নারায়ণগঞ্জে মাদানীনগর মাদ্রাসায় শীক্ষার্থীকে শারিরীক নির্যাতন

নারায়ণগঞ্জে মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীকে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অসুস্থ্য থাকায় নিয়মিত পাঠ্য সম্পন্ন করতে না পারায় তাকে পাষবিক নির্যাতন করেছেন হেফজ বিভাগের শিক্ষক হাফেজ সাইফুল ইসলাম। বিষয়টি জানাজানি হলে ওই শিক্ষককে বহিষ্কার করে মাদানী নগর মাদ্রাসা কতৃপক্ষ। গত রবিবার (১৬ অক্টোবর) সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন সানারপাড় এলাকার দারুল উলূম মাদানীনগর মাদ্রাসার (কওমী) হেফজ বিভাগের ছাত্র আব্দুল্লাহ তালহা ওই বিভাগের শিক্ষক সাইফুল ইসলামের দ্বারা নির্যাতনের শিকার হন। তবে এই বিষয়ে কিছুই জনতেন না মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। পরে বুধবার (১৯ অক্টোবর) সকালে আব্দুল্লাহ তালহার মা তাকে দেখতে আসলে তিনি তার ছেলের অবস্থা খারাপ দেখে কী হয়েছে জানতে চান। ওই সময় নির্যাতনের শিকার শিক্ষার্থী তার পশ্চাদেশ দেখালে তার মা ওই বিভৎস অবস্থা দেখে জ্ঞাণ হারিয়ে ফেলেন। এসময় তাদের সাথে থাকা এক আত্মীয় তালহার বাবা আব্দুল হালিমকে মুঠোফোনে বিষয়টি জানায়। পরে তিনি এসে গুমাধ্যমকর্মী ও পুলিশকে জানিয়ে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেন। তবে সে সময় অব্দি এই ঘটনার কিছুই জানতেন না বলে দাবি করেন মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। পুলিশ ও গুমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতি টের পেয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক সাইফুল ইসলামকে তাৎক্ষণিক বহিষ্কার করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।নির্যাতনের শিকার ছাত্রের নাম আব্দুল্লাহ তালহা (১১) ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার কসবা থানার চকবাস্তা গ্রামের আব্দুল হালিম অপুর ছেলে। তালহা বলেন, আমি অসুস্থ্য ছিলাম বিধায় আমার দৈনিকের পড়া শেষ করতে পারি নাই। আমাকে গত রোববার ফজরের নামাজের পর সাইফুল ওস্তাদ আমাকে আধাঘন্টা পর্যন্ত মারধর করে। মাদ্রাসার মেঝেতে ফেলে পশ্চাদেশের মধ্যে আঘাত করে। আমি অসুস্থ হয়ে পড়লে বিষয়টি আমার মা বাবাকে জানাতে বলি। তখন সে আমাকে আরো মারধর করে এবং জানালে আরো মার খেতে হবে বলে ভয় দেখায়। এরপর আর আমাকে মাদ্রাসা থেকে বের হতে দেয়নি।তালহার বাবা আব্দুল হালিম অপু ঢাকা পোষ্টকে জানান, গত সোমবার আমার স্ত্রী ছেলেকে দেখতে গিয়ে মারধরের বিষয়টি জানতে পারে। ছেলের পশ্চাদেশে আঘাতের দাগ দেখে আমার স্ত্রী কান্নায় ভেঙে পড়ে এবং জ্ঞাণ হারিয়ে ফেলেন। এসময় তার সাথে থাকা এক আত্মীয় আমাকে ফোনে জানায়। পরে আমি গত মঙ্গলবার মাদরাসায় গিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করলে তারা বিষয়টি দেখবে বলে জানায়। তবে মাদ্রাসার প্রিন্সিপালের সাথে আমাকে দেখা করতে দেয়া হয়নি। এই বিষয়ে মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ফয়জুল্লাহ এর সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি মাদ্রাসায় উপস্থিত নেই বলে জানায় জ্যাষ্ঠ শিক্ষক হাফেজ মাওলানা আবুল ফাতাহ্। তিনি বলেন, গতকাল বুধবার সকালে বিষয়টি জানার পর তাৎক্ষণিক মিটিং ডেকে অভিযুক্ত শিক্ষক সাইফুল ইসলামকে মাদ্রাসা থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। পাশাপাশি কোন শিক্ষক যেন শিক্ষার্থীদের উপর এমন নির্যাতন না করে সে জন্য সবাইকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের বাবা-মায়ের মত আদর করে তাদের পড়াতে হবে বলে সকল শিক্ষকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।এদিকে ঘটনাস্থলে আসা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) শহিদুল ইসলাম বলেন, শিশুটির উপর অমানবিক নির্যাতন হয়েছে। মাদ্রাসায় এসে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। ভূক্তভোগীর পরিবার মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছে সুবিচার দাবি করেছেন। তারা আমাদের কাছে কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিভাবকরা যদি থানায় লিখিত অভিযোগ করেন তবে অবশ্যই বিধি মোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ