কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আ'লীগ

সভাপতি হওয়ার জন্য গভীর মিশনে মাঈনউদ্দিন তুষার 

ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ১৭ বছরে নানা অনিয়মের তোকমা কাঁধে নিয়ে আওয়ামীলীগের সভাপতি হতে মোটা অংকের টাকার বাজেট নিয়ে মাঈনুদ্দিন তুষার। রাজনীতির চর্চাস্থল ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে ১৭ বছর থেকেও সংগঠনের স্বার্থে যাকে খুঁজে পাওয়া কষ্টকর ছিল। সাংগঠনিক নিয়মের আদোলে যার বিরুদ্ধে অভিযোগের পরিমাণ বিশাল। সাংগঠনিকভাবে একজন নিস্ক্রিয় মাঈনুদ্দিন তুষার পুনরায় সভাপতি হওয়ার খায়েশ হয়েছে।

ব্যর্থতার গ্লানীসহ টাকার বাজেট নিয়ে কমিটির সভাপতি পদের  জন্য আটঘাট বেঁধে নেমেছে তুষার আহমেদ। রাজনৈতিক চর্চাস্থলে একজন সংগঠনের জন্য বোঝা এখন সভাপতি পদের জন্য নানা কৌশল আটছেন। যে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নিস্ক্রিয় মাঈনুদ্দিন তুষার সেই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হতে মাঠে। বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম এ রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক কাজিম উদ্দিন প্রধানসহ জেলার শীর্ষ আংশিক নেতাকে টাকা দিয়ে পদ নিশ্চিত করার কৌশলে অনেকটা এগিয়ে মাঈনুদ্দিন তুষার আহমেদ।

বসন্তের কৌকিলের মত মাঈনুদ্দিন তুষার আহমেদ এখন সাংগঠনিক, সামাজিক ব্যাক্তি বা সমাজ সেবক হিসাবে বনে যাচ্ছেন। কলাগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের বাসিন্দা হলেও প্রবাসী জীবন যাপন ও ব্যবসাই যার মূল টার্গেট। ব্যবসায়ী হওয়ায় সংগঠনের দায়িত্ব পালনে হাজারো ব্যার্থতার গ্লানী থাকা মাঈনুদ্দিন তুষারের বিরুদ্ধে সংগঠন ব্যবস্থা না নিয়ে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ভুল করেছে। অপরদিকে তিনি যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের তুষার হতেন তাহলে ব্যবসায়িক কাজে প্রবাসে জীবন যাপন করা কালীন পদ থেকে পদত্যাগ করা উচিত ছিল বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের ত্যাগী রাজনৈতিক বৌদ্ধরা।  

বিভিন্ন মাধ্যমে তথ্য সূত্রে জানা গেছে,  বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হওয়ার জন্য বিশাল টাকার বাজেট নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন মাঈনুদ্দিন তুষার আহমেদ। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম এ রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক কাজিম উদ্দিন প্রধানসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের দলের শীর্ষ নেতা, শহর ওর্য়াডের শীর্ষ নেতাদের একটা অংশ তার পক্ষে কাজ করছে।  মাঈনুদ্দিন তুষার আহমেদের টাকার কাছে কি রাজনীতির বরপুত্ররা হেরে যাবে। দলের দূর সময়ের হাতিয়ার,  রাজপথ দখলে নেয়ার ক্ষমতা রাখে এমন নেতারা তুষারের টাকার কাছে পরাজীত হবে। তার টাকার দম্ভোক্তি ও হঠাৎ সমাজ সেবক বনে যাওয়া মাঈনুদ্দিন তুষারের ভূমিকাটি রহস্যঘেরা।

বন্দর উপজেলার ৫ টি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কাউন্সিল অচিরেই হতে যাচ্ছে।  এমন সংবাদ পাওয়ার পর থেকে মাঈনুদ্দিন তুষার প্রবাসী জীবন যাপন ও ব্যবসায়িক কাজের চেয়ে দলের পেছনে বেশি সময় দিচ্ছেন। আওয়ামীলীগ সহ দল, জাতীয়,  সামাজিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়াই অনেকটা এগিয়ে। খোঁজ খবর নিতে দেখা যায় দলের কোন নেতা হঠাৎ ঠান্ডা জনিত সমস্যায় পড়েছে শুনলেই  রাতের আধারে ছুটে যান তার বাড়িতে।  আবার সেগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেইসবুক)  ফলাও করে প্রচার চলছে।  দীর্ঘদিন যার খোঁজ মেলা ভার ছিল সেই তুষারের হঠাৎ আগমনকে ভাল দৃষ্টিতে দেখছেন না রাজনৈতিক মহল।  দলের একটি অংশকে মোটা অংকের টাকা দিয়ে সর্বত্র দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে তুষার।

দীর্ঘ দিনের রাজপথের সক্রিয় নেতারাও হতবাক হয়ে পড়ছে ছাত্রলীগের সেই তুষারের স্মৃতি করে।  দল, সংগঠন, জাতীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠান করার ক্ষেত্রে এগিয়ে মাঈনউদ্দিন তুষার। কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হওয়ার জন্য যা করার প্রয়োজন তাই করছেন। সকল অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে সুন্দর সুন্দর বক্তব্য দিচ্ছে। প্রবাসে জীবন যাপন করার কথা তিনি নিজেই বিভিন্ন সময়ে সাংবাদিকদের বলেছেন। 

কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি প্রার্থী ও সাবেক ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী আহমেদ তুষার মাঈনউদ্দিন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ণমূখী দেশ এগিয়ে নিতে সাধারন মানুষের কল্যানে কাজ করছেন। গরিব দুঃখী মানুষের ক্ষুধা নিবারনের জন্য কাজ করছেন। উদ্দেশ্য একটাই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়নে মহান আল্লাহ তালার সন্তুষ্টি ও মানুষের ভালবাসা অর্জনের জন্যই মানব কল্যানে কাজ করা। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের দুঃখ কষ্ট লাঘব করা।  আমার জীবনে চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। মৃত্যুর পূর্ব মূহূর্ত পর্যন্ত অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকে আরো এগিয়ে নিতে কাজ করে যেতে চাই। এজন্য সকলের সহযোগিতা চাই। হয়ত কেউ কেউ মনে করছেন রাজনীতিতে পদ পদবীর জন্য আমি মানুষের কাছাকাছি আসার চেষ্টা করছি। আসলে কোন উদ্দেশ্য নয়। আমি রাজনীতি করি ছাত্রজীবন থেকেই। জ্ঞান হওয়ার পর থেকেই দেখে এসেছি আমার পরিবার নৌকা মার্কায় ভোট দেয়। আওয়ামীলীগের সমর্থণ করে। ১৯৯৫তে আমি এসএসসি পাশ করে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়ি। পরে ২০০৫ সালে কলাগাছিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে দায়িত্ব পাই।  ১৫আগষ্ট বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে আমি প্রবাসে থেকেও আমার প্রিয় কলাগাছিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগ,যুবলীগ ও আ’লীগের নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ রেখে মিলাদ মাহফিলে ভারচুয়াল ভাবে যোগাযোগ করে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করার চেষ্টা করেছি। 

হঠাৎ দেশপ্রেম ও রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার জন্য তিনি প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমানের কথা বলতেও ভুল করেননি।  নারায়ণগঞ্জের গনমানুষের নেতা একেএম শামীম ওসমানের নির্দেশনায় বন্দর উপজেলা আ’লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা এমএ রশিদ ও সাধারন সম্পাদক কাজিম উদ্দিন ভাইয়ের অনুপ্রেরনায় আ’লীগের রাজনীতির সাথে সক্রীয় হয়েছি। সাংবাদিকদের বিভিন্ন সময়ে এমন বক্তব্যের মাধ্যমে নেতাকর্মীদের ধোঁয়াশায় ফেলছেন।  প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমানের নির্দেশনায় তিনি রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছেন এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে অনেকে বলেন শামীম ওসমান এমপি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান।  সব সময় শামীম ওসমানের মেসেজ থাকে তৃনমুলকে রাজনীতিতে সক্রিয় থাকতে। দীর্ঘদিন পর সামনে কাউন্সিল সভাপতি হওয়ার জন্য শামীম ওসমান এমপির নির্দেশ তার দৃষ্টিতে এসেছে।  তিনি অনেক সময় বলেন,মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। দলের জন্য কিছু করতে চাই। জীবনের বাকিটা সময় মানুষের কল্যানে কাজ করতে চাই। 

অভিযোগ রয়েছে, হাজী মাঈনুদ্দিন তুষার আহমেদকে সভাপতি করার বিষয়ে অনেক জটিলতা রয়েছে।  সেজন্য কাউন্সিল দিচ্ছে না। কাউন্সিল তালিকা করে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে দিয়েছে কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি আমিরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম কাশেম। তারা যে কাউন্সিলের তালিকা দিয়েছে তার বিরুদ্ধে ৯ টি ওর্য়াড থেকে জেলা আওয়ামীলীগের বরাবর লিখিত অভিযোগ করাচ্ছেন মাঈনুদ্দিন তুষার।  যে কোন উপায়ে মাঈনুদ্দিন তুষারের সভাপতি পদ লাগবে।  এতে যা করার তাই করতে প্রস্তুত তিনি। অপরদিকে দীর্ঘদিনের রাজপথের সক্রিয় নেতাদের প্রশ্নবিদ্ধ করার হীন প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন তিনি। ( পর্ব-১) 

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ