ইব্রাহিম মোল্লার নিন্দা

নিজস্ব প্রতিবেদক: নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রার্থীর পক্ষে কাজ করায় ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসমাঈল হোসেনের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে গুরুতরভাবে রক্তাক্ত জখম হয়েছেন তিনি। গত ১৩ নভেম্বর শনিবার বিকেলে চর সৈয়দপুর এলাকায় বর্ণালী গার্মেন্টসের সামনে তার ফার্মেসির দোকানে এই ঘটনা ঘটে। প্রবীন এই আওয়ামীলীগ নেতার উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন গোগনগর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ইব্রাহিম মোল্লা।

এই বর্বরোচিত ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়ীদের সর্ব্বোচ্চ শাস্তির আওতায় এনে বিচার দাবি করে ইব্রাহিম মোল্লা বলেন, ইসমাঈল মুন্সি একজন সাধারণ মানুষ ও একজন প্রবীণ আওয়ামীলীগার। উনি একজন সুবক্তা, একজন ধার্মিক মানুষ একজন গ্রহনযোগ্য ব্যক্তিত্ব। উনি ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি। তিনি সারা জীবন আওয়ামীলীগের জন্য মাঠে ময়দানে কাজ করেছেন।

২০০৪/২০০৫ এই সময়টায় আমাদের সাথে রাজনীতির মাঠে ছিলেন যখন নারায়নগঞ্জে কেউ আওয়ামীলীগ নাম নিতে পারতোনা, মামলা-হামলায় জর্জড়িত হয়ে অনেক নেতা নারায়নগঞ্জ ছেড়ে পালিয়েছিলেন, তখন এই রাজপথে এই মুন্সিকে নিয়ে আমরাই আন্দোলন করেছি।
আমার নেত্রীকে যখন বন্দি করা হলো তখন এই মুন্সিকে নিয়ে আমরা রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করেছি পুলিশের মার খেয়েছি। তারপরও বিভিন্ন নেতা কর্মীদের নিয়ে আমাদের নেত্রীকে মুক্ত করেছি। যাক, বললে অনেক কিছু বলার আছে তা আপনারা জানেন।

সর্বোপরি ইসমাইল মুন্সি একজন ভাল লোক ও গ্রহনযোগ্য ব্যক্তিত্ব। আজ যারা ইসমাঈল মুন্সির উপর বর্বর হামলা চালিয়ে তাকে রক্তাক্ত জখম করেছেন- তাদের উদ্দেশ্য আমি কিছু বলতে চাই, আমরা আওয়ামী পরিবারের সদস্য। আর যারা এই হামলা চালিয়েছেন তারা কোন ভাবেই আওয়ামী পরিবারের লোক হতে পারে না, তাই আমি একজন আওয়ামীলীগার হিসাবে এই হামলার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই পাশাপাশি এই হামলার সুষ্ঠু বিচারের দাবি করছি।

ইব্রাহিম মোল্লা আরও বলেন, আজ যারা এই মুন্সির উপর বর্বর হামলা চালিয়েছে তারা হলো চর সৈয়দপুরের সাবেক মেম্বার দৌলত হোসেনের পুত্র আবুল কাশেম গং। দৌলত মেম্বার একজন বিতর্কিত লোক তার নামে অসংখ্য মামলা রয়েছে এর মধ্যে হত্যা, গুম, খুন, ধর্ষণ, মাদক মামলা উল্লেখযোগ্য। দৌলত মেম্বারের পুত্র আবুল কাশেম গংরা এমন কোন অপকর্ম নেই যা তিনি করেনি এর মধ্যে হত্যা, গুম, খুন, জায়গা জমি দখল, মাদক বিক্রিসহ এলাকার প্রভাব বিস্তার মারামারি হানাহানি সবরকম অপকর্ম তাদের ধারা সম্ভব।

তাই আমি আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সবার দৃষ্টি আকর্ষন করছি এখনই সময় এদের হাত থেকে ইসমাঈল মুন্সির মত নিরীহ লোকদের রক্ষা করার জন্য এগিয়ে আসুন নয়তো সামনে আরো বিপদ হতে পরে। আমি মাননীয় এমপি মহোদয় একেএম সেলিম ওসমান, আমার রাজনৈতিক গুরু একেএম শামীম ওসমান ও বর্তমানে গোগনগর ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফজর আলি এবং প্রশাসনের কাছে আমার আকুল আবেদন এদেরকে আইনের আওতায় এনে কঠোর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হউক।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ