নারী নির্যাতন প্রতিরোধে শহরে মানববন্ধন

ইয়াসমিন হত্যার ২৭ বছর ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন করেছে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম, নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখা। বুধবার (২৪ আগষ্ট) বিকাল ৪ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মিমি পূজা দাসের সভাপতিত্ত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আক্তার, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুন্নাহার, অর্থ সম্পাদক বীথি মাহমুদ, সদস্য মোর্শেদা আক্তার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মুন্নি সর্দারসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, স্বধীনতার ৫১ বছর পরেও নারীরা আজ ঘরে- বাইরে, পাহাড়ে- সমতলে, পথে – গণ পরিবহনে, কর্মক্ষেত্র- শিক্ষাক্ষেত্র সব জায়গায় নির্যাতিত। নারীর প্রতি সহিংসতা দিন দিন আরো বেড়েই চলেছে। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিসংখ্যান অনুসারে ২০২১ সালে সারাদেশে ধর্ষণ ও সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন মোট ১ হাজার ৩২১ জন নারী। প্রতিনিয়ত নারীর প্রতি বিভৎসতা ও বর্বরতা বেড়েই চলেছে। ধর্ষনের ক্ষেত্রে নারীর বয়স কোন বিষয় নয়। ৬ বছরের শিশু থেকে ৬০ বছরের বৃদ্ধা কেউই রেহাই পাচ্ছে না এই বিভৎসতা থেকে। কঠোর আইনের বিধান থাকা সত্ত্বেও ধর্ষকের কোন উল্লেখযোগ্য শাস্তি হয়নি।গণপরিবহনে নারী নির্যাতন ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে।

টাঙ্গাইলে চলন্ত বাসে রূপাকে ধর্ষণ ও হত্যা, সম্প্রতি ঈগল পরিবহনে রোমহর্ষক ডাকাতি ও গণধর্ষণ হয়েছে। অপরাধীরা বারবার পালাতে পারছে এবং আইনের আওতায় না আসায় একই ধরণের ঘটনা বারবার ঘটেই চলেছে। রক্ষক নিয়েছে ভক্ষকের জায়গা। ক্যান্টনমেন্টের তনুকে ধর্ষন করে হত্যা, দিনাজপুরের ইয়াসমিন পুলিশ কর্তৃক ধর্ষিত হয় ও পওে তাকে হত্যা করা হয়। যেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দেশের জনগণের সুরক্ষা নিশ্চিত করবে সেখানে নারীসহ সাধারণ জনগণ এই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ত্রাসের শিকার। ইয়াসমিন হত্যার বিচার পাওয়ার জন্য প্রতিবাদ মিছিলে গুলি চালায় পুলিশ। নির্বিচাওে হত্যা কওে সাধারণ জনগণকে। কোন ধর্ষন, খুনের বিচার না হওয়ায় দিন দিন এই নির্যাতন বেড়েই যাচ্ছে।

নারী-শিশু নির্যাতন-ধর্ষণ-হত্যা এসব অপরাধের বিচার না হওয়ার ক্ষেত্রে একটি বড় কারণ সরকার প্রশাসনের সাথে ঘনিষ্ঠতা ও ক্ষমতাকেন্দ্রিক রাজনীতি। নারী শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রয়োজন ঐক্যবদ্ধ সামাজিক প্রতিরোধ। সামাজিক প্রতিরোধ আন্দোলনই সুষ্ঠু ও ন্যায় বিচার ত্বরান্বিত করতে সরকারকে বাধ্য করতে পাওে এবং একই সাথে অপরাধীও কেঠুঠাসা হয়ে পড়বে। সে আইন বা সমাজে কোথাও আশ্রয় পাবে না। ইয়াসমিন ধর্ষন হত্যার বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলন আমাদের সেই শিক্ষা দেয়। এ সময় নেতৃবৃন্দ নারী শিশু ধর্ষণ নির্যাতনের বিরুদ্ধে নারী পুরুষ নির্বিশেষে সকলে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ