ঢাকাসোমবার , ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

প্রধান শিক্ষকের পদত্যাগের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

আবু বকর সিদ্দিক
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২২ ৫:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদকশ্লীলতাহানীর অভিযোগে স্কুলের প্রধান শিক্ষকের পদত্যাগের দাবিতে দিন ব্যাপি বিক্ষোভ করেছে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার সফুরা খাতুন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এসময় প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের অপসারণের দাবিতে শ্লোগান দেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় শিক্ষার্থীরা হঠাৎ ক্লাস বর্জন করে নারায়ণগঞ্জ-আদমজী-চাষাড়া সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। পরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) হাফিজুর রহমান ও পরিদর্শক (অপারেশন) হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে সড়ক থেকেসড়িয়ে স্কুলের ভিতরে নিয়ে যায়। এদিন বেলা ২ টা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের মাঠেই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্লোগান দিয়ে তার অপসারন দাবী করে।প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত কয়েকজন শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বললে তারা অভিযোগ করে বলে, নানা অজুহাতে ও কৌশলে আমাদের শরীরে হাত দিয়েছে রফিক স্যার। পড়া না পাড়লে তিনি শরীরে বিভিন্ন স্থানে চর-থাপ্পর মেরে শারীরিক নির্যাতনও করেছেন। আমরা চাই, আর কোনো বোন তার দ্বারা শ্লীলতাহানীর ও যৌন হয়রানীর শিকার না হোক। তার মতো শিক্ষক আমরা এই বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে দেখতে চাই না।এই বিষয়ে স্থানীয়দের সুত্রে জানা যায়, রফিক স্যারের চলমান কার্যক্রমকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে গত রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) পদত্যাগ করা খণ্ডকালীন দুই শিক্ষকসহ বিদ্যালয়ের একটি চক্র প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকে নানাভাবে ষড়যন্ত্র করে আসছে। অনেক অবৈধ সুযোগ সুবিধা বন্ধ হয় গেছে চক্রটির। পদত্যাগী দুই শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির এক সদস্যের ইন্দনে রাতারাতি ফেস্টুন-প্ল্যাকার্ড বানিয়ে ক্লাস চলাকালীন অবস্থায় রাস্তায় নামে শিক্ষার্থীদের একটি অংশ।তবে ওই স্কুলের শিক্ষিকা সুমিতা নাথের সাথে কথা বলে জানা যায়, আমরা এর আগে কখোনই প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের অভিযোগের বিষয়টি জানতে পারিনি। তিনি ২০১৯ সালে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। তখন থেকে এখন পর্যন্ত রফিক স্যার আমাদের সাথে এমন কোন আচরণ করে নাই যাতে তার অন্য কোন উদ্দেশ্যর প্রকাশ পায়। তবে গত কয়েকদিন যাবৎ অভিযোগ করছে। এমন বক্তব্য শুধু বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা সুমিতা নাথেরই নয়, এই বক্তব্যে সহমত জানিয়েছেন গানের শিক্ষিকা শাহীন চৌধুরী, ইংরেজী শিক্ষিকা ফরিদা আক্তার, সমাজ বিজ্ঞান শিক্ষিকা শাসচ্ছুন্নাহার শিলা।এদিকে শিক্ষার্থীদের সকল অভিযোগ মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক বলে দাবি করেছেন সফুরা খাতুন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমি যোগদানের পর অভিভাবক ও স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেই। ফলে একটি স্বার্থান্বেসী চক্রের স্বার্থে আঘাত লাগে। এতে ওই চক্রটি ছাত্রীদের প্ররোচিত করে বিক্ষোভ করতে বাধ্য করেছে।তিনি বলেন, আমি যোগ দানের পর বিদ্যালয়ের নতুন ভবন, শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ, লেখা পড়ার মান বৃদ্ধিসহ নানা কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি অল্প সময়ের মধ্যে। এছাড়াও একটি চক্র প্রশ্নপত্র ফাঁস করে কৌচিং বাণিজ্য করে আসছিল। আমি বিদ্যালয়ের প্রশ্নপত্র প্রস্তুতের দায়িত্ব নিয়ে নেয়ায় চক্রটির আঁতে ঘাঁ লাগায় আমার বিরুদ্ধে এই বিক্ষোভ করা হচ্ছে, আমি এর সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি।ঘটনার পর বেলা ২টায় বিদ্যালয়ে এসে উপস্থিত হন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবু তালেব। তিনি বিদ্যালয়ের অন্যান্ন শিক্ষিকা এবং এডহক কমিটির সদস্যদের সাথে কথা বলে বিস্তারিত বিষয়টি জানেন। পরে তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। অভিযোগ আমলে নেয়া হয়েছে, বিষয়টি খতিয়ে দেখে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয় হবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।