মাদক, টেন্ডার,ঝুট,ডিস সবাই তার দখলে

সিঙ্গাপুরে সম্পদের পাহাড় রুহুলের !

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার বিরুদ্ধে অভিযোগের যেন শেষ নেই। চাঁদাবাজী, মাদক ব্যবসা, ভূমি দস্যুতা, ঝুট সেক্টর নিয়ন্ত্রনসহ সাধারণ মানুষকে হয়রানির ভুরি ভুরি অভিযোগ তার বিরুদ্ধে । কিন্তু তার নিজস্ব বাহিনীর ভয়ে সেসব অভিযোগের খুবই কমই কাগজে কলমে থানা পর্যন্ত পৌছতে পেরেছে। কিন্তু আসন্ন নির্বাচনে সেইসব অভিযোগের জবাব ব্যালটের মাধ্যমে দেয়ার কথাই জানাচ্ছেন ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। যার ফলে আগামী নির্বাচনে পরিবর্তন চাচ্ছে ৮নং ওয়ার্ডবাসী। সর্বশেষ গত ১৯ জুলাই কাউন্সিলর রুহুলের বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করছেন এনায়েতনগর পশ্চিম পাড়া বায়তুল আমান জামে মসজিদের মোতাওয়াল্লী ও সাধারণ সম্পাদক মো. এমরান হোসেন।

সিঙ্গাপুরে সম্পদের পাহাড় রুহুলের !

ঢাকা সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জগলুল হোসেন মামলাটি আমলে নিয়ে ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টে তদন্তের জন্য পাঠিয়েছেন। মামলার ঠিক দুইদিন আগে ১৭ জুলাই কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার সহযোগী মমিনুল আলম পুষণ ওরফে বাবা পুষণকে (৩৩) মাদক মামলায় গ্রেফতার করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এলাকাবাসী জানায়, একাধিক মামলার আসামী বাবা পুষণ কাউন্সিলর রুহুলের ছত্র ছায়ায় পশ্চিম এনায়েতনগর ও লাকী বাজার এলাকায় জমজমাট ইয়াবা ও জুয়ার আসর চলে আসছে দীর্ঘদিন যাবত। প্রায় ৬/৭ মাস আগে কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা’র আপন বড় ভাই খোকন মোল্লা এক ভিডিও বার্তায় দাবী করেছিলেন, কাউন্সিলর রুহুল আমিন মাদক ব্যবসা করেন।

সিঙ্গাপুরে সম্পদের পাহাড় রুহুলের !
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার বিরুদ্ধে অভিযোগের যেন শেষ নেই। চাঁদাবাজী, মাদক ব্যবসা, ভূমি দস্যুতা, ঝুট সেক্টর নিয়ন্ত্রনসহ সাধারণ মানুষকে হয়রানির ভুরি ভুরি অভিযোগ তার বিরুদ্ধে । কিন্তু তার নিজস্ব বাহিনীর ভয়ে সেসব অভিযোগের খুবই কমই কাগজে কলমে থানা পর্যন্ত পৌছতে পেরেছে। কিন্তু আসন্ন নির্বাচনে সেইসব অভিযোগের জবাব ব্যালটের মাধ্যমে দেয়ার কথাই জানাচ্ছেন ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। যার ফলে আগামী নির্বাচনে পরিবর্তন চাচ্ছে ৮নং ওয়ার্ডবাসী। সর্বশেষ গত ১৯ জুলাই কাউন্সিলর রুহুলের বিরুদ্ধে সাইবার ট্রাইব্যুনালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করছেন এনায়েতনগর পশ্চিম পাড়া বায়তুল আমান জামে মসজিদের মোতাওয়াল্লী ও সাধারণ সম্পাদক মো. এমরান হোসেন।

৮নং ওয়ার্ডে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কাউন্সিলর রুহুলের পক্ষে খোকন মোল্লা হিসাব রাখতেন এবং মাদক ব্যবসার টাকা রুহুলের হাতে পৌঁছে দিতেন। খোকন মোল্লার সেই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছিল। খোজ খবর নিয়ে জানা গেছে, ৮নং ওয়ার্ডের সিটি কর্পোরেশনের সকল টেন্ডার কাজেরই নিয়ন্ত্রন করেন রুহুল আমি মোল্লা। নিজস্ব ঠিকাদার দিয়ে এসব কাজ করিয়ে থাকেন তিনি। যদি বাইরের কোন ঠিকাদার তার ওয়ার্ডে কাজ করতে যান বা কাজ পেয়ে থাকনে তবে গুনে গুনে পারসেন্টেজ দিতে হয় তাকে। বিষয়টি সিটি কর্পোরেশনের শীর্ষ মহলের সকলের জানা থাকলেও রুহুলের জন্য যেন সাত খুনও মাফ।

সিঙ্গাপুরে সম্পদের পাহাড় রুহুলের !

এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রুহুল আমি মোল্লা একদিকে মেয়র আইভীর ঘনিষ্ঠ হয়ে যেমন টেন্ডার নিয়ন্ত্রন করেন, ঠিক তেমনি এলাকার ঝুট সেক্টর নিয়ন্ত্রন করতে তিনি বনে যান শামীম ওসমান এমপির লোক। ৮নং ওয়ার্ডসহ আশপাশের সকল গার্মেন্টের ঝুট সেক্টও নিয়ন্ত্রন করেন রুহুল আমিনের লোকজন। সেখানে মাদক ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে বিএনপির লোকজনও আছেন। জানা গেছে, রুহুল আমিন গত ১০বছরে গড়েছেন সম্পদের পাহাড়। তবে এদেশে নয় তিনি এসব সম্পদ রেখেছেন সিঙ্গাপুরে। এলাকাবাসী ও বিশস্ত সূত্র জানায়, রুহুল আমিন প্রবাসী এক মহিলাকে বিয়ে করেছেন যিনি সিঙ্গাপুর থাকেন। শোনা যায় সেখানকার নাগরিকত্বও রয়েছে রুহুল আমিনের নামে, যা তিনি প্রকাশ করেন না।

রুহুল আমিনের ঘনিষ্ঠ একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন, সিঙ্গাপুরে রুহুলের আলিশান বাড়ী রয়েছে। রয়েছে একাধিক ফ্ল্যাট, দোকান ও ব্যবসা। ঐ সূত্র জানান, রুহুল খুবই ধুর্ত প্রকৃতির মানুষ। তাই সম্পদ এখান থেকে কামিয়ে তিনি বিদেশে সম্পদ কিনছেন। তবে রুহুল আমিন সকল অভিযোগ অস্বিকার করে জানিয়েছেন, দেশের বাইরে তার কোন সম্পদ নেই। তিনি মাদক, টেন্ডার , ডিস ব্যবসার সাথে কোনকালেই জড়িত ছিলেননা। তবে নাগরিকত্ব বা পারমানেন্ট রেসিডেন্ট কার্ড(পিআর কার্ড) রয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের কোন জবাব দেননি তিনি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ