ব্যাচেলর বাসায় যৌন ব্যবসা ও রমরমা মাদক ব্যবসা

আদমজী টাওয়ারে ব্যাচেলর ভাড়াটিয়ারাদের অপকর্মে ফুঁসে উঠছে এলাকাবাসী সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী এলাকার দশতলা আদমজী টাওয়ারে ব্যাচেলর ভাড়ার আড়ালে চলছে অসামাজিক কার্যকলাপ ও মাদক কারবারি। বেশ কিছু দিন ধরে কিছু মাদক কারবারি পোশাক শ্রমিক পরিচয়ে ব্যাচেলর বাসা ভাড়া নিয়ে গোপনে মাদক কারবারি পরিচালনা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। কিছু ব্যাচেলর আবার বিভিন্ন পোশাক কারখানায় চাকুরীর করে আদমজী টাওয়ারে বাসা ভাড়া নিয়ে নারী শ্রমিকদের বাসায় এনে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হচ্ছে। এসব অপকর্ম সম্পর্কে কোন খোঁজ-খবর রাখেন না ভবনগুলোর মালিকরা। তারা বাসা ভাড়া দিয়েই শান্ত। এরফলে নাশকতা সৃষ্টিকারী ও বিভিন্ন অপরাধীরা অপরাধ কর্মকান্ড সংগঠিত করে এখানে সাধারণ ছদ্মবেশে অবস্থান করে নিরাপদে পার পেয়ে যেতে পারেন। এদিকে এসব ব্যাচেলর ভাড়াটিয়ারাদের অপকর্মে যুব সমাজের অবক্ষয় ও অসামাজিক পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ায় ফুঁসে উঠছে এলাকাবাসী। নাম না প্রকাশের শর্তে তারা বলছেন, দ্রুত এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের ব্যবস্থা নেয়া জরুরী। অন্যথায় পরিবেশ আরও বিনষ্ট হলে এলাকার শান্তিশৃংখলা নষ্ট ও আইনশৃংখলার অবনতি ঘটতে পারে।  এছাড়াও তারা বলছেন টাওয়ার থেকে ব্যাচেলর সড়িয়ে শুধু ফ্যামেলি দেখে ফ্ল্যাট ভাড়া দেয়া হউক। এতে করে একটু শান্তিতে বসবাস করতে পারবেন তারা। জানা গেছে, আদমজী টাওয়ার নামে দুটি দশতলা ভবনের একাধিক মালিক রয়েছে। এসব মালিকরা বেশি অর্থের লোভে ভবনগুলোতে ফ্যামিলি ভাড়া না দিয়ে ব্যাচেলরদেরই বেশি ভাড়া দেন। এরপর তারা ব্যাচেলর ভাড়াটিয়াদের আর কোন ধরনের খোঁজ-খবর রাখেন না। কেয়ার টেকারদের কাছে ভাড়া তোলার দায়িত্ব দিয়ে বসে রয়েছেন। মালিক পক্ষের কোন তদারকি না থাকায় ব্যাচেলর ভাড়াটিয়া পরিচয়ে কিছু মাদক কারবারিসহ বিভিন্ন অপরাধ মূলক কাজে জড়িয়ে পড়ছে। এছাড়া বিভিন্ন পোশাক কারখানার কিছু কর্মকর্তা ব্যাচেলর বাসা ভাড়া নিয়ে নারীদের এনে নির্বিঘ্নে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হচ্ছে। এসব কাজে কোন ধরণের বাধাগ্রস্থ হচ্ছেনা কেউই। যার ফলে দিন দিন তাদের এসব অপকর্ম বেড়েই চলেছে।এদিকে এসব অপকর্ম বেড়ে যাওয়ার ফলে ফ্যামিলি ভাড়াটিয়ারা আতঙ্কে তাদের সন্তান ও পরিবার নিয়ে দিন কাটাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে একাধিক ফ্যামিলি ভাড়াটিয়া এসব অপকর্ম বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ফ্যামিলির কর্তা জানান, আদমজী টাওয়ার ১ ও ২ নামে দুটি ভবনে কয়েকটি ফ্ল্যাটে ১০/১২ জন করে ব্যাচেলর সদস্য ভাড়া দেওয়া হয়েছে। এদের অনেকেই মাদক সেবন ও কারবারির সাথে জড়িত। এছাড়া পোশাক শ্রমিকদের কিছু সদস্য দিনে-রাতে একাধিক নারীদের ফ্ল্যাটে এনে অসামাজিক কর্মকান্ডে লিপ্ত হয়। একাধিকবার আমরা এমন ঘটনায় আমরা কয়েকজনকে হাতেনাতে ধরেছি। কিন্তু মালিক পক্ষের এ ব্যাপারে কোন মাথা ব্যাথা নেই, তারা এস বিষয়েই যেন কর্ণপাতই করছেন না। তাদের কোন ধরণের পদক্ষেপ কিংবা তদারকি নেই।সর্বশেষ গত ৫ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে আদমজী টাওয়ার-২ এর ৯ তলা ভবনে পোশাক কারখানা এক কর্মকর্তা চাকুরী দেওয়ার কথা বলে দুই নারীকে তার ফ্ল্যাটে নিয়ে আসে। পরে আশেপাশের ভাড়াটিয়ারা টের পেয়ে তাদেরকে হাতেনাতে ধরে। পরে তারা ক্ষমা চাইলে তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়।এ বিষয়ে আদমজী টাওয়ারের মালিক মো. সবুজ শেখ দায় সারা কথা বলেন। তিনি বলেন, আপনারা এমন কর্মকান্ড থাকলে ধরেন, আমরা ব্যবস্থা নেব। তাছাড়া প্রতিটি ভাড়াটিয়াকে নোটিশ দেওয়া আছে, যাতে কোন ধরনের অপকর্মে কেউ না জড়ায়। আরেক মালিক ফিরোজ বলেন, আমি এ ব্যাপারে অবগত ছিলাম না। খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি, এ ধরনের কাজ হয়েছে। ভবনের কেয়ার টেকার ও দারোয়ানকে জিজ্ঞেস করে ব্যবস্থা নেবো।  

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ