ঢাকাশনিবার , ২৩ জুলাই ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

হৃদয়ে রক্তক্ষরণ শহীদুল্লাহ’র এতো কষ্ট কোনদিন পাইনিগো মা!

আবু বকর সিদ্দিক
জুলাই ২৩, ২০২২ ৫:৪৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিদারুণ কষ্ট, নিদারুন যন্ত্রনা আর চরম অনিশ্চয়তা গ্রাস করেছে তাকে। যিনি সবসময়ই ছিলেন হতাশা বিরোধী, নানা চড়াই উৎড়াইয়ে যিনি ছিলেন ইস্পাতসম । ৬দশকের রাজনীতির অভিজ্ঞতা আর আবেগ যেন এখন তার কাছে মূল্যহীন। জীবন সায়াহ্নে এসে যিনি সেই রাজনীতিকে ইতি টানার মত ইঙ্গিত দিচ্ছেন। তিনি হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম শহীদুল্লাহ। যিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সব সময়ে ত্যাগীদের মূল্যায়নের অনেক নসিহত করেন। যিনি গত দেড় যুগ ধরেই সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে সোচ্চার ছিলেন,আছেন সেই শহীদুল্লাহর দাবী এবার তিনি আইভীতেই ধাক্কা খেয়েছেন। আর এর প্রতিক্রিয়াও তিনি জানাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। এও ইঙ্গিত দিয়েছেন হকার ইস্যুতে মেয়র আইভীর পক্ষে থাকতে করতে গিয়ে তিনি যেমন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিপক্ষের লোকজনের ছোড়া গুলিতে বিদ্ধ হয়ে রক্ত ঝরিয়েছিলেন এখন তারাই শহীদুল্লাাহর ঘর ভাঙছেন।

জানা গেছে, সিটি করপোরেশনের গত তিনটি নির্বাচনেই আইভীর খুব কাছাকাছি ছিলেন শহীদুল্লাহ। এছাড়া নিয়মিত ফেসবুকেও আইভীর পক্ষে সরব ছিলেন। সমালোচনা করতেন এমপি শামীম ওসমানের। তবে শহীদুল্লাহর বেশীরভাগ স্ট্যাটাসে নিজের অবমূল্যায়ন, হাইব্রিডদের প্রাধান্য নিয়ে নিজের হৃদয়ের রক্তক্ষরণ তুলে ধরতেন। সেই শহীদুল্লাহ এবার মামলা ঠুকে দিয়েছেন মেয়রের বিরুদ্ধে। ২১ জুলাই ওই মামলার খবরের পর অনেকের কাছেই বিষয়টি বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। রীতিমত ঝড় উঠে ফেসবুকেও।

শহীদুল্লাহ নিজেই ফেসবুকে লিখেন, ‘আমি কিন্তু বলবো, আমি কারো কাছ হতেই কোনদিন ও আধা পাইয়ের মূল্য ও চাইনি। আমার প্রার্থনা ছিল যাতে করে তাদের সার্ভেয়ার ও আমার পক্ষের একজন সরকারী সার্ভেয়ার আনার অনুমতিটা শুধু যেন দেয়া হয়। একতরফা মাপ আমি কেমন করে গ্রহণ করতে পারি? আমার জায়গা, আমার সীমানা নির্ধারণ করার রাইট ও কি আমি পেতে পারিনা? সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা আর ঠিকাদারের ব্যবহার আমাকেসহ পরিবারের সবাইকে সীমাহীন কষ্ট দিয়েছে। বলুনতো মা একটি বসত বাড়ীর পাকা স্থাপনা কি করে এক দুইদিনে ভেঙে ফেলা যায়। এই ভাড়াটিয়ারা কোথায় যাবেন আর আমি-ই বা কেমন করে এই স্বল্প সময়ে এগুলো ভেঙে কোথায় সরাবো? তারা বলে তাদের ভেকু দিয়ে ভেঙে গুড়িয়ে দিবে। এখানেই আমি বেশি কষ্ট পেয়েছি, ভীষণ আঘাত খেয়েছি। অতঃপর, আমার অ্যাডভোকেট সন্তান মামলাতে গিয়েছে। আমার ভীষণ কষ্টগো মা। আমি শূন্য পরিমাণ মানবিকতার ছোঁয়া পেলামনা। আমার রাজনৈতিক জীবনে বহু চড়াও উৎরাও গেছে। কিন্ত এতো কষ্ট আমি কোনদিন পাইনিগো মা!! দোয়া প্রার্থনা করি সবার কাছে।’

তিনি ২০১৭সালের ১৬ জানুয়ারীতে হকার সংঘর্ষে আহতের একটি ছবি পোস্ট দিয়ে আরো লিখেন, ‘আজ এতো ব্যাথা পাচ্ছি কেন? হকার উচ্ছেদকে কেন্দ্র করে পায়ে গুলি খেলাম। এক সাংবাদিক বন্ধু প্রেস ক্লাবে আমাকে দেখালেন যে আমার পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে জুতা, পায়জামা সব রক্তে লাল হয়ে আরো রক্ত ঝরছে। আমি কেমন করে মেয়র মহোদয়ের পাশে এখনো দাঁড়িয়ে আছি। তখনই রক্ত দেখলাম। এর আগে আন্দাজ করারও ফুসরত হয়নি। দুই জনে ধরে আমাকে নিয়ে আসলেন ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে।এই ক্ষততো মুছে যাবার কথা! তবে কেন আজ এতো ব্যাথা পাচ্ছি? আল্লাহ আমার এবং আমার পরিবারের সকল সদস্যদেরকে আপনি আপনার কুদরতি হেফাজতে রাখুন। আমিন। সুম্মা আমিন।’

ওই স্ট্যাটাসে একজন কমেন্ট করেন, ‘এমন তো হওয়ার কথা না যতটুকু জানি আপনি মেয়রের খুব কাছের লোক, মেয়র গনভবনে গেলে ৫ জন মামুষ থাকলে তার মধ্যে আপনি একজন। সিটি করপোরেশনের মানুষ আপনার সাথে দুর্ব্যবহার করে আর মেয়র কিছু বলে না এটাতো মানতে কষ্ট হয়।’মামলার দুইদিন আগে ১৯ জুলাই স্ট্যাটাসে শহীদুল্লাহ লিখেন, ‘ছয় দশকের রাজনৈতিক জীবন, স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহণ, বোন শহীদ হবার জ্বালা, আন্দোলন, মৃত্যুকে ভয় না করে সংগ্রামের সন্মুখভাগে থাকার ফলে বাড়ীতে খুন হওয়া, বাড়িঘর ছেড়ে সন্তানদের নিয়ে যাযাবরের জীবন যাপন, হত্যা, অবৈধ অস্ত্র, বিষ্ফোরক, ডাকাতি মামলা খেয়ে নিজের পরিবারকে ধ্বংসের শেষ সীমায় ঠেলে দিয়ে অবশেষে বুঝলাম ; আজকের ব্যবসাভিত্তিক রাজনীতির সাথে আমি বড়ই বেমানান। শেষ সীমানার খাদের কিনারায় এসে চিন্তা করলাম;বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করে জীবনকে অযথায়ই অনিশ্চয়তার শেষ বিন্দুতে টেনে এনেছি। তাই রাজনীতি হতে বিদায় নেয়াটাই এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।’

এদিকে ঐ মামলা নিয়ে শহীদুল¬ার ছেলে অ্যাডভোকেট শাহ আলম কবীর জানান, ১৯৮১ তার বাবা মো. শহীদুল্লাহ ও মা দেলোয়ারা বেগম নগরীর পাইপকপাড়া এলাকায় ৬ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। ৮৩ সালে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা (বিলুপ্ত) ওই এলাকায় যৌথভাবে মাপঝোক করে তাদের জমি বুঝিয়ে দেন। ২০০৩ সালে পৌরসভা ওই জমির দক্ষিণপাশে থাকা পৌরসভার জমি বালু দিয়ে ভরাট করে। এরপর তারাও তাদের জমিতে বাড়ি নির্মাণ করেন। কিছুদিন ধরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের লোকজন এসে দাবি করছে যে, তারা সিটি কর্পোরেশনের জমি চারপাশ থেকে ১০-১৫ ফুট করে প্রায় ২ শতাংশ জমি দখল করেছেন।শাহ আলম কবীর বলেন, আমরা সিটি কর্পোরেশনকে বলেছি তারা যেন জমি মাপঝোক করে দেখেন। কিন্তু তারা সেটি না করে জোরপূর্বক আমাদের জমি দখলের উদ্যোগ নেয়। আমরা অসহায় হয়ে আদালতের শরণাপন্ন হয়েছি।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এম শহীদুল¬াহ এবং স্ত্রী দেলোয়ার বেগমের পক্ষে তাদের ছেলে অ্যাডভোকেট শাহ মো. আলমগীর কবির বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ ১ম যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ এস এম মাসুদ জামানের আদালতে এই মামলা দায়ের করা হয়। শুনানী শেষে আদালত বাদীপক্ষকে আগামী ধার্য তারিখ ৩০ আগস্ট পর্যন্ত নালিশা ভূমিতে জোরপূর্বক প্রবেশ কিংবা নালিশা ভূমিতে নির্মিত বসতবাড়ি ভাঙচুর করতে নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেছেন। সেই সাথে তাদের কেন নিষেধাজ্ঞা প্রদান করে জানতে চেয়ে আগামী ৭ কর্ম দিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেছেন।

মামলায় উল্লেখিত অন্য বিবাদীরা হলেন, নূর হোসেন, হেলাল উদ্দিন, মো. জুলহাস মিয়া, মো. রিপন মিয়া, মো. আলাউদ্দিন, নোয়াব আলী, সাহেরা খাতুন, মাজার বুড়ি, আছিয়া খাতুন, আফছার বিবি, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, সহকারী কমিশনার ভূমি ও সহকারী ভূমি উন্নয়ন কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।