শীতলক্ষ্যায় সেতু হলেও

তবুও ভোগান্তি কমেনি বন্দরবাসীর

শীতলক্ষ্যায় সেতু হয়েছেতবুও ভোগান্তি কমেনি বন্দরবাসীরনিজস্ব প্রতিবেদক, বন্দর নারায়ণগঞ্জে বহুল প্রত্যাশিত ৩য় শীতলক্ষ্যা সেতু চালু হলেও ভোগান্তি কমেনি দুইপাড়ের মানুষের। সেতুতে যাতায়াত যথেষ্ট সুবিধা জনক না হওয়ায় অধিকাংশ যাত্রী চলাচল করে নদীপথে। ফলস্বরূপ, ভোগান্তি এখনো পিছু ছাড়েনি বন্দরবাসীর। এদিকে সেতুটি চালু হলেও নদীর দুই পাড়ে যাতায়াতের সু-ব্যবস্থা না থাকায় সেতুতে যান চলাচল তুলনামূলক কম। নদী পারাপারে যান চলাচলে ফেরি চলাচলই যাত্রীদের কাছে সুবিধা জনক বলে জানান দুই পাড়ের বাসিন্দারা। যান চালকদের অভিযোগ, শহর দিয়ে সেতু পর্যন্ত যেতেও শহরের ব্যাপক যানজট পোহাতে হয়। একই পরিস্থিতি বন্দরেও। সেতুর পূর্বপাশে মদনগঞ্জ থেকে মদনপুর পর্যন্ত সড়কটি খুবই সংকীর্ণ। এখানে হরহামেশাই যানজট লেগেই থাকে। ফলে সেতুতে চলে না আশানুরূপ যানবাহন। গত ১০ অক্টোবর ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেতুটি উদ্বোধনের পর কয়েকদিন সেতুতে যান চলাচল পর্যাপ্ত হলেও এখন আর চলছে না আশানুরূপ যানবাহন। শহর ও বন্দেরর যাত্রীরা যাতায়াতের সুবিধার্থে নদীপথেই চলাচল করে। পূর্বের ন্যায় বন্দর উপজেলার লাখ লাখ মানুষ নিত্যদিন নেীকা দিয়েই যাতায়াত করে। কারণ, যারা বন্দর থেকে শহরে আসেন তারা স্বল্প সময়ে নদী পথে চলাচল করে। এছাড়া যানজটের ঝামেলা এড়াতে যান চালকেরা ব্যবহার করছে ফেরি। প্রতিদিন ফেরিতে শত শত যানবাহন চলাচল করে।প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ মানুষ নৌপথে নৌকা ও ট্রলার দিয়ে নদী পারাপার হচ্ছে। যে সেতু হওয়ায় নদী পারাপার কমে শহর-বন্দরের মাঝে নৌ-দুর্ঘটনা হ্রাসের আশা করেছিল দুইপাড়ের মানুষ। তেমনটি আর হয়ে উঠেনি। সেতু চালু হওয়ার পরেও শহর ও বন্দরের মাঝে একাধিক নৌ-দুর্ঘটনা ঘটেছে। ঘটেছে প্রাণহানির মতো মর্মান্তিক ঘটনাও। সেতু চালু হওয়ার তিনদিন পরেই গত ১৪ অক্টোবর নবীগঞ্জ ঘাট থেকে ফেরার পথে ইঞ্জিন চালিত নৌকাডুবে তিন কিশোরের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন শহরের ডন চেম্বার  এলাকার বাসিন্দা শাওন, জিম ও রিফাত।অন্যদিকে অভিযোগ রয়েছে, আশানুরূপ টোল আদায় না হওয়ায় খরচ হ্রাসে সেতুতে রাতে বাতি বন্ধ করে রাখা হয়। পর্যাপ্ত আলো না থাকায় বাড়ছে দুর্ঘটনার আশঙ্কা। ঝুঁকি নিয়েই চলছে যান চলাচল। বাতি না থাকায় প্রায়ই সেতুতে ঘটছে দুর্ঘটনা। গত ১২ নভেম্বর রাতে সেতু পারাপারের সময় দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন সিমন নামের একজন যুবক।জেলার সচেতনমহলের মতে, শহর ও বন্দরের মানুষের নিয়মিত যাতায়াতের ভোগান্তি হ্রাসে প্রয়োজন কদম রসূল সেতু। জানা যায়, শীতলক্ষ্যা নদীর ওপর সদরের ৫নং ঘাট থেকে বন্দরের একরামপুরের ইস্পাহানি ঘাট পর্যন্ত এই সেতু হবে। মূলত নারায়ণগঞ্জের মূল শহরের সঙ্গে বন্দর এলাকাকে সংযুক্ত করতে প্রকল্পটি নেওয়া হয়েছিল। ২০১৮ সালের ৯ অক্টোবর একনেকের সভায় ৫৯০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ে কদম রসুল সেতু অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু সেতু নির্মাণের কার্যক্রম এখনো শুরু হয়নি। শুধুমাত্র জমি অধিগ্রহণ জটিলতার কারণে প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ শেষ। আইএমইডি প্রকল্পটির মেয়াদ বাড়ানোর সুপারিশ করে বলেছে, প্রকল্প পরিচালকের দেওয়া কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী প্রকল্পের সব অসমাপ্ত কার্যক্রম ২০২৫ সালের ৩০ জুনের মধ্যে শেষ করতে হবে। আমরা নারায়ণগঞ্জ বাসীর সভাপতি নুরুদ্দিন এই বিষয়ে বলেন, ৩য় শীতলক্ষ্যা সেতুর চালু ফলে বন্দর ও নারায়ণগঞ্জ শহরের মাঝে একটি বন্ধন হয়েছে ঠিকই। কিন্তু সেতুর পুরোপুরি সুফল পাচ্ছে না দুইপাড়ের সাধারন মানুষ। কারণ যান চলাচলের চেয়ে দুইপাড়ের জন চলাচল অনেক বেশি। যানজট ও বাড়তি দুরুত্ব এড়াতে প্রতিদিন সেন্ট্রাল ঘাট সহ অন্যান্য ঘাট দিয়ে লাখ লাখ মানুষ যাতায়াত করে। কদমরসূল সেতু নির্মিত হলে এই ভোগান্তি অনেকাংশে কমবে। শহরের কাছাকাছি হওয়ায় দুইপাড়ের মানুষের চলাচলে অনেক সুবিধা হবে।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ