আড়াইহাজারের

হেলো সরকারের দম্ভোক্তি ‘আমি পারাইয়া মানুষ মাইরা হালাই’

- Advertisement -

‘হেলো সরকাররে চিনোস, সালা মালোয়ানের বাচ্চা। আমি পারাইয়া মানুষ মাইরা হালাই’- এভাবেই গাজীপুর মহানগর শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অমিত সাহাকে ফোনে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ ও হুমকি দিয়েছেন আড়াইহাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুজাহেদুর রহমান ওরফে হেলো সরকার। অমিত সাহাকে গালাগাল করার ৩ মিনিট ১৬ সেকেন্ডের একটি অডিও এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল । এনিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। তবে হেলো সরকারের নিজ এলাকা নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে এই অডিও রেকর্ড নিয়ে চলছে চরম হাস্যরস।

স্থানীয়রা বলছেন, এটা নতুন কিছু না। হেলো সরকারের মুখে ভাষা কেমন, এটা আড়াইহাজারের সবাই জানে। এদিকে অমিত সাহাকে ফোন করে নিজের এসব কথা গণমাধ্যমের কাছে অকোপটে স্বিকারও করেছেন হেলো সরকার। বলেছেন, “ ঐ পোলারে আমি ফোনে বলছি তুই মালাউন মানুষ, এত সাহস দেখাস কেন হিন্দু মানুষ হইয়া? এইটা আবার অডিও কইরা প্রচারের দরকার কি?”

উল্লেখ্য, গত মাসেই আড়াইহাজারের এক গণমাধ্যম কর্মীকে এই উপজেলা চেয়ারম্যান ফোনে প্রকাশের অযোগ্য ভাষায় গালাগাল করে বলেছিলেন, “ . . .পুত, আমি হেলো সরকার , … একদম সাংবাদিক ছুটাইয়া দিমু”। এই গালাগালির অডিওটিও অঐ সময় ভাইরাল হয়েছিল। হেলো সরকারের গরুর অবৈধ হাট নিয়ে ঘটে যাওয়া সেই ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশের মাত্র ২৬দিনের মাথায় উপজেলা চেয়ারম্যান হেলো সরকার গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাতে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের নেতা অমিত সাহাকে গালমন্দ করলেন। এই ঘটনার পর গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাতে গাজীপুরের বাসন থানায় সাধারণ ডায়েরী দায়ের করেন অমিত সাহা।

সেখানে তিনি চেয়ারম্যান মুজাহেদুর রহমান হেলো সরকারের নাম উল্লেখ করে লিখেন, গত ১৫ তারিখ রাত ৭.৫৫ টায় আমাকে তার ব্যবহৃত নাম্বার দিয়ে ফোন করে অকথ্য ভাষায় গালাগাল এবং ভয়ভীতি প্রদর্শন করে।অমতি সাহা জানান, আমাদের শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের মূল সংগঠনটি মহাসচিব দ্বারা পরিচালিত।

গত ২০২১ সালে আমাদের নেতা কে এম শহীদুল্লাহ ভাইকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সংগঠনের মহাসচিব পদে স্থলাভিষিক্ত করেন। এই কমিটি থেকে হেলো সরকার বাদও পরেছেন। কিন্তু একই নামে মুজিবুর রহমান হাওলাদার ও মুজাহেদুর রহমান হেলো সরকার অপর একটি সংগঠন চালাচ্ছে। অথচ তাদের কমিটির প্রধানমন্ত্রী কিংবা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের অনুমোদন নেই। আমি মনে করি যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে অনুমোদন দিয়েছেন সেখানে হেলো সরকার পাল্টা সংগঠন করে ধৃষ্টতা দেখাচ্ছেন। এনিয়ে আপত্তি করে আমি ফেইসবুকে একটি পোষ্ট দেই যেখানে তার ছবি রেড মার্ক করে দেই। সেই পোষ্ট দেখে গত ১৫ সেপ্টেম্বর রাত পৌনে ৮ টার দিকে হেলো সরকার আমাকে ফোন করে প্রথমে হুমকি ও গালাগাল করে। এই ঘটনার পর ১৮ সেপ্টেম্বর রাতে গাজীপুরের বাসন থানায় সাধারণ ডায়েরী দায়ের করি।

এদিকে প্রকাশিত অডিওতে শোনা গেছে, অমিত সাহা তার একটি ছবিতে কেন লাল দাগ দিলো এমন প্রশ্ন তুলে রাগ হতে থাকেন হেলো সরকার। কথার এক পর্যায়ে হেলো সরকার বলেন, ‘তুমি আমার ছবিতে দাগ দিসো, এতে কি হইবো তুমি জানো?’ প্রতি উত্তরে অমিত সাহা বলেন, ‘আমাকে এসব ভয় দেখাইয়েন না’। এসময় হেলো সরকার বলতে থাকনে, “হেলো সরকাররে চিনোস। তুমি জানো আমি পাড়ায়া মানুষ মাইরা হালাই। একদম ধইরা লইয়া আইবো, পাড়ায়া মাইরা লামু। এই মালাউনের বাচ্চা, তরে আমি কি ভয় দেখামু? তর গাজীপুরে আমি ব্যবস্থা করতাছি”। এদিকে অডিওর বিষয়ে জানতে চাইলে এর সত্যতা স্বীকার করেন উপজেলা চেয়ারম্যান হেলো সরকার।

তিনি প্রতিবেদককে বলেন, ‘অই ছেলে আমার নামে উলটাপালটা লিখে আমার ছবিতে লাল কালি দিয়ে দাগ দিয়েছে। তখন আমি বলেছি ওই ব্যাটা তুমি এইটা করছো কেন? আমি উপজেলার চেয়ারম্যান। এটা নিয়ে আমার এলাকায় প্রতিক্রিয়া হইসে। এলাকার লোকজন তো পিটায়া মাইরা ফেলব। ও আমারে বলে আপনি আমাকে ভয় দেখান? আমি তখন বলছি, তরে আমি ভালো কথা বলছি, তুই মালাউন মানুষ, এত সাহস দেখাস কেন হিন্দু মানুষ হইয়া? এইটা আবার অডিও কইরা প্রচারের দরকার কি? ও জিডি করছে, এখন যদি আমিও করি কারন আমার নামে ফেইসবুকে উলটাপালটা লিখছে’।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ