ঢাকামঙ্গলবার , ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

পুতিনের সম্ভাব্য উত্তরসূরী রুশ প্রতিরক্ষা

আবু বকর সিদ্দিক
সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১ ৩:৪৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ রিপোর্ট:

২০০০ সালে রাশিয়ার প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। টানা চার মেয়াদে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করা পুতিনের বয়স এখন ৬৯ ছুঁই ছুই। দেশটির পার্লামেন্ট তাকে ২০২৪ ও ২০৩০ সালে দুই মেয়াদে আরও ছয় বছর দায়িত্ব পালনের সুযোগ করে দিয়েছে। তবে পুতিন এখনও ২০২৪ সালের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতার সিদ্ধান্ত নেননি। অনেকেই তার সম্ভাব্য উত্তরসূরী কে এবং কখন হবেন তা নিয়ে বিশ্লেষণ করছেন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। ক্রেমলিনপন্থী বিশ্লেষকরা এমনকি বর্তমান মন্ত্রিসভা থেকে সম্ভাব্য কারও নাম উচ্চারণ করতেও অস্বীকৃতি জানাচ্ছেন। মস্কোর একটি থিংকট্যাংক সেন্টার ফর ইনফরমেশনের প্রধান আলেক্সেই মুখিন বলেন, অবশ্যই আমি গোপন নথিতে এই বিষয়ে অনেকবার লিখেছি। কিন্তু প্রকাশ্যে তাদের নাম উচ্চারণ করিনি।

তিনি জানান, পুতিনের অবসর বা মৃত্যুর পর ক্রেমলিনে তার সম্ভাব্য উত্তরসূরীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হবে। তার মতে, এটি পুতিনের বিষয় না। এটি হলো জনগণের স্বার্থে তালিকাটি একেবারে শেষ সময় পর্যন্ত গোপন রাখা। প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার চেষ্টার পর ২০১৯ সালে রাশিয়া ছাড়তে বাধ্য হওয়া পুতিনবিরোধী অ্যাক্টিভিস্ট সের্গেই বিজুইকিন বলেন, পুতিন খুবই সন্দেহ প্রবণ ও গোপনীয় চরিত্রের। এমনকি তিনি যদি কাউকে উত্তরসূরী হিসেবে শনাক্ত করে থাকেন উপযুক্ত সময়ের আগে তা প্রকাশ করবেন না।

তিনি আরও বলেন, অবশ্য বেঁচে থাকতে ক্ষমতা হস্তান্তরের বিষয়টি পুতিন ভাবছেন না বলেই আমরা ধারনা। স্বৈরশাসকরা আগামীতে কী ঘটবে তা নিয়ে তোড়াই কেয়ার করে। পুতিনের সঙ্গে প্রতিরক্ষা প্রধান সের্গেই শোইগু পুতিনের সঙ্গে প্রতিরক্ষা প্রধান সের্গেই শোইগু এরপরও কয়েকজন পর্যবেক্ষক পুতিনের সম্ভাব্য উত্তরসূরী হিসেবে প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগুকে বিবেচনা করছেন। তিনি রুশ মন্ত্রিসভায় সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করছেন এবং পুতিনের পর দ্বিতীয় জনপ্রিয় ব্যক্তি। শোইগুকে কুটিলতায় ভরপুর একজন মানুষ হিসেবে মনে করা হয়।

তার প্রথম নাম রুশ হলেও তিনি তুর্কিভাষাভাষী একজন বৌদ্ধ। চীন সীমান্তের কাছে তুবা নাম প্রদেশে তার জন্ম। এই অঞ্চলটিতে রাশিয়ার মধ্যে খুন ও আত্মহত্যার হার সর্বোচ্চ। তুবার অনেক বুদ্ধিজীবী তাকে মঙ্গল জেনারেল সুবেদেই-এর নতুন রূপে আবির্ভূত হওয়া বলে বিবেচনা করেন। আট শতাব্দী আগে সুবেদেই-এর সেনাবাহিনী রাশিয়া ও ইউক্রেনে বিধ্বস্ত হয়েছিল।

দুর্যোগমন্ত্রী হিসেবে ১৯৯০ দশকে কাজ শুরু করেন শোইগু। মন্ত্রণালয়টিকে কার্যকর, সামরিক কাঠামোতে রূপান্তর করেন তিনি। পুতিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগেই তিনি সব রাজনৈতিক তালিকায় ছিলেন। ২০১২ সালে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে মুক্ত গণতন্ত্রপন্থী হিসেবে মনে করা হত। কিন্তু তার হাত ধরেই ক্রেমলিনের সব সাফল্য ক্রিমিয়াকে নিজেদের অঙ্গীভূত করা এবং সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ ক্ষমতায় ঠিকিয়ে রাখার সাফল্য অর্জিত হয়।

২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে পার্লামেন্ট ভোটের আগে পুতিন তাকে ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টির পোস্টার হিসেবে মনোনীত করেন। ৬৬ বছরে শোইগুকে প্রায় পুতিনের সঙ্গে মাছ ধরা ও শিকারে যেতে টিভিতে দেখা যায়। এটিকে সম্ভাব্য উত্তরসূরী হিসেবে নির্বাচিত করার প্রতীকী কর্মকাণ্ড হিসেবে মনে করা হচ্ছে। জার্মানির ব্রেমেন ইউনিভার্সিটির এক গবেষক নিকোলাই মিত্রোখিন বলেন, শোইগুর ভালো সুযোগ রয়েছে অন্য যে কারও তুলনায়।

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।