ঢাকাশনিবার , ২৬ নভেম্বর ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চাষাড়া-সাইনবোর্ডে ঝুকিপূর্ন লেগুনা, নিরুপায় যাত্রীরা

আবু বকর সিদ্দিক
নভেম্বর ২৬, ২০২২ ৫:৫১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কম বয়সের অনভিজ্ঞ চালকদের বেপরোয়া লেগুনা ড্রাইভিংয়ে সড়কে প্রতিনিয়ত ঘটে দুর্ঘটনা। নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স, লুকিং গ্লাস, নাম্বার প্লেট ছাড়া অযোগ্য ফিটনেস নিয়ে প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় ঝুঁকিপূর্ণভাবে চলছে গণপরিবহন লেগুনা। আইন আছে-প্রশাসন আছে, তবু দেখার যেন কেউ নেই। চাঁদাবাজি আর দক্ষ চালকের অভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা। কাঁচা হাতে গাড়ি চালাতে গিয়ে অনেক সময় ঘটে দূর্ঘটনা।সড়কে নিয়ম-কানুন না মেনে চলা এসব বাহন স্থানীয় যাত্রীদের কাছেও আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছাতে যাত্রীরাও বাধ্য হয়েই চড়ে বসছেন এসব ছোট যানে।সূত্র মতে, গত দু’ বছরে সিএনজি ও লেগুনা নামক ছোট এসব বাহনে চড়ে প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ৩০ জন দুর্ঘটনা রোধ ও বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে ২০১৯ সালে ঢাকার সবকটি রুটেই বৈধ-অবৈধ সব লেগুনার চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। কিছুদিন যেতে না যেতেই ফের লেগুনার চলাচল শুরু হয় ।অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় কিছু রাজনৈতিক নেতা ও ট্রাফিক পুলিশের কতিপয় অসাধু সদস্যকে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে এসব গাড়ি চালানো হচ্ছে।নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক লেগুনা চালক বলেন, এ রুটে লেগুনা চালাতে ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকলেও তেমন সমস্যা হয় না । প্রতিদিন নির্ধারিত টাকা পরিশোধ করলেই হয়। চালক জানায়, লেগুনার মালিককে প্রতি ট্রিপে ১০০ টাকা করে দিতে হয় এবং দিন শেষে অতিরিক্ত ২৫০ টাকা লাইনম্যানের মাধ্যমে চাঁদা দিতে হয়। অতিরিক্ত এই ২৫০ টাকা কেন দিতে হয় জানতে চাইলে চালক বলে, এই টাকা প্রতিদিন দিলে আমাগো লাইসেন্স বা লুকিং গ্লাস না থাকলে বা হেড লাইট না জ্বললেও পুলিশ এর মামলা থেইকা বাইচা যাই। আমাদের বাধ্য হয়ে ভাড়া নিয়ে কড়াকড়ি করতে হয়। কারণ প্রতিদিনের চাঁদা এবং গাড়ির মালিকের জমা বাবদ দিয়ে আর তেমন কিছু থাকে না, আমরা চলব কি করে! এছাড়া জমার টাকা ওঠাতে দ্রুতগতিতে গাড়ি চালাতে হয় বলে জানান তিনি। এক যাত্রী আক্ষেপ করে বলেন, গাড়ীর সামনে চালক এর বামপাশে একটি বসার সিট থাকলেও নিজের গিয়ার বক্সের উপরও যাত্রী বসিয়ে নেয় চালকেরা। ফলে চালক গাড়ীর স্পিড পাল্টাতেও গিয়ার বক্সে বসানো যাত্রীর পা সড়িয়ে গাড়ির স্পিড কমাতে বাড়াতে হয়। এতে করে যে কোন সময় বড় দূর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যাত্রী আরো আক্ষেপ করে বলেন, লেগুনা যেন আকাশ দিয়ে উড়ে যায়। চালকদের এমন ভাব, যেন তারা হেলিকপ্টার চালাচ্ছেন। বাসকেও সাইড দিতে চান না। জীবন হাতের মুঠোয় নিয়ে এসব ছোট যানে চড়তে হয়। যেকোনো সময় দুর্ঘটনার ভয়-আতঙ্কও সবার মাঝে কাজ করে। ইমাম হোসাইন নামের একজন শিক্ষার্থী বলেন, সরকারি আইন অনুযায়ী, শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়া নেওয়ার কথা, কিন্তু তারা তো তা নেনই না উল্টো তাদের দাবি অনুযায়ী ২০ টাকা ভাড়া থেকে ১৫ টাকা দিতে চাইলে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল শুরু করে। ওই শিক্ষার্থী বলেন, আমি ঢাকায় ভার্সিটিতে ক্লাস করার জন্য চাষাড়া থেকে সাইনবোর্ড নিয়মিত যাতায়াত করি। কিন্তু জিম্মি হয়ে পড়েছি লেগুনা চালকদের কাছে। তাদের বেপরোয়া চলাফেরায় আতঙ্কে থাকি সব সময়।দিন শেষে দেখা যাচ্ছে চাঁদাদাবি মেটাতে পকেট কাটা যাচ্ছে সাধারণ যাত্রীদের। বিআরটিএ কর্তৃক ভাড়া আদায়ের যে নির্দেশনা সেটিও মানছে না লেগুনা চালকরা। চালকের সাথে কথা বলে জানা যায়, চাঁদার টাকা ওঠাতেই যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায় করতে হয় আমাদের। সরে জমিনে তথ্য উঠে আসে, চাষারা থেকে সাইনবোর্ড প্রর্যন্ত চলা এসব লেগুনার সংখ্যা প্রায় ৫০ টি হলেও ২০ থেকে ২৫ টি লেগুনা দিয়ে তারা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে । শুধুমাত্র ২০ থেকে ২৫ টি লেগুনা দিয়েই তারা বছরে প্রায় অর্ধকোটি টাকা চাঁদাবাজরা হাতিয়ে নিচ্ছে। যার মূলে রয়েছে কিছু রাজনৈতিক নেতা এবং পুলিশ এর কিছু অসাধু সদস্যরা।বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন ও মালিক সমিতিসহ সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো সারা দেশে বৈধ লেগুনা (হিউম্যান হলার) বেবি ট্যাক্সি ইত্যাদির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২০ টাকা এবং সংশ্লিষ্ট শ্রমিক ইউনিয়ন সর্বোচ্চ ২০ টাকা চাঁদা আদায় করতে পারবে বলে নির্দেশনা দিলেও উল্টো লেগুনাপ্রতি ২৫০, কখনো কখনো তারও বেশি চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। চালকরা বলছেন, রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যা এ টাকার ভাগ পায়।তথ্যমতে, বৈধ লেগুনার সংখ্যা চার হাজার ৭৫২টি। বাকি সব চলছে বিআরটিএর রুট পারমিট ছাড়াই। রুট পারমিট দেয়ার এখতিয়ার একমাত্র বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) হলেও, সংস্থাটির নাকের ডগাতেই চলছে অবৈধ লেগুনা।প্রশাসনের চোখের সামনে ঘটতে থাকা এ পরিস্থিতির জন্য রাজনৈতিক দূর্বৃত্তায়নকে দ্বায়ী করেন বিশেষজ্ঞরা।চাষাড়া পয়েন্টে দ্বায়িত্বে থাকা লেগুনার লাইনম্যান জাকির (৪৫) জানায়, ড্রাইভাররা প্রতি ট্রিপে ১০০ টাকা করে দিয়ে থাকে। দিনে তারা ৩ থেকে ৪ টি ট্রিপ দিয়ে থাকে। অতিরিক্ত ২৫০ টাকা কেন নেয়া হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই টাকা দিদার সাহেবের কাছে দেয়া হয়। আমাদের বিভিন্ন নেতা-কর্মীরা তত্বাবধায়ন করে থাকে। তারা এই টাকা দিয়ে এ লাইনে থাকা শ্রমিকদের স্বার্থেই এই টাকা ব্যয় করে থাকে। এ বিষয়ে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসাচা) সংগঠনের নারায়নগঞ্জের সভাপতি ওয়াজেদুর রহমান জানান, মানুষের সচেতনতার লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তবে নিরাপদ সড়ক গঠনে সম্পূর্ণ দ্বায়িত্ব প্রশাসনের উপর। পুলিশ প্রশাসন ইচ্ছা করলেও অনেক সময় তারাও কিছু করতে পারে না। কারন এর পিছনে রয়েছে বিভিন্ন মাফিয়া গডফাদাররা। তিনি বলেন এই সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের সৎ ইচ্ছা থাকতে হবে। রুটে চলাচল এসব যানবাহন চলাচলের যোগ্য কিনা কাগজ পত্র যাচাই করলেই এগুলো সব আইনের আওতায় আনা যায়। তবে এক্ষেত্রে একটি সমস্যা হয়ে দারায় সেটি হলো এতগুলো শ্রমিক,মানুষ তাদের কোন বিকল্প পথ না করে তাদের আইনের আওতায় পাকরাও করা হলে এখানেও সমস্যা হয়ে দারায়। তবে তিনি দাবি করেন, সড়কে চলা এসব অযোগ্য লেগুনা যাতে সড়িয়ে নেয়া হয়, তাহলে মানুষ চলাচলের জন্য নিরাপদ সড়ক পাবে। এ ব্যাপারে নারায়রগঞ্জ জেলার ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: সোহান সরকারের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, চাঁদা নেয়ার সাথে পুলিশ জরিত কথাটি সঠিক নয়। যদি কেও আমাদের নামে চাঁদা তুলে থাকে তাহলে তাকে আইনের আওতায় অনা হবে। ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে সব সময় অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হয়ে থাকে। তবে চাঁদাবাজির সাথে যদি কোন পুলিশ জরিত থাকে তাহলে সেই পুলিশ সদস্যর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।