অনেক সহ্য করেছি, আর না: খোকন সাহা

অনেক সহ্য করেছি, আর না: খোকন সাহাআদালত প্রতিবেদক নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা বলেছেন, বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠান হবে। কোন বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করলে ছাড় দেওয়া হবে না। আজকে চেয়েছিল তারা একটা গোলমাল তৈরি করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে। কিন্তু আমরা তাদের সে ফান্দে পা দেইনি। এখনো বলছি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং তা স্বীকার করেন। অভদ্র আচরণ করবেন অনেক অভদ্র আচরণ আছে। আমাদের জেসমিনকে আপনাদের আমলে অপদস্ত করেছেন, আমাদের সাবেক পিপি ওয়াজেদ আলী খোলনের চেয়ার টেবিল এই বারান্দা থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছিলেন। আপনারা জোর করে আইনজীবীদের টাকা নিয়েছিলেন। আমরা অনেক সহ্য করেছি আর করব না। আমি অনেক শান্ত ভাই আইনজীবীরা আপনাদের অনেক জুলুম নির্যাতন সহ্য করেছে। আমরা কি দেয়ার কিছুই করিনি। আমরা নিজেদের বসার চিন্তা না করে আপনাদের বসার জন্য চিন্তা করেছি। সেলিম ওসমানের অর্থায়নে বিল্ডিং এ বসে ওকালতি করে উনার বিরুদ্ধেই কথা বলেন। আপনারা কত বড় অকৃতজ্ঞ। সোজা আঙ্গুল কে আর বাঁকা কইরেন না। যে অত্যাচার জুলুম নির্যাতন আমাদেরকে করা হয়েছিল। আমরা কিন্তু সেটি ভুলে গিয়েছিলাম। আমাদেরকে আর মনে করিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করবেন না। সেই কথা যদি মনে করি তাহলে পরিস্থিতি কিন্তু ভয়াবহ। আদালত পাড়ায় কোন বিশৃঙ্খলা করার চেষ্টা করবেন না। আইনজীবীদের সাথে আঘাত পড়ে এমন কর্মকান্ড থেকেও বিরত থাকবেন। নয়তো ভাই এর জবাব কিন্তু পেয়ে যাবেন। এ জবাব কিভাবে দিতে হয় আমরা কিন্তু জানি। আজকে আমি বলছি আপনারা ভালো হয়ে যান এত বড় অকৃতজ্ঞ আর হবেন না। আইনজীবীরা বারবার আপনাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছে। আর চিন্তা কইরেন না কোন লাভ হবে না ২০২৩ সালের পরাজয়ের জন্য প্রস্তুত হয়ে যান। আইনজীবীরা আপনাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছে যেমনভাবে দেশের জনগণ আপনাদের নেত্রী খালেদা জিয়া ও তার ছেলে দুর্নীতিবাজ তারেক রহমানকে প্রত্যাখ্যান করেছেন।বুধবার ( ৩০ নভেম্বর ) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নবনির্মিত বার ভবনের নাম নারায়ণগঞ্জ- ৪ আসনের সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমান ভবন নাম করন নিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের পক্ষ থেকে তা আপত্তি জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।পরে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির বার ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা তাদের এই সংবাদ সম্মেলনের জবাব দিতে গিয়ে এসব কথা গুলো বলেন।তিনি বলেন, আজকে বিএনপি’র বন্ধুরা চেয়েছিল একটু ধাক্কাধাক্কি হোক। কিন্তু আমরা তাদেরকে সেই সুযোগটা দেইনি। এই বার ভবনে আমাদের নামে কোন চেয়ার বরাদ্দ নেই। আমাদের সভাপতি, সাবেক সভাপতি, জিপি ও পিপির নামেও কোন চেয়ার বরাদ্দ নেই। সকল চেয়ার বিএনপির বন্ধুরা দখল করে বসে থাকেন। কিছুদিন আগে সাধারণ সভা হয়েছিল উনাদের নেতারাও কিন্তু সেদিন উপস্থিত ছিলেন। সাধারণ সভা হচ্ছে আইনজীবীদের সর্বোচ্চ ফোরাম। সাধারণ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হল বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমানের নামে এখানে ভবন হবে। কারণ আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি উনার মতন একজন দানবীর এই আইনজীবী ভবন করার জন্য তিন কোটি ষোল লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। উনার টাকায় এই আইনজীবী সমিতির ভবনটা নির্মিত হচ্ছে। আইনজীবীদের ফান্ডের এক টাকাও কিন্তু আমরা খরচ করিনি।তিনি বলেন, যে লোকটা নিঃস্বার্থভাবে আমাদের জন্য করে গেলেন তারা অবদানের কথাটি আমরা স্বীকার করেছি। সাধারণ সবাই কিন্তু কেউ এর বিরোধিতা করেনি। বৃহস্পতিবার আনন্দ গণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই বার ভবনের উদ্বোধন করা হবে। সবাইকে আমরা ইতিমধ্যে দাওয়াত দিয়েছি। এ অনুষ্ঠানকে বানচাল করতেই বিএনপির বন্ধুরা মাঠে নেমেছে। কার ইঙ্গিতে এগুলো হচ্ছে তা আমরা জানি। আমরা জানি কারা এ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছেন। তাদের জ্বালাপোড়া শুরু হয়ে গেছে। কারণ কেন সেলিম ওসমানের নামে এই ভবন হবে। সাধারণ আইনজীবীর এই তো সিদ্ধান্ত নিয়েছে বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমানের নামে আইনজীবী সমিতির ভবন হবে। এটি তো আমার জুয়েল মহসিন কিংবা কারো সিদ্ধান্ত নয়। সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই দিন যদি আপনারা সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করতেন তাহলে আমরা বুঝতাম। সেই দিন তো কোন প্রতিবাদ হয়নি। তাহলে আজকে কেন এগুলো করা হচ্ছে।তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি আমরা বাঙালিরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ না করে কিন্তু তাকে হত্যা করেছি। সেই খুনিদের বংশধর কিন্তু আপনারাই। বিএনপির বন্ধুদের আমলে অল্প কিছু টাকা খরচ করা হয়েছিল। উনাদের এক সিনিয়র নেতা ২০০০ সালে এইবার ভবনের সামনে দাঁড়ি কিন্তু বলেছিল আমি একটি কম্পিউটার দিব। এরপর বলেছিল আইনজীবীদের জন্য একটি বাস দিবেন। সেই কম্পিউটার কিন্তু আইনজীবীদের এখনো তিনি দেননি। উনাদের আরেক নেতা অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস এবার থেকে ২ লক্ষ টাকা ধার নিয়েছিলেন। সেটার কাগজপত্র কিন্তু এখনো আছে। এখনো পর্যন্ত তিনি সেই টাকা পরিশোধ করে নিন। আমি বারের নেতৃবৃন্দদের বলবো টাকা উদ্ধারের জন্য তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। ওদের বিরুদ্ধে করা উচিত ওরা আমাদের আইনজীবীদের টাকা আত্মসাৎ করবে আবার বড় বড় কথা বলবে। তাদের দায়ভার আর আমরা আইনজীবীরা নিতে পারি না।এসময়ে আরও উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাবেক সভাপতি এড. মুহাম্মদ মোহসীন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. রবিউল আমিন রনী, জেলা পিপি এড. মনিরুজ্জামান বুলবুল, জিপি এড. মেরিনা বেগম, সিনিয়র আইনজীবী এড. মাসুদুর রউফ, এপিপি এড. সুইটি ইয়াসমিনসহ আইনজীবী সমিতির সদস্যরা।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ