ঢাকাশনিবার , ৮ জুলাই ২০২৩
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবজাতকের নাকের পর্দা ছিড়ে ফেলার অভিযোগ

আবু বকর সিদ্দিক
জুলাই ৮, ২০২৩ ৪:৫৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নারায়ণগঞ্জে প্রো-এক্টিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নবজাতক শিশুর নাকের পর্দা ছিড়ে ফেলার অভিযোগ করেছেন রোগীর স্বজনরা। হাসপাতালটির নিউনেটাল ইনসেন্টিভ কেয়ার ইউনিটে (এনআইসিইউ) ওই ঘটনা ঘটে।শনিবার (৮ জুলাই) সন্ধায় নবজাতকের পিতা রাসের সরকার ঢাকা পোস্টকে এমন অভিযোগ জানান।নবজাতকের পরিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গত ২২ জুন রাসেল ও সোমা দম্পতির নবজাতক শিশুকে শ্বাসকষ্ট জনিত জটিলতা নিয়ে নারায়ণগঞ্জের প্রো-এক্টিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে আনা হয়। এখানে আসার পর ওই নবজাতকের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে লাইফ সাপোর্টে ভর্তির জন্য সুপারিশ করেন চিকিৎসক ডা. জাহিদুল হাসান। লাইফ সাপোর্টে নবজাতকের অক্সিজেন সর্বরাহের জন্য চিকিৎসক সি-পাপ মেশিন লগানোর পরামর্শ দেন। সেই সি-পাপ মেশিন লাগানোর সময় নবজাতকের নাকের পর্দা ও নাকের জোড়া ছিড়ে যায়।এই বিষয়ে নবজাতকের পিতা রাসেল সরকার বলেন, আমার বাচ্চাকে এখানে আনার পর লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়। চলতি মাসের ১ তারিখ বাচ্চাকে লাইফ সাপোর্ট থেকে এনআইসিইউতে পাঠান চিকিৎসক জাহিদুল হাসান। বাচ্চার অবস্থা কিছুটা উন্নতি হলে আমার স্ত্রী তাকে বুকের দুধ খাওযাতে যেয়ে দেখেন তার নাকের জোড়া ছেড়া। অথচ সাত দিন গত হলেও চিকিৎসক কিংবা হাসপাতার কর্তৃপক্ষ কেউই আমাদের এই বিষয়ে জানাননি। আজকে আমরা যখন চরে যাব সিদ্ধান্ত নেই তখন তারা এই বিষয়ে কোন সুরাহা না দিয়ে উল্টো আমাদের হাতে ছিয়াশি হাজার টাকার লম্বা বিল ধরিযে দিয়ে তা পরিশোধ করার জন্য চাপ দেন। পরে অবশ্য অবস্থা বেগতিক দেখে তারা বত্রিশ হাজার টাকা ছাড়ের ব্যবস্থা করেছেন। কিন্তু আমি ছাড় দিয়ে কি করবো? আমার বাচ্চার যে ক্ষতি হলো তারা সেটা ঠিক করে দিক।এই বিষয়ে প্রো-এক্টিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) মো. রাশিদুল ইসলামের মাধ্যমে এনআইসিইউর দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. জাহিদুল হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে প্রথমে তিনি এই নিয়ে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিতে রাজি হন নি। পরে তিনি আগামিকাল সরাসরি আসার অনুরোধ করেন।এদিকে ডা. জাহিদুল হাসানের বরাতে হাসপাতালের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. রাশিদুল ইসলাম বলেন, আসলে বাচ্চটির খুব মুমূর্ষু অবস্থায় আমাদের একানে এসেছিল। অপ্রাপ্ত বয়সে জন্ম ও শ্বাসকষ্টসহ নানা শারীরিক জটিলতা ছিল। লাইফ সাপোর্টে ভর্তির সময় সি-পাপ মেশিন লাগানের সময় তার নাকের জেড়া ছিড়ে যায়। বাচ্চাদের শরীর অনেক বেশি নরম ও সংবেদনশীল হওয়ায় এই সমস্যাটি হয়েছে। অনেক বাচ্চাদের ক্ষেত্রেই এমনটি হয়। এটি সাধারণত ছয়মাস বয়স থেকে নিজে থেকেই পুনরায় জোড়া লেগে যায়। তবে এমনটি না হলে সেক্ষেত্রে প্লাস্টিক সার্জারির প্রয়োজন পড়ে। নাক ছিড়ে যাওয়ার বিষয়টি গোপন রাখা ও হাসপাতালের বিল পরিশোধের জন্য চাপ দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আসলে বাচ্চাটির লাইফ সাপোর্টের রোগী ছিল। আমরা তাকে রিকভার করার সর্বাত্মক চেষ্টা করেছি বিধায় সে কিন্তু এখন অনেকটাই সুস্থ্য। বিষয়টি গোপন রাখা হয়েছে এমন নয়, হয়তো সঠিক সময়ে তাদের জানানো হয়নি। আমরা ওই নবজাতককে বাঁচানোর দিকে গুরুত্ব দিয়েছি। আর বিল পরিশোধের জন্য চাপ দেয়া হয়নি। আমরা নবজাতকের পিতার আর্থিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে তার বিল থেকে বত্রিশ হাজার টাকা ছাড়ের ব্যবস্থা করে দিয়েছি। তিনি স্বাভাবিক ভাবেই আমাদের হাসপাতাল থেকে বিদায় নিয়েছেন।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।