নানা কারণে এসেছে পরিবর্তনের দাবি

আইভীতে আস্থাহীন নগরবাসী

#জঞ্জালমুক্ত নগরী চায় নগরবাসী

# আইভীর বহুরূপ সকলের কাছে স্পষ্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরশেনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর সমর্থকদের দাবি ‘তিনি ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন’। তবে এই জনপ্রিয়তা কোন বিশেষ গুন বা কাজের জন্য নয়, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের একটি প্রভাবশালী পরিবারকে কোনঠাসা করতেই আইভীকে বেছে নিয়েছিলেন সরকার ও আওয়ামী লীগ বিরোধী শক্তি। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে পর পর ৩ বার পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনে জয়ী হয়েছিলেন আইভী। এমন কি দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে আওয়ামী লীগের একটি অংশ, বিএনপি, জামায়াতের নেতা-কর্মীরাও আইভীর পক্ষে কাজ করেছেন।

আওয়ামী লীগের ওই অংশটি নিজেদের বঞ্চিত দাবি করে বিশেষ সুবিধা ভোগ করতে আইভীকে বেছে নিলেও ফলাফল শুণ্য। অপরদিকে বিএনপি-জামায়াতের যে বিশাল অংশ আইভীর জন্য এতোদিন কাজ করে এসেছেন তারাও ক্ষুব্ধ বিরক্ত। কেননা দলের ভেতরে বাইরে বারবার জার্সি বদল করে দীর্ঘ ১৮ বছর ক্ষমতায় থাকা আইভীর কাছে লাঞ্চনা বঞ্চনা আর অপমান ছাড়া কেউ কিছুই পায়নি তারা। যা পেয়েছে নিজের ঘনিষ্ঠ ‘ঠিকাদার সিন্ডিকেট’, এমন অভিযোগ এক সময়ের আইভী ঘনিষ্ঠ অনেকের।

এমন কয়েকজন জানান, নির্বাচনের পূর্বে আইভীর রূপ একরকম থাকে, নির্বাচনের পর হয়ে যায় তার ঠিক উল্টো। নির্বাচিত হওয়ার পর বিশেষ ঠিকাদার সিন্ডিকেট আর কতিপয় চাটুকারদের দিকে ঝুঁকে পড়েন তিনি। অন্য কাউকে চিনেন না। তাই আসন্ন সিটি নির্বাচনে আইভীর হয়ে জীবন বাজী রেখে যারা কাজ করেছেন তারা অনকে দূরে সরে গেছেন। বিএনপির নির্দিষ্ট কয়েকটি অপরাধী ও সন্ত্রসী পরিবার এবং কয়েকজন কাউন্সিলর ছাড়া আইভীর নাম শুনতে পারেন না বিএনপির তৃণমূল।

তাছাড়া হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে ‘ঘৃণার পাত্রী’ তিনি। তার পরিবারের বিরুদ্ধে শত কোটি টাকার দেবোত্তর সম্পত্তি গ্রাস করায় অভিযোগে এমন ঘৃণা ও ক্ষোভ। ডিআইটি, চাষাড়া, মাসদাইর এলাকায় মসজিদ ও মাদ্রাসার জায়গা দখলকে কেন্দ্র করে সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের সাথে চরম উত্তেজনা রয়েছে তার। ডিআইটি মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল আউয়ালের সাথে আইভীর কৌশলে কথোকোপনের অডিও ফেইসবুকে ছেড়ে দোষী চিহিৃত করার চেষ্টা ক্ষত সৃষ্টি করেছে আলেম-ওলামোদের মাঝে।

এছাড়া নিজদল আওয়ামী লীগের বৃহৎ অংশের নেতা-কর্মীদের মামলা দিয়ে আগেই কুপোকাত করেছেন আইভী। সম্প্রতি বিভিন্ন ওয়ার্ডে কর্মীসভাগুলোতে দলীয় নেতা-কর্মীদের সেই ক্ষোভ ফুটে উঠেছে। এসমস্ত কারণে আইভীর জনসমর্থন এখন শুণ্যের কোটায়। নিজ দলেরতো বটেই, অন্য দলের এবং বিভিন্ন সংগঠনের কাছেও গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছেন তিনি। আইভীর বহুরুপ এখন সকলের কাছে স্পষ্ট।

এদিকে সাধারণ নগরবাসীও মেয়র আইভীর উপর ক্ষুব্ধ। জন্ম নিবন্ধন থেকে শুরু করে সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন সেবা পেতে হয়রানী, উন্নয়ণের নামে ঠিকাদার সিন্ডিকেট দিয়ে কোটি কোটি টাকা লুটপাট, সরকারী সংস্থা ও সাধারণ মানুষের জায়গা-জমি দখল, মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসা, দরগাহ’র জমি দখলের চেষ্টা, বড় বড় উন্নয়ণের স্বপ্ন দেখিয়ে জনগনের কাধে ট্যাক্সের বোঝা, সরকার ও বিদেশী দাতা সংস্থার অর্থ নিজস্ব ঠিকাদার সিন্ডিকেট দিয়ে লুটপাট, যানজট নিরসণে কোন পদক্ষেপ নেই, নেই বাজার ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য ও শিক্ষায় অবহেলা, সব বিষয় এখন নগরবাসীদের মুখে মুখে।

আর তাই ভিন্ন কারণে হলেও এক সময় জনপ্রিয়তা পাওয়া মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী প্রায় সকলের আস্থা হারিয়েছেন। বিভিন্ন মহল থেকে তাই পরিবর্তনের দাবি উঠে এসেছে। অন্য যে কেউ হোক ১৮ বছরের জঞ্জালমুক্ত নগরী চায় নগরবাসী।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ