ঢাকাসোমবার , ৬ মার্চ ২০২৩
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

ক্যামব্রিয়ানের ২ শিক্ষার্থীর মৃত্যু : দ্বায়ভার কার ?

আবু বকর সিদ্দিক
মার্চ ৬, ২০২৩ ৬:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পিকনিকে গিয়ে মেঘনা নদীতে দশম শ্রেনীর ২ ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যূর ৯ম তম দিনে শিক্ষার্থী আর অভিভাবকদের সমালোচনার মুখে প্রধান ফটকে শোকের ব্যানার টানিয়েছে ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজের নারায়ণগঞ্জ শাখা। ঘটনার পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষনা তো দূরের কথা , মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনার নূন্যতম দ্বায়ভার নিতেও রাজি নন স্কুলটির কর্তৃপক্ষ। উল্টো দোষ চাপানোর চেষ্টা করা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের উপরই। নারায়ণগঞ্জ ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেনীর ছাত্র শাহরিয়ার ইসতিয়াক শামস ও সুস্মিত সাহার এই মৃত্যু মেনে নিতে পারছেনা তাদের পরিবার ও সহপাঠীরা।গত ২৩ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার এমভি প্রিন্স কামাল-১ জাহাজে করে নারায়ণগঞ্জ ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজের পিকিনিকে সকল শিক্ষার্থী, শিক্ষক আর অভিভাবকরা নদীপথে গিয়েছিলেন চাদপুরের মোহনপুর ইকো রিসোর্টে। নাচে গানে মাতোয়ারা শিক্ষার্থীদের এই আনন্দ স্থায়ী হয়নি বেশীক্ষন। সেখানে গিয়েই মিনি কক্সবাজার নামে খ্যাত মরণফাঁদে গোসলে নামে শিক্ষার্থীরা। কয়েক মিনিট পরেই নদীর পানিতে তলিয়ে যায় দশম শ্রেনীর ছাত্র শাহরিয়ার ইসতিয়াক শামস ও সুস্মিত সাহা। ঐদিন সন্ধ্যায় লাশ পাওয়া যায় শামসের আর ৩দিন পর একই স্থানে মেলে সুস্মিতের লাশ।মর্মান্তিক এই ঘটনার পর থেকেই স্কুল কর্তৃপক্ষ মাঠে নামেন নিজেদের গাফিলতি আর উদসীনতাকে ঢাকতে ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে দোষ চাপানো হয় শিক্ষার্থীদের উপর। বলা হয় বারণ করা সত্ত্বেও তারা ঐ রিসোর্টের নদীতে নেমেছিল। কর্তৃপক্ষ বলে আসছিলেন তাদের বারণ সত্যেও তারা মোহনপুর রিসোর্টের মিনি কক্সবাজারে গোসলে নামে। নিজদের এই দ্বায় এড়াতে ক্যামব্রিয়ান কর্তৃপক্ষ এতটাই ব্যস্ত হয়ে পরেছিল যে, নিজেদের প্রতিষ্ঠানের ২শিক্ষার্থীর এমন মৃত্যুর ঘটনায় প্রধান ফটকে একটি শোক ব্যানার পর্যন্ত টানানো হয়নি। দুর্ঘটনার পরের দিন শুক্রবার ও শনিবার নিয়ম অনুসারে স্কুলটি বন্ধই ছিল। আর রবিবার যথারীতি স্কুল খোলার পর পুরো স্কুল ছুটি ঘোষনা তো দুরে থাকুক মৃত শামস ও সুস্মিতের নিজ ক্লাশেই চলছিল পাঠদান। বন্ধু সহপাঠী সামস ও সুস্মিতকে হারিয়ে শোকাহত তার সহপাঠিরা। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায় মূলত ক্যামব্রিয়ান স্কুল কর্তৃপক্ষ কোন শোক প্রস্তাব করে স্কুল বন্ধ রাখেনি। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি সরকারী ছুটির দিন শুক্রবার ও শনিবার স্কুল বন্ধ করে শোক পালন করেন তারা। অভিযোগ আছে ক্যামব্রিয়ান স্কুলের কো-অর্ডিনেটরের দায়িত্বে থাকা বিশেষ পেশার একজন বিষয়টি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকার অফিসে তদবীর করেন। গণমাধ্যমের মুখ বন্ধ করার জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষের হয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে ওই এদিকে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় নারায়ণগঞ্জের আলো অনুসন্ধানে গেলে নানান অসঙ্গতি নিয়ে প্রশ্ন করার পর টনক নরে ক্যামব্রিয়ান কর্তৃপক্ষের। ঘটনার ৯ দিন পর শোক জানিয়ে স্কুলটির মূল ফটকে শাহরিয়ার ইসতিয়াক শামস ও সুস্মিত সাহার স্মরণে দুইটি ব্যানার সাটানো হয়।এদিকে ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের নানা গাফলতি ও উদাসীনতার বিস্তর অভিযোগ জানালেন ওই স্কুলের সাবক ও বর্তমানে পড়ুয়া দুই শিক্ষাথীর বাবা। ক্যামব্রিয়ান স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী আজিজুজ্জামান তালহার বাবা আনিসুজ্জামান টিটিু নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, শহরের ৯০ শতাংশ শিশু সাঁতার জানেন না। তাদের উচিৎ ছিল যার সাঁতার জানে এবং না জানে তাদের তালিকা তৈরী করা। এবং তাদের জন্য লাইফ জ্যাকেটের ব্যবস্থা করা।ক্যামব্রিয়ান স্কুলের আরেক শিক্ষার্থী লাবন্য আক্তার তানহার বাবা মো. ওমর ফারুক বলেন, ক্যামব্রিয়ান আমাদের কাছ থেকে প্রতি মাসে ১১ হাজার টাকা করে নেন। আমার বক্তব্য হল তারা চাঁদপুরের মোহনপুর রিসোর্টে পিকনিকে গেলেন, তাদের উচিৎ ছিল এই বিষয়ে একটি আহ্বায়ক কমিটি করে সেই স্পটে যেয়ে ঝুঁকিগুলো চিহ্নিত করে তা সমাধানে পদক্ষেপ নেওয়া। আর এর আগে গত দুই বছরই সেই মিনি কক্সবাজার খ্যাত মৃত্যুফাঁদে দুই শিশু মারা গেল। ক্যামব্রিয়ান কর্তৃপক্ষ কেন এই বিষয়গুলো খতিয়ে দেখলেন না। তারা নিয়ম করলেন, মেয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে অভিভাবক যাওয়া বাধ্যতামূলক, আর ছেলে শিক্ষার্থীর জন নয়। আসলে সব বাচ্চারা কী ম্যাচিউর? তারা আমাদের বলতেন, আমরা বাচ্চাদের সাথে লাইফ জ্যাকেট দিয়ে দিতাম। এত টাকা মাসে ওদের দিতে পারলে পাঁচ-সাতশ টাকা দিয়ে কী লাইফ জ্যাকেট দিতে পারতাম না। এখানে আসলে তাদের উদাষীনাতার করনেই আজকে দুইটি প্রাণ হারিয়ে গেল। আরেকটি বিষয় হল, ক্যামব্রিয়ান এত অল্প সংখ্যক শিক্ষক নিয়ে এত বড় আয়োজন কেন করলেন। তারা চাইলে ভলান্টিয়ার ভাড়া করতে পারতেন। গোণলের জায়গায় রেস্কিউ পারসন হায়ার করতে পারতেন। মূলত নিহত দুই শিক্ষার্থীর অভিভাবকদের কেউ আইনী প্রক্রিয়ায় না যাওয়ায় তারা বিষয়টিকে এখনো তেমন গুরুত্ব দিচ্ছেন না। যদি তারা তাদের দায়িত্ব ঠিকঠাক পালন করতে না পারেন তবে অন্যের বাচ্চাদের নিয়ে এত বড় ঝুঁকি নেওয়ার কোন মানে হয় না। নিহত সুস্মিত সাহার বাবা সুধাংসু সাহার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি আইনী প্রক্রিয়ায় যাইনি, আসলে সুস্মিতকে কি আর ফিরে পাওয়া সম্ভব? আজকে সুস্মিত ও শামসকে হারানোর পর স্কুল কর্তৃপক্ষ এবং মোহনপুর রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ সচেতন হয়েছেন। এই দিনটি জীবনে আসবে এটা কখনো ভাবিনি। আজকে হারিয়ে তাদের টনক নড়লো কর্তৃপক্ষের। দুই দুইটা শিক্ষার্থী মারা গেল, অথচ একদিন স্কুল বন্ধ করলেন না। দুই গজ কাপড়ের দাম একশ টাকা, একটা ব্যানার লাগালেন না। ঘটনার ৯ দিন পর আমার ছেলের এক সহপাঠীর বাবা আমাকে ৫ মার্চ (রোববার) ফোনে জানালেন ক্যামব্রিয়ান স্কুল গেটে সুস্মিত ও শ্মসের ছবি দিয়ে শোক জানিয়ে ব্যানার লাগিয়েছেন। আসলে এখন এটাই সান্তনা যে আমাদের সন্তান মারা যাওয়াতে অন্তত কর্তৃপক্ষ সজাগ হয়েছেন!গাফলতির অভিযোগ এনে শারিয়ার ইসতিয়াক শামসের বাবা জাহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনার দিন যখন বাচ্চারা পানিতে নামে সেখানে কেন কোন শিক্ষক থাকলেন না। আর তারা সেখানে গোসলের ব্যবস্থা করেছে, কিন্তু রেস্কিউ কিংবা কোন ধরণের সেফটি রাখলেন না কেন? বাচ্চারা পানিতে গেলে লাফালাফি ঝাপাঝাপি করবে এটাই স¦াভাবিক। তদের সেখানে আরো কেয়ারিং হওয়া উচিৎ ছিল। সেখানে যদি কোন রেস্কিউ পার্সন কিংবা সেফটির জন্য সাঁতার না জানাদের জন্য লাইফ জ্যাকেট থাকতো তবে হয়তো এই ঘটনাই ঘটতো না।শাহরিয়ার ইসতিয়াক শামসের মা শ্যামলী আক্তার শ্যামা নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, ঘটনার দিন স্কুলের স্যারেরা যখন আমার ছেলের ব্যাগ দিতে আমাদের বাসায় এসেছিলেন। আমি শুধু তাদের কাছে জানতে চেয়েছিলাম যে, ঢাকায় অনেক ভাল ভাল পিকনিক স্পট ছিল। আপনারা বাচ্চাদের নিয়ে এত দুরে নদীপথে কেন গেলেন? তারা আমার কথার কোন জবাব দিতে পারেনি। মাথা নিচু করে চুপ করে দাড়িয়ে ছিল।এদিকে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় স্কুল কর্তৃপক্ষ দায় এড়াতে পারে কিনা এমন প্রশ্নের সদুত্তর মিলেনি। শাহরিয়ার ইসতিয়াক শামস ও সুস্মিত সাহার শ্রেণী শিক্ষক (বাংলা) ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের নারায়ণগঞ্জ শাখার আবদুল্লাহ আল মামুন জানালেন আমরা কেবল সেই স্পটে গিয়ে পৌছেছি। তখনো সব স্টুডেন্ট রিসোর্টে প্রবেশ করেনি। আমরা যে সব গুছিয়ে আমাদের পজিশন নিব সেই সময়টুকুও পাইনি। মূলত সময়ের ব্যাত্যয়ের কারণেই এত বড় দুর্ঘটনা ঘটেছে।দুইটি তাজা প্রাণ হারিয়ে গেল, অথচ ক্যামব্রিয়ান কর্তৃপক্ষ একটি শোক ব্যানার লাগানে হলোনা কেন? নারায়ণগঞ্জের আলোর এমন প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রিন্সিপাল আব্দুল কাইউম বলেন, ঘটনার পর থেকে টানা এক সাপ্তাহ আমরা প্রতিদিন স্কুল প্রাঙ্গনে তাদের আত্মার শান্তি চেয়ে কুরআন খানি সহ দোয়ার আয়োজন করেছি। আমরা নিহতের পরিবারের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রেখেছি। শোক জানিয়ে স্কুল বন্ধ রাখলেন না কেন এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, শুক্রবার ও শনিবার অর্থাৎ সরকারী বন্ধের দিন স্কুল বন্ধ রেখে শোক পালন করেছে ক্যামব্রিয়ান স্কুল।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।