বন্দরে খাদ্য মন্ত্রী

না খেয়ে কেউ মারা যায়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বন্দর

করোনা ক্রান্তিকাল অতিক্রম করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশে কোথাও কোন মানুষ না খেয়ে মারা যায়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিচক্ষণতা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে আজ বাংলাদেশ আজ খাদ্যে সংসম্পুর্ণ। এখন বাংলাদেশ একটি সমৃধ্য সোনার বাংলাদেশ। কৃষক বাঁচাতে ন্যায্য মূল্য প্রদানে, দূর্যোগ মোকাবেলায় ও খাদ্যের সুষম বন্টন নিশ্চিত করতে খাদ্যের মজুদ বাড়াতে হবে। এছারাও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য বান্ধব কর্মসুচীর সুবিধাভোগীদের সেবা কার্যক্রম আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। এদেশে না খেয়ে কেউ মারা যায়নি।

রবিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের বন্দরের ইকরামপুর ইস্পাহানী সিএসডি এলাকায় মডার্ণ ফুড স্টোরেজ ফেসিলিটি প্রোজেক্ট (এম এফ এস পি) এর আওতায় ‘কনস্ট্রাকশন অব স্টিল সাইলো ফর রাইস, নারায়ণগঞ্জ’ এর উদ্বোধনের পূর্বে স্বাগত বক্তব্যে খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এ কথা বলেন।

খাদ্য মন্ত্রী বলেন, কাজের কোয়ালিটির সাথে খাদ্য মন্ত্রনালয় কোন কম্প্রোমাইস করবেনা। কাজের কোয়ালিটি যেন সঠিক হয়, ভাল হয় ও মানসম্মত হয় সেদিকে বিশেষ মনযোগী হতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও জেলা প্রশাসনকে নজরদারী করার বিশেষ নির্দেশনা দেন তিনি।

দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে ও দূর্যোগ মোকাবেলায় আধুনিক পদ্ধতিতে খাদ্যশস্য সংরক্ষণের এক নতুন অধ্যায়ে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ। তাপমাত্রা ও আদ্রতা স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম স্টিল রাইস সাইলো নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এ ধরনের সাইলোর বিশেষত্ব হল এটি অধিক ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এবং সংক্রিয় পদ্ধতিতে কিট নিয়ন্ত্রণের মধ্যমে খাদ্যশস্যর গুণগত মান বজায় রাখে। এর ফলে কোন ধরনের রাসায়নিক পদার্থ প্রয়োগ ছাড়াই খাদ্যশস্যর গুণগত মান তিন বছর পর্যন্ত অক্ষুন্ন থাকে।

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে সারাদেশে ৬টি প্যাকেজে ৮টি বিশ্ব মানের স্টিল রাইস সাইলো নির্মাণ করছে সরকার। এর মধ্যে ডাব্লিউ-২৩ এর আওতায় একটি আধুনিক খাদ্য সংরক্ষনাগার নির্মিত হচ্ছে দেশের প্রধান নদী বন্দর ও শিল্প-বাণিজ্যের নগরী নারায়ণগঞ্জের বন্দরের ইস্পাহানি সিএসডি এলাকায়।

খাদ্য মন্ত্রনালয়ের অধিনস্ত খাদ্য অধিদপ্তরের মডার্ণ ফুড স্টোরেজ ফেসিলিটি প্রোজেক্ট (এম এফ এস পি) এর আওতায় ‘কনস্ট্রাকশন অব স্টিল সাইলো ফর রাইস, নারায়ণগঞ্জ’ নামের এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে সময় নেয়া হবে ২ বছর। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ থেকে ১৩সেপ্টেম্বর ২০২৩ পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়নকাল বলে প্রকল্প চুক্তিসূত্রে জানাগেছে। ৩শত ২০কোটি ২৩লক্ষ ৪৯হাজার ৪০টাকা ব্যয়ে ৪৮ হাজার মেট্রিকটন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এই আধুনিক সাইলো নির্মাণের ফলে খাদ্য শস্য সংরক্ষণে যেমন যোগ করবে বার্তিমাত্রা তেমন আসবে আমূল পরিবর্তন।

সাইলোর কার্যক্রম শুরু হলে খাদ্যশস্য সংগ্রহে সরকারি ক্রয় অভিযানে আরও গতিশীলতা বাড়াবে। এই সাইলোতে আধুনিক পদ্ধতিতে খাদ্য শস্য সংরক্ষণ করা হবে এবং নাইট্রোজনের মাধ্যমে খাদ্যশস্যর মান বজায় রাখা হবে। সাধারণ গুদাম গুলোতে ছয় মাস খাদ্যশস্য সংরক্ষণ করা গেলেও আধুনিক এই পদ্ধতিতে তিন বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যাবে বলে জানিয়েছে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, বিশ্ব ব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় খাদ্য মন্ত্রণালয় ও খাদ্য অধিদপ্তরের আধুনিক খাদ্য সংরক্ষণাগার নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ৩শত ২০কোটি ২৩লক্ষ ৪৯হাজার ৪০টাকা ব্যায়ে নারায়ণগঞ্জের বন্দরে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে স্টিল রাইস সাইলো নির্মাণ কাজ প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

এ কাজের জন্য চলতি বছরের ১৪নভেম্বর কনফিডেন্স ইনফ্রাস্ট্রাকচার লিমিটেড ও দ্যা জিএসআই গ্রুপ এলএলসি, ইউএসএ এর সাথে জয়েন্ট ভেঞ্চারে এ চুক্তি সম্পাদন হয়েছে। জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহের সাভাপতিত্বে আলোচনা সভা শেষে একটি কন্সট্রাকশন পাইল ও ভিত্তিপ্রস্তরের শুভ উদ্বোদন করেন খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী গাজী গোলাম দস্তগীর বীরপ্রতিক, নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান, খাদ্য মন্ত্রনালয়ের সচিব ড. নাজমানারা খানুম, খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ মজিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, র‌্যাব-১১’র সিইও তানভীর মোহাম্মদ পাশা ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ