জামাত-শিবিরের পৃষ্ঠপোষক, ভুমিদস্যু, দল পাল্টানো

সেই জয়নালের নেপথ্যে কারা?

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদে প্রবাদের মত “গণেশ উল্টে” যাওয়ায় এবার নতুন মিশনে নেমেছে শামীম ওসমান বিরোধীরা। এই মিশনের ‘মহড়া’ বানানো হয়েছে শহরের বহুল সমালোচিত ও বহু বিতর্কের জন্ম দেয়া ভূমিদস্যু জয়নাল আবেদীন ওরফে আল জয়নালকে। একদা যিনি ছিলেন যুদ্ধাপরাধী জামাত-শিবিরের পৃষ্ঠপোষক, সেখান থেকে তাতী লীগ ও বর্তমানে যিনি নিজেকে জাতীয় পার্টির নেতা হিসেবে পরিচয় দেন। জেলায় ২জন জাতীয় পার্টির এমপি থাকতেও তাদের সাথে কোন যোগাযোগ নেই জয়নালের। বিশেষ করে দলের শীর্ষ কেন্দ্রীয় নেতা লিয়াকত হোসেন খোকা পর্যন্ত জানেন না জয়নাল জেলা পরিষদে চেয়ারম্যান নির্বাচন করতে চায়।

শোনা যাচ্ছে জয়নালকে দাবার গুটি বানানোর এই নেপথ্য কারিগর আওয়ামীলীগের একজন নারী জনপ্রতিনিধি ও বিএনপিদলীয় সাবেক একজন এমপি । তারা দুজনই জয়নালের পরম আত্মীয়। কেননা জয়নাল আবেদীনের বেয়াই হচ্ছেন সেই নারী জনপ্রতিনিধির ভগ্নিপতি আর সেই ভগ্নিপতির উকিল শ্বশুড় হচ্ছেন বিএনপির সাবেক ঐ এমপি। দলীয় সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করে জেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতার সুযোগ না থাকায় শেষ পর্যন্ত ভুমিদস্যু জয়নালই এখন এই মিশনের প্রধান গুটি।এদিকে জয়নালের চেয়ারম্যান হবার খায়েশের খবর শুনে শহরজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে চরম সমালোচনা।

নগরবাসী বলছেন, যিনি ছিলেন জামাত-শিবিরের পৃষ্ঠপোষক, যিনি এই শহরের চিহ্নিত ভুমিদস্যু, যিনি জমি দখল করতে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখানোর মত অপকর্ম করেন, যার পক্ষে বিপক্ষে ৭০টির বেশী জমি সংক্রান্ত মামলা রয়েছে, যার বিরুেদ্ধ থানায় ঢুকে গুলি করার অভিযোগ রয়েছে, যিনি কয়েক মাস পর পর গ্রেফতার হয়ে জেল খাটেন, যিনি জামাতের পৃষ্ঠপোষক হয়ে তাতীলীগ ঘুরে এখন জাতীয় পার্টি, যার পরিচিতি শহরের বাইরে নেই, এমন একজন বিতর্কিত লোককে জাতীয় পার্টিই বা কি করে মনোনীত করে! এদিকে জয়নালের জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন সংক্রান্ত কোন চিঠির ব্যপারে কিছুই জানেন না জেলা বা মহানগর জাতীয় পার্টির শীর্ষ নেতারাও।

বিভিন্ন সূত্রের সাথে কথা বলে ও খোজ খবর নিয়ে জানা গেছে, জেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন , এমনটা নিশ্চিত ছিলেন সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন। বিশেষ করে সিটি মেয়র আইভী সরাসরি আনোয়ারের পক্ষে মনোনয়ন প্রাপ্তির ব্যপারে ঘোষনা দেয়ায় বিষয়টি অনেকটাই নিশ্চিত মনে করেছিলেন আইভী ও আনোয়ারপন্থীরা। কিন্তু দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা সর্বজন প্রিয় ও দলের পরীক্ষিত ত্যাগী নেতা চন্দন শীলকে মনোনয়ন দেয়ায় বেশ বড় ধাক্কা লাগে আইভী শিবিরে। আইভীপন্থীরা এটিকে তাদের একটি রাজনৈতিক পরাজয় বলেও মনে করছেন। কারণ, আনোয়ার হোসেনের পক্ষে শুধু মেয়র আইভীই নন, তার পক্ষে পরোক্ষ প্রত্যক্ষভাবে ছিলেন আড়াইহাজারের এমপি নজরুল ইসলাম বাবু, রুপগঞ্জের মন্ত্রী গাজী গোলাম দস্তগীরও।

কিন্ত চন্দন শীলের মনোনয়ন প্রাপ্তিতে শামীম ওসমান শিবিরকে পরাস্থ করতেই জয়নাল কে নিয়ে মাঠে নেমেছে তার আত্মীয়রা এমনটাই মনে করছেন দলের কর্মী সমর্থকরা। তারা বলছেন, জয়নাল আবেদীন নিজেও জানেন তিনি কতটা সমালোচিত ও বিতর্কিত। তার পিঠে জাতীয় পার্টির একটি লেবাস থাকলেও সেদিক থেকেও তিনি বলা চলে ঢাল তলোয়ারহীন নিধিরাম।

জয়নালের পরিচিতি শহর ভিত্তিক হলেও ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ কিংবা অন্য উপজেলাগুলোতে কেউ তাকে চিনেনই না। সেখানে জয়নাল নিছক পরিচিতি পেতে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান পদে লড়াইয়ে নামবেন এতটা বোকা জয়নাল নন। যেখানে জাতীয় পার্টির ২ এমপিসহ জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টিও তার সাথে নেই, সেখানে তার পেছনে ক্ষমতাশীনদের ছায়া না থাকলে এই ভুল তিনি ভুলেও করতেন না। তাই এটা স্পষ্ট যে, জয়নালকে দিয়ে তার আত্মীয়রাই এখন আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী চন্দন শীলের বিরুদ্ধে নতুন খেলায় নেমেছেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ