ঢাকারবিবার , ৩১ জুলাই ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

মেহেদী হত্যাকান্ডের ঘটনায়এক যুবককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

আবু বকর সিদ্দিক
জুলাই ৩১, ২০২২ ৬:৩২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ফতুল্লায় সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে নিহত মেহেদী হাসান হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের বড় বোন মৌসুমী (২৯) বাদী হয়ে রোববার(৩১ জুলাই) দুপুরে আট জনের নাম উল্লেখ্য সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪-৫ জন কে আসামী করে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে।অপরদিকে রোববার দুপুরে মেহেদী হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে স্থানীয় এলাকাবাসী সোহাগ(২২) নামক এক যুবক কে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। আটকককৃত সোহাগ ফতুল্লা মডেল থানার দেওভোগ শেষ মাথার দুলাল খার পুত্র ও স্থানীয় হোসীয়ারী কারখানার শ্রমিক। এর আগে শনিবার রাতে ফতুল্লার পশ্চিম দেওভোগ মাদ্রাসার শেষ মাথা মিয়া পাড়াস্থ মৃত রজব আলী হাজীর মাঠের গলিতে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে মেহেদী হাসান (২১) কে। নিহত মেহেদী হাসান ফতুল্লা মডেল থানার পশ্চিম দেওভোগ মাদ্রাসার শেষ মাথা মিয়া পাড়ার মোঃ শফিকুল ইসলামের পুত্র। মেহেদী হাসান ২০২১ সালের ১৭ জুলাই পশ্চিম দেওভোগস্থ নিহত ইমন হত্যা মামলার এজাহারনামীয় ও চার্জসিট ভুক্ত আসামী।

মামলায় আসামী করা হয়েছে ২০২১ সালে ১৭ জুলাই নিহত ইমনের দুই ভাই ওমর (২৭), সবুজ (৩০), একই এলাকার মজিবুরের পুত্র রাসেল @ ভাগিনা রাসেল (২১), মাইকেল (২১), সীমান্ত (২২), শান্ত @ কসাই শান্ত (২১), জুব্বা (২৩), সঞ্চয় (২১) সহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন। আসামীদের মধ্য সবুজ ইমন হত্যা মামলার বাদী।মামলায় উল্লেখ্য করা হয়, নিহত মেহেদী হাসান পশ্চিম দেওভোগ মাদ্রাসার শেষ মাথা মিয়া পাড়ার একটি হোসিয়ারী কারখানায় কাজ করিয়া আসিতেছিলো।

শনিবার রাত দশটার দিকে কাজ শেষ করে বাসায় ফেরার পথে রাকিবের চায়ের দোকানের সামনে পৌছা মাত্র পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হত্যাকারীরা নিহত মেহেদী হাসান কে মৃত রজব আলীর মাঠের গলিতে নিয়ে যায়।সেখানে নিয়ে গিয়ে মেহেদী হাসানকে এলোপাথারী মারপিট করিয়া ও ধারালো ছোরা, চাকু দ্বারা উপর্যপুরি আঘাত করে বুকের ডান পাশে ছোট বড় ১৪ টি গভীর ক্ষত গুরুতর রক্তাক্ত কাটা জখম করে। হত্যা কারীরা মেহেদী কে মৃত ভেবে ঘটনাস্থলে ফেলে রেখে চলে যায়। পরবর্তীতে মেহেদীর ডাক চিৎকারে বাদী সহ পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে গিয়ে উদ্ধার করে শহরের জেনারেল (ভিক্টোরিয়া) নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষনা করে।

স্থানীয় নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়,মেহেদী হাসান হত্যাকান্ডে আটজন কিলার হত্যার মিশনে অংশ নেয়। প্রাথমিক তদন্তে তারা জানতে পেরেছে ২০২১ সালের ১৭ জুলাই ডেবিড গ্রুপ ও ওমর ফারুক গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত হয় ওমর ফারুকের ভাই ইমন।সে সময় আহত হয় ওমর ফারুক নিজে ও। সেই হত্যা মামলার এজাহার নামীয় আসামী ছিলো নিহত মেহেদী হাসান। সেই মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনেও নিহত মেহেদী হাসানের নাম রয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে ইমন হত্যার প্রতিশোধ নিতেই মেহেদীকে হত্যা করা হয়েছে।

ফতুল্লা মডেল থানার ইনচার্জ শেখ রিজাউল হক দিপু জানায়,হত্যা কান্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে সোহাগ নামক একজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয়বাসী। মেহেদী হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের বোন বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেছে। ঘাতকদের গ্রেফতারে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।