ফের মামলার জালে নাগঞ্জ বিএনপি

ফের মামলার জালে নাগঞ্জ বিএনপিনিজস্ব প্রতিবেদক আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির গণসমাবেশ ঘিরে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক অঙ্গনে বাড়ছে উত্তেজনা। মহাসমাবেশ সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে রাজপথের প্রধান বিরোধী বিএনপি। এদিকে সময় যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতার। বিএনপি নেতাদের দাবি, ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে গায়েবি মামলা দিয়েছিল পুলিশ। এবারো সেই পুরোনো কৌশল গ্রহণ করেছে। বিদেশে অবস্থান করছেন, মৃত্যুবরণ করেছেন, গাড়ি ভাংচুর ও ককটেল ফোটানোর শব্দই শোনেনি কেউ অথচ দেয়া হচ্ছে মামলা। যাদেরকে স্বাক্ষী বানানো হয়েছে তারাও জানেন না ঘটনা কখন ঘটেছে। মূলত: বিএনপির চলমান আন্দোলন দমন করতে আওয়ামী লীগ গায়েবি মামলার রাজনৈতিক কৌশল গ্রহণ করেছে বলে মনে করেন তারা।বিএনপি ও পুলিশের তথ্যমতে, গত ১৪ দিনের নারায়ণগঞ্জের ৭টি থানায় ১১টি মামলা দায়ের করা হয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীদের আসামী করে। এরমধ্যে ৯টি নাশকতার মামলার বাদী পুলিশ। ইতিমধ্যে মামলাগুলোতে বেশ কয়েকজন বিএনপির নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার এড়াতে অনেক নেতাকর্মী বাড়ি-ঘরে থাকতে পারছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। তারা বলেন, মিথ্যা বানোয়াট ও কল্প কাহিনী সাজিয়ে মামলা দেয়া হচ্ছে বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে। কিন্তু মামলা আর গ্রেপ্তারের ভয় দেখিয়ে মহাসমাবেশে যাওয়া বন্ধ করতে পারবে না সরকার।  বিএনপি সূত্রে জানা যায়, জ্বালানি তেল, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, নেতাকর্মীদের হত্যার প্রতিবাদে, বেগম খালেদা জিয়াসহ কারাবন্দী নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে গত ২২ আগস্ট থেকে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌর, থানা, উপজেলা ও শহরে বিক্ষোভ প্রতিবাদ সমাবেশ কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি। এরমধ্যে ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশের তারিখ ঘোষণার পর থেকে পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দলের নেতারা তৎপর হয়ে উঠে। প্রশাসনকে ব্যবহার করে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে একের পর এক মামলা দেয়া হচ্ছে। এ বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বিকাল পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জের ৭টি থানায় দায়ের করা ১১টি মামলায়  ১ হাজার ৬৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। এদিকে আন্দোলন দমাতে মামলা দায়ের আওয়ামী লীগের ‘রাজনৈতিক কৌশল’ বলে মনে করছেন বিএনপি নেতারা। তারা বলেন, ফতুল্লা থানা পুলিশের মামলায় জাপানে থাকা প্রবাসী ছাত্রদল নেতা গায়েবি মামলার আসামি। সেই পুরোনো কায়দায় আবারও গায়েবি মামলার হিড়িক চলছে। বিএনপির নেতারা বলেন, ২১ নভেম্বরের ফতুল্লা মডেল থানায় দায়ের করা মামলার ৩৩ নম্বর আসামি ইসহাক ইসলাম ফতুল্লা ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি। তিনি ৭ মাস আগে উচ্চশিক্ষার জন্য জাপানে যান। এখন পর্যন্ত সেখানেই আছেন। বিস্ফোরক ও নাশকতার মামলায় প্রবাসী নেতাকে আসামি করায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন বিএনপি নেতারা। বিএনপির নেতাদের অভিযোগ শুধু মামলা নয়, মামলা দায়েরের পর বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। নেতাকর্মীদের বাসায় বাসায় তল্লাশির নামে হয়রানি ও বাসার সদস্যদের, সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণও করা হচ্ছে। মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবু আল ইউসুফ খান টিপু জানান, এসব মামলার সবগুলোই সাজানো এবং শুধুমাত্র ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ বানচাল করতে দায়ের করা হয়েছে। এসব মিথ্যা মামলায় বিএনপি নেতাদের গ্রেফতার করে কারাগারে বন্দি করতে চায় সরকার। কোনোভাবেই এসব মামলা হামলা করে সমাবেশে নারায়ণগঞ্জের নেতাকর্মীদের ঢল ঠেকাতে পারবে না সরকার।জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির ১নং যুগ্ম আহবায়ক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ বলেন, মহাসমাবেশ সফল করতে আমরা সব ধরণের প্রস্তুতি নিচ্ছি। মামলা-হামলাসহ যে কোন বাঁধা নারায়ণগঞ্জের বিএনপির নেতাকর্মীদের দমিয়ে রাখতে পারবে না। হাজার হাজার নেতাকর্মী নানা পন্থায় ঢাকার সমাবেশে যোগ দিবে। সাধারণ মানুষও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে। তারা সেদিন যোগ দিবে সমাবেশে। আমরা মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় বিএনপির নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে হয়রানী ও গ্রেপ্তার না করার জন্য প্রশাসনের কাছে দাবী জানাচ্ছি। 

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ