ফতুল্লায় যুবক খুনের ঘটনায় আরও  ২ জন গ্রেপ্তার

ফতুল্লায় যুবক খুনের ঘটনায় আরও  ২-জন গ্রেপ্তার ফতুল্লার ইসদাইরে মাদক সেবনকে কেন্দ্র করে মামুন (২২) নামক এক যুবককে ছুরিকাঘাত করে হত্যার ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আরে দুই জনকে গ্রেপ্তার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো ফতুল্লা মডেল থানার গলাচিপার মোশাররফের পুত্র তুহিন হাসান(১৮) ও একই থানার ইসদাই এলাকার কবিরের পুত্র মধু (১৮)। বুধবার রাত সাতটার দিকে তাদের কে চাষাড়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার(৫ ডিসেম্বর)  বিকেল পাঁচটায় ফতুল্লা মডেল থানার ইসদাইর স্টেডিয়াম সংলগ্ন নুর ডাইংয়ের পেছনের মাঠে। এ সময় আহত হয় নুরনবী (২১) নামক অপর এক যুবক। হত্যা কান্ডের একদিন পর নিহতের বাবা বাবুল হাওলাদার বাদী হয়ে এক নারী সহ ১৫ জনের নাম উল্লেখ্য করে এবং অজ্ঞাত নামা আরো ৪-৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে ফতুল্লা মডেল থানায়।তুহিন হাসান ও মধু গ্রেফতারের পূর্বে পুলিশ হত্যা মামলার এজাহার নামীয়  দুই আসামী বুলেট (২২)  ও স্বপন (২০) কে সোমবার রাতে গ্রেপ্তার করে। গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির (২) জানায়, মামলার এজাহারনামীয় গ্রেপ্তারকৃত দুই আসামী সামিউল ওরফে বুলেট ও স্বপনের স্বীকারোক্তি মোতাবেক তুহিন হাসান ও মধু কে বুধবার রাতে শহরের চাষাড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।হত্যাকান্ডের পরপর হাসপাতালে নিহতের বন্ধু শফিকুল জানায়,সোমবার বিকেল চারটার দিকে তাকে ফোন করে নিহত শফিকুল।ফোন করে তার বাসার পেছনে আসে নিহত মামুন। পরক্ষনেই আসে নিহত মামুনের বন্ধু আহত নুরনবী। এর কিছুক্ষন পরেই সাইফুল,পায়েল, জয় সাদ সহ ১০-১৫ জন মামুন এবং নুরনবীকে পেয়ে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। এতে দুজনই মারাত্নক আহত হয়। তাদের কে উদ্ধার করে শহরের খানপুর হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে মারা যায় মামুন। আশংকাজনকবস্থায় নুরনবীকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। তিনি আরো জানান, কোরবানী ঈদের পূর্বে বড় ভাই এবং ছোট ভাই নিয়ে মারামারি হয় সাইফুল গ্রুপের সাথে। সে সময় তা স্থানীয় বড় ভাইয়েরা মিমাংসা করে দেয়। আজ বিকেলেও নুরনবীর সাথে এদের কথা কাটাকাটি হয়।এর জের ধরেই এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটায়।আহত নুরনবী সাংবাদিকদের জানায়, ইসদাইর বাজারের পেছনের একটি মাঠে হামলাকারীরা গাঁজা সেবন করতো। আজ বিকেলে তা নিয়ে তাদের কে বকাঝকা করে মাঠ থেকে তাড়িয়ে দেয় নিহত মামুন। এনিয়ে সাইফুল- পায়েল গ্রুপের সন্ত্রাসীরা মামুন ও তাকে পেয়ে ছুরিকাঘাত করে।এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ইনচার্জ শেখ রিজাউল হক দিপু জানায়, হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। এজাহারনামীয় দুই আসামী সহ মোট চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।জড়িত অপর আসামীদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান। 

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ