১০ ডিসেম্বর ঘিরে চ্যালেঞ্জের মুখে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি

১০ ডিসেম্বর ঘিরে চ্যালেঞ্জের মুখে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে চ্যালেঞ্জের মুখে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। গণসমাবেশকে ঘিরে নতুন ও পুরাতন মামলায় নেতা-কর্মীদের বাড়িঘরে দিনে ও রাতে তল্লাশি চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। চালাচ্ছেন গণগ্ৰেফতার, আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে পরিবারগুলো। গ্রেপ্তার আতঙ্কে ঘরছাড়া নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। এরমধ্যে রাজধানীর নয়াপল্টন দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব মশিউর রহমান রনি, ফতুল্লা থানা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক আন্দুল খালেক টিপুকে গ্রেপ্তার করে পল্টন থানা পুলিশ। এসময় মাকসুদ মাসুম নামক আরো এক যুবদল নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া ারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবদল নেতা আরমান হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ এবং মহানগর যুবদল নেতা শরিফুল ইসলাম সজীবকে গ্রেপ্তার করেছে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ। ফলে মহাসমবেশে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী, সমর্থক ও সাধারণ মানুষের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। তার উপর বুধবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুরের পর থেকে দফায় দফায় রাজধানীর নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের এ্যাকশনে একজনের মৃত্যু ও অসংখ্যক নেতাকর্মী আহত হওয়ার ঘটনায় এবং সন্ধ্যার পর বিএনপি কেন্দ্রীয় বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তারের পর নতুন আতঙ্ক তৈরী হয়েছে নারায়ণগঞ্জের বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে। গ্রেপ্তার ও পুলিশী ঝামেলা এড়াতে যদিও আগে ভাগে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের অধিকাংশ নেতা ঢাকায় পৌছে গেছেন।বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশকে  কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি যাতে সংগঠিত হয়ে ঢাকার সমাবেশে যেতে না পারে সেজন্য নতুন করে মামলা ও গ্রেপ্তারের কৌশল নেয়া হয়েছে। গণসমাবেশে নারায়ণগঞ্জের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের অংশগ্রহণ বানচাল করতেই নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের সক্রিয় ও গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের পাশাপাশি জাতীয়তাবাদী সমর্থক পেশাজীবীদেরও মামলা দিয়ে হয়রানি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অসংখ্য নেতা- কর্মীকে গ্রেপ্তার করছে। নেতা-কর্মীদের আশঙ্কা ১০ ডিসেম্বর ঢাকার গণসমাবেশের আগে বাড়তে পারে আরও গ্রেপ্তার ও মামলা। এদিকে গত ১৭ নভেম্বর থেকে ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত জেলার সাতটি থানায় নতুন করে মোট ১১টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিস্ফোরক আইনে করা প্রতিটি মামলাতেই বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা আসামি হয়েছেন। এর মধ্যে আটটি মামলার বাদী পুলিশ এবং দু’টি মামলায় ছাত্রলীগের দুই কর্মী ও একটিতে শ্রমিক লীগের নেতা বাদী হয়েছেন। মামলার ১০৬৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় ৪০ জন নেতা কর্মীকে। বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে বিরাজ করছে গ্রেপ্তার আতঙ্ক।এদিকে গণসমাবেশকে কেন্দ্র করে মামলা- হামলা ও কঠোর বাঁধা আসবে-এমন আশঙ্কা মাথায় রেখেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠন গুলো। আর ১০ডিসেম্বরকে সামনে রেখে ব্যাপক হারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধরপাকড় হতে পারে। তাই গ্রেফতার এড়িয়ে গণসমাবেশের প্রস্তুতি নিতে হাইকমান্ড থেকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে দলীয় একটি সূত্রে জানা গেছে। জানাগেছে, ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় ‘ঐতিহাসিক’ গণসমাবেশকে  চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে প্রস্তুতি নিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। এই ঐতিহাসিক গণসমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের  প্রতিটি ইউনিট, থানা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে নেতাকর্মীদের নিয়ে দফায় দফায় প্রস্তুতিমূলক সভা করেছে । বিএনপি’র নেতাকর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরাও এসব প্রস্তুতি সভায় যোগ দিয়েছিলেন। এছাড়াও অঙ্গসংগঠন গুলোও গণসমাবেশকে সফল করতে পৃথক পৃথক ভাবে প্রস্তুতিমূলক সভা করেছে।এছাড়াও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে গণসমাবেশের প্রস্তুতি হিসেবে চেয়ারপার্সনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে ভিডিও কনফারেন্স করেছেন।  নারায়ণগঞ্জে ও ঢাকা বিএনপির পার্টি অফিসে ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের সাথে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন গুলোর সাথে দফায় দফায় প্রস্তুতিমূলক সভা ও মতবিনিময় সভা করেছে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। লক্ষ্যে একটাই গণসমাবেশকে সফল করা।প্রস্তুতিসভা গুলোতে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সুনির্দিষ্ট বেশ কয়েকটি সুপারিশ তুলে ধরেছেন। সমাবেশের দিন কারা কোথায় থাকবেন, কীভাবে সমাবেশে আসবেন সে ব্যাপারে দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়নি । তবে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডের সাথে আলোচনা করে গণসমাবেশের একদিন আগেই নির্দিষ্ট স্থান নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন গুলোকে জানানো হবে। এবং এই গণসমাবেশের আগে পরে কেউ মামলা হামলা শিকার হলে তাদের সকল দায় দায়িত্ব নারায়ণগঞ্জ বিএনপি বহন করবে বলে দলীয় সূত্রে জানায়।সূত্রে আরও জানা গেছে, ১০ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি পৃথক পৃথক ভাবে তাদের অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের নিয়ে ঢাকার গণসমাবেশে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া রয়েছে। গ্রেফতারের বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।বিএনপি নেতারা বলছেন, সব বিভাগীয় সমাবেশের চেয়ে ঢাকার সমাবেশে অধিক লোক জড়ো হবে। তবে নয়াপল্টনে বুধবার (৭ ডিসেম্বর)  বিকাল পর্যন্ত সমাবেশের অনুমতি দেয়নি প্রশাসন। এরপর আসবে পরিবহন ধর্মঘট, বিভিন্ন পয়েন্টে বাধা সৃষ্টি করা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে হয়রানি ও ধরপাকড়, নাশকতার আশঙ্কার প্রচারণা চালাচ্ছে ক্ষমতাসীনরা। এসব বিষয় মাথায় রেখেই সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে বিশেষ কৌশল অবলম্বন করবে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি। কৌশল হিসেবে বিএনপির নেতাকর্মীরা আগেভাগেই ঢাকায় সমাবেশের আশপাশে অবস্থান করছে। ১০ ডিসেম্বর নেতাকর্মীরা সমাবেশের বেশ কয়েকদিন আগেই নিরাপদ স্থানে অবস্থান নেবেন। যাতে সমাবেশে যেতে কোনো বাধার মুখে পড়তে না হয়। এছাড়া সমাবেশ চলাকালে বিএনপি নেতাকর্মীদের ছদ্মবেশে কেউ যাতে বিশৃঙ্খলা বা সংঘর্ষ বাঁধাতে না পারে সেদিকেও খেয়াল রাখবে বিএনপির বিশেষ টিম।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ