সেতু নির্মাণে ধীরগতিতে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল ও ভোগান্তি

আড়াইহাজার বাঞ্চারামপুরÑঢাকা সড়কে আরসিসি সেতুর নির্মঠু কাজে চলছে ধীরগতি। প্রায় সাড়ে ২৭ কোটি টাকা ব্যায়ে এই সেতু নির্মাণের কাজ হাতে নেয় সড়ক ও জনপথ, নারায়ণগঞ্জ।এদিকে সড়কে সেতু নির্মঠু কাজের ধীরগতি হওয়ায় এরপাশের খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ৩০ বছরের  অধিক পুরোনো রামচন্দ্রদী বেইলি সেতু দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। এতে করে এলাকাবাসী ও এ সড়ক দিয়ে যতায়াতরত সকল যাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।  এই সড়ক ব্যবহারকারীরা ও এলাকাবাসীরা নতুন সেতুর কাজ নির্মঠু কাজ দেখে যতটা আশান্বিত হয়েছে তার চেয়ে বেশি তাদের ভিতর ক্ষোভ ও হতাশা কাজ করছে ধীরগতির কাজের কারণে।  সরজমিনে দেখা যায়, মেঘনা নদীর তীরবর্তী বিশনন্দী এলাকায়  আড়াইহাজার-বাঞ্ছারাপুর-ঢাকা সড়কে থাকা রামচন্দ্রদী বেইলী সেতু জরাজীর্ণ, তার উপর দিয়েই যাচ্ছে ছোট বড় যানবাহন। সেতুতে বসানো লোহার পাত গুলোর জোড়া ছুটে গেছে। তার উপর দিয়ে যানবান উপর দিয়ে যাবার সময় বিকট শব্দে পাত গুলো দেবে যাচ্ছে । প্রায় ৩০ বছরে পুরোনো হওয়াতে সেতুটি আরো নড়বড়ে হয়ে গেছে।এই নড়বড়ে সেতু দিয়ে ব্যবহারকারীদের ভীত অবস্থায় তাদের যাতায়াতে করতে হয়। এই সড়ক দিয়ে অল্প সময় মধ্যে দিয়ে ঢাকা যাতায়াত করা যায় তাই এই সড়কটি সবাই বেছে নেয়। এতে চলাচলরত পরিবহনের পরিমান বেড়ে যায়।সেতুটি খুবই নাজুক অবস্থায় হওয়াতে ব্রিজের পার হবার সময় পরিবহন গুলো স্লোগতিতে পার হচ্ছে ২৪ ফিট সড়কটি ১২ ফিট ব্রিজ দিয়ে পার হবার সময় দুই পাশ দিয়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এই বিষয় আব্দুল হালিম নামে এক অটোচালক বলেন দীর্ঘ দিন ধরে এভাবেই চলছে। যার ফলে আগের মত সহজে যাত্রী নিয়ে পার হতে পারি না। দীর্ঘ সময় নিয়ে বসে থাকতে হয়। সারা দিনে ঠিক মত রোজের টাকা উঠাতে পারি না। ঠিক মত রোজে টাকা না উঠাতে পারলে সে দিন বাজার করা মুশকিল হয়ে যায়।রামচন্দ্রদী এলাকার সামেদ মিয়া বলেন, প্রথমে নতুন সেতুর কাজ দেখে ভালো লাগছিলো । এখনো এই সেতু এতো সময় নিয়ে কাজ করছে।  আমাদের যাতায়েত করতে সমস্যা হচ্ছে। ঢাকা যাবার প্রধান সড়ক হওয়ায় আমাদের এই সড়কের উপর নির্ভর করে চলতে হচ্ছে। সেতু নির্মঠু কাজের ঠিকাদার মাসুদ হাই টেক ইঞ্জিনিয়ারিং লিমটেড প্রতিষ্ঠানের ইঞ্জিনিয়ার মাসুদ রানা জানান, দুই বছরের মেয়াদে আমাদের কাজ দেয়া হয়েছে। পানির কারণে কাজে একটু দেরি হয়েছে। পালিংয়ের সময় নদীর পানি বাড়ার কারণে আমাদের কাজে সমস্যা হয়েছে এখন নদীর পানি কম আছে আগামী দুই মাসের মধ্যে কাজ শেষ হয়ে যাবে।এই অবস্থায় এলাকাবাসী দ্রুত নির্মঠু কাজ শেষ করার দাবি জানান সড়ক ও জনপথ, নারায়ণগঞ্জের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে ।এই বিষয় জানতে নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপদের (সওজ) উপÑবিভাগীয় প্রকৌশলী মো. সাখাওয়াত হোসেনের কার্যালয়ে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। পরে তার মুঠো ফোনে একাধিক বার ফোন দিয়েও পাওয়া যায়নি। এক পর্যায়ে মো. সাখাওয়াত হোসেনের মুঠোফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠালেও সংবাদ চলমান অবস্থায় তিনি কোনো প্রতিত্তুর দেন নাই।  

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ