ব্যবস্থার আশ্বাস এসপির হাইওয়ের ওসি নবীর হোসেনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ কান্ড

নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: নবীর হোসেনের নিজ স্বার্থ হাসিল করতেই নানা অপকর্মের পর এবার নতুন করে আরো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে ওসিসহ আরো কয়েকজনের বিরুদ্ধে । যা কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাাশিত হলে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে ।
গণমাধ্যমে প্রকাশের পর কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি মো: নবীর হোসেনের এমন অপেশাদারিত্ব ও  ঔদ্ধত্যপূর্ণ ঘটনায় হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার (এসপি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, “আগে দেখি, সমস্যা হলে পরে দেখে ব্যবস্থা নিচ্ছি।”
বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, হাইওয়ে থানার ওসি মো: নবীর হোসেনের বিরুদ্ধে জব্দ করা ২০ টি গাড়ি সরানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১০ অক্টোবর সোমবার বিকালে কাঁচপুর সাগর ফিলিংস্ পাম্প সংলগ্নে রুপায়ন গ্রুপের জলাশয় একটি বাউন্ডারির মধ্যে ওসির নেতৃত্বে এক পুলিশ কনস্টেবল ফেরদৌস ও স্থানীয় আওয়ামীলীগের পরিচয়দানকারি লিটন খানের শেল্টারে বিভিন্ন শ্রেণীর ২০টি গাড়ি ইলেকট্রিক মেশিনের সাহায্য কেটে ফেলার দৃশ্যের অভিযোগ উঠেছে ওসির বিরুদ্ধে।
কাঁচপুর থানায় সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচপুর মসজিদ মার্কেট সংলগ্নে পথচারীদের জায়গা দখল করে বছরের পর বছর পড়ে আছে বিভিন্ন শ্রেণী পরিত্যক্ত জব্দকৃত গাড়ি। এ জায়গায় তাঁরা শত শত গাড়ি নিজস্ব ডাম্পিং প্লেজ বানিয়ে গাদাগাদি করে রাখেন। এমনকি গাড়ি রাখার জায়গা না থাকার কারণে; কাঁচপুর মেইন পয়েন্ট থেকে চট্টগ্রাম রুটের হাইওয়ে থানা পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার ব্যাপি সড়কের একটি লেন দখল করে গাড়ি রাখার চিত্র দেখা গেছে। এতে নানা সময়ে ভোগান্তির সৃষ্টি হয় সাধারণ পরিবহণ যাত্রীদের। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ওসি নিরাপত্তাবিহীন জব্দকৃত গাড়ি সরিয়ে ফেলে বিক্রি করে দেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, থানার মালখানা হিসেবে বিভিন্ন মামলায় বর্তমানে প্রায় ৪ শতাধিক গাড়ি পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এখানে দীর্ঘ দিন পরিত্যক্ত অবস্থায় পরে থাকা মালিকানাবিহীন গাড়ি। যেমন- শ্রাবণ বাস, ডিস্টিক ট্রাক ঝালকাঠি-(ট) ১১-০১১১, কভার্ড ভ্যান, পিকআপ ও লড়ি পরিবহণ সহ প্রায় ২০টি গাড়ি বিক্রি ও সরিয়ে ফেলার অভিযোগ তোলেছেন ওসি বিরুদ্ধে ভূক্তভোগীরা। এ গাড়ি সরিয়ে নিয়ে কাঁচপুর সাগর ফিলিংস্ পাম্প সংলগ্নে একটি রুপায়ন গ্রুপ প্রজেক্টের বাউন্ডারির মধ্যে নিয়ে নিরিবিলি জায়গা পেয়ে কেটে ফেলার দৃশ্য পাওয়া গেছে। এমন অবৈধ কর্মকাণ্ডে রূপায়ন গ্রুপের গেইট লগ করে, হাইওয়ে থানা ওসির নেতৃত্বে পুলিশ কনস্টেবল ফেরদৌস ও আওয়ামীলীগ নেতা লিটন খানের সঙ্গে ২/৩ জন লোক উপস্থিত দেখা গেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তাঁরা বলেন, সকল কিছু ওসি স্যার জানেন।
আরো জানা য়ায়, ওসি মো: নবীর হোসেন কোন প্রকার টেন্ডার ও অকশন ছাড়াই ২০টি গাড়ির মধ্যে দুটি গাড়ি উপহার দিয়েছেন লিটন খান কে । ১৮টি গাড়ির মালামাল বিক্রয়ের ক্ষেত্রেও লিটন খানের হয়ে বিক্রি করতে হয়েছে ।
সুতরাং ২০টি গাড়ির মূল্য আনুমানিক প্রায় ৮০ লক্ষ টাকা মূল্য হারে বিক্রি করা হয়। এ ধরনের অবৈধভাবে সরকারি তালিকা ভুক্ত গাড়ি; আদালতের আইনী তোয়াক্কা না করে। পুলিশের ঊর্ধ্বতনকে ম্যানেজ করে, সকল অর্থ আত্মসাৎ করার গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়।
এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৩/৪ জন ব্যক্তি সাংবাদিকদের জানান, সরকারিভাবে বিভিন্ন প্রকার শ্রেণীভুক্ত জব্দকৃত গাড়ি ‘শ্রাবণ বাস, ডিস্টিক ট্রাক, লড়ি, কভার্ড ভ্যান ও পিকআপ সহ প্রায় ২০টি গাড়ি সরিয়ে ফেলা হয়েছে। এ গাড়ি নিয়ে রূপায়ন গ্রুপের একটি প্রজেক্টের মধ্যে নিরিবিলি জায়গা পেয়ে কেটে কেটে বিক্রি করে দেন ওসি। নিলাম বিহীন গাড়ি কেটে টুকরো টুকরো করে বিক্রয় করা কিভাবে সম্ভব ? এটি গণমাধ্যমে প্রকাশ করে, আইনগত ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন তাঁরা।
এমন সরকারী সম্পদ লুষ্ঠনকারীদের শেল্টারদাতা লিটন খান জানান, ভাই আমি পুলিশকে ভালোবেসে, ওসি নবী স্যারকে সহযোগীতা করেছি । তিনি কয় টাকা বেতন পান। এ ধরনের টুকিটাকি বিষয় করতে একটু সুযোগ দেন। এ নিউজ করা প্রয়োজন নেই ! তিনি অত্যন্ত একজন ভালো মানুষ। তাঁর এই কাজে আমি সহযোগীতা করাতে; আমাকে দুটি গাড়ি উপহার দিয়েছে বলে জানান তিনি।
এমন গুরুতর অভিযোগের বিষয়ে কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ওসি মো: নবীর হোসেন জানান, আমি মাত্র ৪টি গাড়ি বিক্রয় করছি। এটার বৈধতা আছে। ২০টি গাড়ি বিক্রয় করিনি । আদালতের গাড়ি নিলাম বিক্রয়ের অর্ডার চিঠি চাইতে গেলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে। সাংবাদিকদের স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা লিটন খানকে দিয়ে নিউজ বন্ধের হুমকি প্রদান করেন । এমন নানাভাবে অপকৌশল প্রয়োগ করে সংবাদ বন্ধের পায়তারা চালান ওসি মো: নবীর হোসেন।
এ বিষয়ে গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ভাই আপনার মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পেরেছি। আমি বিষয়টি অবগত ছিলাম না। তবে বিষয়টি যেনে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।
গণমাধ্যমে হাইওয়ে থানার ওসি মো: নবীর হোসেনের এমন অপেশাদারিত্ব ও  ঔদ্ধত্যপূর্ণ কর্মকান্ডের বিষয়ে সংবাদ প্রকাশের পর অনকেই সমালোচনা করে আরো বলেন, “আমরা কোন মগের মুল্লুকে বসবাস করছি । কে চালায় আইনশৃংখলা বাহিনী । রক্ষক যখন ভক্ষকে পরিণত হয়েছে তখন আর এই নবীর হোসেনদের মতো অপরাধীদের আর সরকারী বেতন ভাতা দিয়ে রাস্ট্রের লালন পালনের প্রয়োজন কি ?”
এমন ঘটনায় অনেকের একই মন্তব্য এখন দেখার বিষয় হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার (এসপি) মোস্তাফিজুর রহমান এখন কি করেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ