্তে ভেজা জুতার একাধিক ছাপ। ঘরের দরজাগুলোতেও কোন ভাঙ্গা বা আঘাতের চিহ্ন নেই। আলমারিতে তখনও ঝুলছিলো চাবি। হত্যাকাণ্ডের আলামত নষ্ট হতে পারে সেজন্য অবশ্য কাউকে প্রবেশ করতে দেয়নি পুলিশ।

স্বজনরা জানালেন, আলমারিতে সোনার চেইন ও দলিলপত্র পাওয়া গেছে। বাড়ী ঘুরে জানা গেল, নিহত রাজিয়ার ঘরের বাম দিকে টিনের ঘরে বৃদ্ধা জা একা বসবাস করেন আর ডান দিকে পাকা ঘরে ভাতিজার বউ জান্নাতুল একা থাকেন। জান্নাতুলের স্বামী সৌদিপ্রবাসী। তাছাড়া একটু দূরে বড় ভাসুর সহ অন্যান্য স্বজনদের ঘর।এলাকায় একজন ভদ্র স্বদালাপি ও পর্দানশীল নারী হিসেবে পরিচিত রাজিয়া সুলতানা ওরফে কাকলী ও তার ছেলে হত্যার খবর শুনে স্বজনরা ও প্রতিবেশীদের ভীড় যেন সামাল দেয়া যাচ্ছিল না।

রাজিয়ার বড় ভাসুর কাজী সাইফউল্লাহ বলেন, ‘ফজরের নামাজ পড়ার জন্য অজু করছিলাম। ওইসময় জান্নাতুল এসে বলে চাচির ঘরের চুরি হয়েছে। গেইট ও দরজা খোলা। তখন আমরা সবাই মিলে গিয়ে বাইরে থেকে রাজিয়া ও তালহাকে ডাক দেই। কোন সাড়া না পেয়ে ঘরে গিয়ে লাইটের সুইচ দিয়ে দেখতে পাই রাজিয়ার লাশ ঘরের মেঝেতে পড়ে আছে। আর মেঝেতে রক্ত। তখন তালহাকে ডাকতে গিয়ে দেখি তার লাশ বিছানায়। তখন আমরা রাজিয়ার বোনদের ও পুলিশকে খবর দেই।’

তিনি বলেন,‘ঘরের ভেতরে রান্না ঘর ও বাথরুম হওয়ায় বাইরে বের হতে হতো না। তাছাড়া সে পর্দা করতো। আমাদের সঙ্গেই আড়াল থেকে কথা বলতো। স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে ছেলেকে নিয়ে একাই বসবাস করছে। ওর মা বোন মাঝে মাঝে আসে। তাছাড়া বাইরের কাউকে কখনো দেখিনি। কারো সঙ্গে কোন বিরোধ ছিল না। কে এমন কাজ করেছে কিছুই বলতে পারছি না।’রাজিয়ার ছোট বোন ফারজানা সুলতানা বলেন,‘গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আমি বোনের বাড়ি থেকে একই উপজেলার পাঁচগাঁও নিজের বাড়িতে যাই। আজ ভোর সোয়া ৫টার দিকে বোনের ভাসুরের ছেলে আমাকে ফোন দিয়ে বলে রাজিয়া ও তালহাকে পাওয়া যাচ্ছে না, দ্রুত আসতে হবে। খবর পেয়ে আমি আসার আগেই পুলিশ চলে আসে।’ তিনি বলেন,‘আমার বোন ও ভাগিনা একই রুমে ঘুমায়। কিন্তু আজ সকালে এসে দেখি দুইজনের লাশ দুই রুমে। আমার বোনের সঙ্গে কারো কোন বিরোধ ছিল না। কে এমন করলো কিছুই বলতে পারছি না।’

পরকিয়ার সম্পর্ক ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘আমার বোন কারো সঙ্গে কখনো কথা বলতো না। সবসময় ঘরের ভেতর থাকতো। এমন কোন কিছু থাকলে আমাকে অন্তত বলতো।’ কিভাবে সংসার চলতো? জাবাবে তিনি বলেন,‘দুলাভাই দীর্ঘদিন মালেয়েশিয়া ছিলেন। ৩ বছর আগে ব্রেইনস্টোক করে অসুস্থ অবস্থায় দেশে ফিরে বিছানায় শুয়ে ছিল। চলাফেরা করতো না। প্রায় ২ বছর হয় তিনি মারা যায়। স্বামী ২০ থেকে ২৫ শতাংশ জমি ও বাড়ির ৬ থেকে ৭ শতাংশ জমি তার নামে। এর মধ্যে একটি জমি বিক্রির ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা প্রতিবেশি কামাল নামে এক ব্যক্তিকে ঋণ দেয়। এর বিনিময়ে কামাল প্রতি মাসে ৩ হাজার টাকা দিতো। সেই টাকা ও টেইলার্সের কিছু কাজ করে আয় দিয়ে চলতো।’

তিনি বলেন,‘তিন বছর হয়েছে টাকা ঋণ দিয়েছে। কিন্তু কামাল প্রতিমাসে ঠিক মতো টাকা দিতো না। এজন্য বোনকে বলেছিলাম টাকাটা কামালের কাছ থেকে তুলে সঞ্চয়পত্র কিনে রাখতে। এই ঘটনার পর কামালকে এখানে আসতে দেখিনি। এখনও কারো উপর অভিযোগ দিতে পারছি না।’ নিহত রাজিয়ার বড় বোন শাহীন সুলতানা বলেন,‘আলমারী খোলা থাকলেও এর থেকে স্বর্ণের চেইন ও দলিলপত্র পাওয়া গেছে। নগদ টাকা ছিল কিনা জানি না।’

অপরদিকে ঘটনার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি, পুলিশের ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের (সিআইডি) একটি ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১১) একটি দল।আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুল হক হাওলাদার বলেন,স্থানীয়রা জানায় একটি ঘরে মা ও ছেলের লাশ পরে আছে। আমরা এসে দেখি ঘরের দরজা খোলা। এক রুমে মায়ের গলাকাটা লাশ ও পাশের রুমে ছেলের গলাকাটা রক্তাক্ত লাশ পরে আছে। ’

তিনি বলেন,‘এই ঘরে মা ছেলে একাই বসবাস করতো। রাত ১০টা থেকে ভোর ৪টার মধ্যে যেকোন সময় দুর্বৃত্তরা বটি বা দা দিয়ে মা ও ছেলেকে কুপিয়ে হত্যা করে। মাকে একটি ও ছেলেকে পরপর তিনটি আঘাত করে। তাছাড়া মায়ের মাথায় আঘাতের চিহ্ন আছে কিন্তু ছেলের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। আলামত হিসেবে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত বটি দা জব্দ করা হয়েছে।’তিনি আরো বলেন,‘এ ঘটনায় এক বা একাধিক ব্যক্তি জড়িত থাকতে পারে। এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।’ পিবিআই নারায়ণগঞ্জের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাকিল হোসেন বলেন, আমরা ছায়াতদন্ত করছি। আলামত হিসেবে ইস্ত্রি, বটি দা, তালা, রক্ত ইত্যাদি সংগ্রহ করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ