ঢাকাশনিবার , ১৩ আগস্ট ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

মহাসড়কে ডাকাত চক্রের ছয় সদস্য গ্রেপ্তার

আবু বকর সিদ্দিক
আগস্ট ১৩, ২০২২ ৫:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মহাসড়কে পণ্যবাহী গাড়ি ডাকাত চক্রের ০৬ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটার্রিয়ন-১১। নারায়ণগঞ্জের রূপড়ঞ্জ ও বন্দরের পৃথক এলাকায় অভিযান চালিয়ে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার ও ডাকাতির শিকার হওয়া দুইজন ভিকটিমসহ লুটকৃত পণ্যবাহী পিকআপ গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে।শনিবার (১৩ আগষ্ট) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানায় র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের সহকারি পরিচালক আ ন ম ইমরান খান।

র‌্যাবের দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তি সূত্রে জানা যায়, সাম্প্রতি সময়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ, রুপগঞ্জ ও আড়াইহাজার এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম, ভূলতা, ঢাকা-সিলেট ও আড়াইহাজার-নরসিংদী মহাসড়কে বেশ কয়েকটি চাঞ্চল্যকর ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ফলে সড়কে চলাচল করা যাত্রী ও চালকদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে সড়কের শৃঙ্খলা ফেড়াতে র‌্যাব মহাসড়কে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

পরে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ও বন্দর এলাকার মহাসড়ক হতে ডাকাতির সময় সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রের সরদার সোনারগাঁয়ের আম্বর আরীর ছেলে মূসা আলী (৪০), তার সহযোগী রূপগঞ্জের মো. ফারুক মিয়ার ছেলে নাঈম মিয়া (২৪),নরসিংদীর শিবপুরের চাঁন মিয়ার ছেলে শামিম (৩৫), একই জেলার মৃত সৈকত মিয়ার ছেলে রনি (২৬), রূপগঞ্জের মৃত সবুজ আলীর ছেলে আবু সুফিয়ান (২০), বিল্লালের ছেলে মামুনকে (২৪) গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এসময় ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত ২টি চাপাতি, ১টি চাইনিজ কুড়াল, ১টি ছোরা ও ১টি বাস গাড়ি জব্দ করা হয়। এছাড়াও ডাকাতির শিকার ২জন ভিকটিমকে পণ্যবাহী পিকআপসহ উদ্ধর করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামিরা জিজ্ঞাসাবাদে ডাকাতির সাথে তাদের সংশ্লিষ্টতার দায় শিকার করে।

আরো জানা যায়, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানার ভূলতা গোলাকান্দাইল এশিয়ান হাইওয়েতে র‌্যাব-১১ এর টহল চলাকালীন সময়ে একটি ডিম বোঝাই পিকআপ গাড়ির গতিবিধি সন্দেহজনক হওয়ায় র‌্যাবের সদস্যরা পিকআপটির গতিরোধ করে। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পিকআপে থাকা জন ব্যক্তি পালানোর চেষ্টা করলে তাদেরকে আটক করে তল্লাশী করলে ১টি চাপাতি ও ১টি চাইনিজ কুড়াল উদ্ধার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকার করে।

তারা আরো জানায়, ডাকাতির উদ্দেশ্যে যুব কল্যান এক্সপ্রেস লিঃ নামের একটি বাসের মাধ্যেমে ভূলতা থেকে রূপসী যাওয়ার পথে এশিয়ান হাইওয়েতে ডিম বোঝাই পিকআপটির সামনে বাস থামিয়ে পিকআপের গতিরোধ করে। এরপর পিকআপের ড্রাইভার ও সহকারীকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে পিকআপটি তাদের নিয়ন্ত্রণে নেয় এবং ড্রাইভার ও তার সহকারীকে হাত-পা ও চোখ-মুখ বেঁধে ডাকাতদের ব্যবহৃত বাসে উঠিয়ে নেয়। পরে ডাকাত দলের সরদার মূসা ও তার প্রধান সহকারী নাঈম পিকআপটি নিয়ে গাউছিয়া-মদনপুরমুখী রাস্তায় নিয়ে যায় এবং ডাকাত দলের বাকি সদস্যরা পিকআপ এর চালক ও হেলপারকে তাদের সাথে থাকা বাসে করে মদনপুরের দিকে নিয়ে যায়। পরে ভ’লতায় গ্রেপ্তার হওয়া ২ ডাকাতের দেওয় তথ্যমতে বন্দর থানার মদনপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হতে যুব কল্যান এক্সপ্রেস লিঃ এর বাসটি আটক করা হয়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে র‌্যাব সদস্যরা আরো ৪ জন ডাকাতকে আটক করে এবং অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জন ডাকাত বাস থেকে লাফিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় ওই বাসের ভিতরে হতে হাত-পা ও চোখ-মুখ বাধা অবস্থায় পিকআপ এর ড্রাইভার ও তার সহকারীকে উদ্ধার করে র‌্যাবের সদস্যরা।

গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ১০-১২ জনের সংঘবদ্ধ এই ডাকাত চক্রটি বেশ কয়েক বছর ধরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ, রূপগঞ্জ ও আড়াইহাজার এলাকায় বিভিন্ন মহাসড়কে নিয়মিত ভাবে ডাকাতি করে আসছে। তারা পেশায় কেউ গার্মেন্টসকর্মী, ড্রাইভার, হেলপার আবার কেউ রাজমিস্ত্রী ও কাপড়ের দোকানের কাটিং মাস্টার। দিনে নিজ নিজ পেশায় নিয়োজিত থাকলেও বিভিন্ন সময় তারা সংঘবদ্ধভাবে দুর্ধর্ষ ডাকাতিতে অংশগ্রহণ করে।

জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায় যে, এই চক্রটি মূলত ৩টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে ডাকাতি সংঘঠিত করে এবং ডাকাতির কাজে একটি বাস ব্যবহার করে। গ্রেফতারকৃত মূসার নির্দেশে প্রথম গ্রুপটি ডাকাতির জন্য বিভিন্ন গার্মেন্টস এর পণ্যবাহী ট্রাক ও মহাসড়কে চলাচলকারী পণ্যবাহী যানবাহন সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে এবং ডাকাতির জন্য সম্ভ্যাব্য স্থান নির্ধারণ করে। দ্বিতীয় দলটি বাস নিয়ে মহাসড়কে সুবিধাজনক স্থানে অবস্থান নিয়ে ডাকাতিতে অংশগ্রহণ করে। তারা মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে ডাকাতির জন্য টার্গেটকৃত পণ্যবাহী যানবাহনটির পিছু নেয়। পরবর্তীতে সুবিধাজনক স্থানে টার্গেট করা পণ্যবাহী গাড়ীটিকে বাস দ্বারা গতিরোধ করে এবং দ্রুত পণ্যবাহী গাড়ীর চালক ও হেলপারকে এলোপাথারি মারপিট করে হাত-পা ও চোখ-মুখ বেঁধে বাসে তুলে নেয়। পরবর্তীতে পণ্যবাহী গাড়ীর চালক ও হেলপারকে জিম্মি করে বাসে নিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যায় ও তাদের মারপিট করে মুক্তিপণ দাবী করে এবং ডাকাতি শেষে পরবর্তীতে তাদের হাত-পা ও চোখ-মুখ বাধাঁ অবস্থায় মহাসড়কের নির্জন স্থানে ফেলে দেয়।

তৃতীয় দলটির নেতৃত্বে থাকা ডাকাত দলের প্রধান মূসা ডাকাতিকৃত পণ্যবাহী গাড়ীটি চালিয়ে ডাকাতিকৃত পণ্য বিক্রি করার জন্য পূর্ব নির্ধারিত স্থানে নিয়ে যায় এবং মালামাল আনলোড করে। এছাড়াও, ডাকাত দলটি পণ্যবাহী গাড়িটি সুবিধাজনক স্থানে বিক্রি করে দেয়ার চেষ্টা করে অথবা ব্যর্থ হলে পরিত্যাক্ত অবস্থায় কোন নির্জন স্থানে ফেলে যায়। বিগত ০১ বছর ধরে যুব কল্যাণ এক্সপ্রেস লিঃ এর বাসটি দিয়ে তারা বেশ কয়েকটি ডাকাতিতে অংশগ্রহণ করে। পূর্বে তারা অন্যান্য বাস অথবা পিকআপ দিয়ে ডাকাতিতে অংশগ্রহণ করত বলে জানা যায়। গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

আরও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।