ঢাকাসোমবার , ২১ নভেম্বর ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

রাজউকের উচ্ছেদ অভিযানে সুগন্ধাকে ৫ লাখ জরিমানা

আবু বকর সিদ্দিক
নভেম্বর ২১, ২০২২ ৪:২০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদকনারায়ণগঞ্জে সড়ক দখল ও নকশা বহির্ভত ভবন নির্মাণের অভিযোগে অভিযান চালিয়েছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। অভিযানে মোট বারটি বাড়ি ও বেশ কিছু ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের অবৈধ অংশ উচ্ছেদ করা হয়। এছাড়াও অভিযানে সুগন্ধা বেকারিকে নগদ ৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। রোববার (২০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ শহরের আল্লামা ইকবাল সড়কে রাজউকের নারায়ণগঞ্জ জোনের পরিচালক ইয়াহ ইয়া খানের নেতৃত্বে ওই অভিযান পরিচালনা করা হয়।রাজউক সূত্রে জানা গেছে, নাারয়ণগঞ্জে রাজউক থেকে অনুমোদন না নিয়ে ভবন নির্মাণ, অনুমােদন নিয়ে নকশা বহির্ভূত ভবন নির্মাণ ও সড়ক ও রেলওয়ের জমি দখল করে স্থাপনা নির্মাণের অভিযোগে রাজউক অভিযান চালায়। এদিন অভিযানে মোট বারটি বাড়ির অবৈধ অংশ ও তিনটি দোকান ভেঙ্গে দেওয়া হয়। এছাড়া কলেজ রোডের মোড়ে গেড়ে ওঠা সুগন্ধা বেকারির সিড়িতে জেনারেটর রাখার অভিযোগে ভবন মালিক নুরুল হককে পাঁচ লক্ষ্য টাকা জরিমানা করা হয়।স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, এর আগে রেলওয়ে ও সিটি করপোরেশন এখানে উচ্ছেদ অভিযান চালালেও কোনোবারই ভাঙ্গা হয়নি সুগন্ধা বেকারির অবৈধ স্থাপনা। প্রতিবারই সুগন্ধার মালিক নিজেই অবৈধ স্থাপনা ভেঙে দেয়ার আশ্বাস দিয়ে অভিযানকারীদের ফিরিয়ে দিয়েছেন। তবে এবার রাজউকের অভিযানকারীদের বুঝিয়ে ফিরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন তিনি। পরে এলাকাবাসীর তোপের মুখে পড়ে রাজউক সুগন্ধা বেকারির সড়ক দখল করা ৩-৪ ফুট অংশ ভেঙ্গে দেয়। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে ওই এলাকার জিয়াউল ইসলাম কাজল নামে এক ভবন মালিক বলেন, একই অপরাধে এই এলাকার ভবন মালিক শাহীনের বাড়ির পেছনে যেয়ে রাজউক ভবনটির পিলার ভেঙ্গে দিয়েছে। কিন্তু এই সুগন্ধা বেকারির মালিক নুরুল হক একাি অপরাধ করলেও তার ভবনটি ভাঙ্গা হয়নি। লোক দেখানো অভিযানে তার দখলে থাকা সামেনের দোকানের সম্মুখভাগ উচ্ছেদ করে চলে গেছেন। তবে এলাকাবাসীর এতসব অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে রাজউকের নারায়ণগঞ্জ জোনের পরিচালক ইয়াহ ইয়া খান বলেন, আমার নিয়ম বহির্ভূত সকল ভবনে উচ্ছেদ করেছি। এখানে কিছু ভবন মালিক সিনিয়র সিটিজেন ও অসুস্থ্য থাকায় তাদের দাবির প্রেক্ষিতে একদিনের সময় দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে তারা নিজ উদ্যোগে ওই সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে নিবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। যদি তার এর ব্যাত্যয় করেন তবে তাদের জরিমানা ও পূণরায় উচ্ছেদ করা হবে। উচ্ছেদ অভিযানে কোন অনিয়ম বা স্বজনপ্রিতী করা হয়নি।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।