প্রশাসনকে শামীম ওসমান

‘সামনের সীটে আ’লীগকে রাইখেন’

নিজস্ব প্রতিবেদক, বন্দর

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান প্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, আমাদের অনেক বড় পরীক্ষা আমাদের হয়তো দিতে হবে। তাই প্রশাসনের লোকজনদের বলবো সামনে সিটে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের জন্য চেয়ার রাইখেন। কারণ সামনে তারাই থাকবে তারাই রক্ত দেবে রাজপথে থাকবে। লড়াই তারাই করবে, আঘাত যখন আসবে প্রতিঘাত আওয়ামী লীগই করবে।

নারায়ণগঞ্জ অনেক ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা আছে। ৭১ এর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দেয়া হচ্ছে। ৭৫ এর পর যারা জীবন দিয়েছেন নূর হোসেনরা তাদেরকে অনুদান না দেয়া হলেও তাদের নামের তালিকা প্রকাশ করা উচিত নয়তো কোন একদিন দেখা যাবে তাদের নাম সন্ত্রাসীদের তালিকায় চলে এসেছে।

রোববার (১৪ নভেম্বর) বিকালে বন্দরের নবীগঞ্জের সিএসডি ক্যাম্পাসে নারায়ণগঞ্জে আধুনিক ও বড় আকারের খাদ্যগুদাম নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর ও কাজের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী এমপি।

শামীম ওসমান বলেন, এখন সবাই আওয়ামী লীগ। এখন তো গাছের পাতায় পাতায় আওয়ামীলীগ। পরগাছারা যেভাবে ঝাকিয়ে বসছে তাতে আসল গাছ আর সামনে আসতে পারেনা। এখন সর্বস্তরে দেখি আমাদের উপদেশ দেয়, দিক নির্দেশনা দিতে চায়। সবাই বলে শুধু আপা আছে। যেভাবে শুধু আপা আপা আপ ঝপে এভাবে যদি আল্লাহকে ডাকতো তাহলে বোধহয় আল্লাহ বেহেশতের দরজা খুলে বলতো আয় বেশী দেরিছ করিস না। তাই সকলকে বলছি ষড়যন্ত্র আরো হবে। নারায়ণগঞ্জে নির্বাচন গেছে অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছিল, লাশের রাজনীতির চেষ্টা হয়েছিল। প্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাব সকলের সহযোগিতায় দলীয় নেতাকর্মীদের ধৈর্য্যের কারণে ও চেষ্টায় তা রুখে দেয়া সম্ভব হয়েছে।

শামীম ওসমান বলেন, ১৯৮১ সালে যেদিন জাতির পিতার কন্যা ৩১ বছর বয়সে দেশে ফিরে এসেছিলেন এত মানুষ সেদিন কোথায় ছিল। নারায়ণগঞ্জের মাটিতে ৮১ থেকে ৯৬ পর্যন্ত ৪৯ টা ছেলের লাশ মাটিতে দাফন করেছি। ৯৫ থেকে ৯৬ ১ বছরে ১২ জনকে জীবন দিতে হয়েছিল জাতির পিতার কন্যাকে প্রধানমন্ত্রী করার জন্য। স্লোগান দিয়েছিল শুধু একটা জয় বাংলা। আমার ছোট ভাই মনির ২১ দিন আগে বিয়ে হয়েছিল তার বুকের মধ্যে গুলি করা হয়েছিল। পাপ্পুকে হত্যা করা হয়েছিল চাষাঢ়ার রাস্তার মোড়ে। সেদিন পুলিশ আমাদের উপর গুলি চালিয়েছিল। আমরা রাজপথে ছিলাম। আমরা কারো বিরুদ্ধে স্লোগান দেইনি। সেই লাশ নিয়ে যাবার সময় লাশের উপর গুলি করা হয়েছিল। সেই লাশ নামিয়ে ৭৫ টা ছিটা গুলি আমরা বের করেছিলাম। দাফন দিতে পারিনি কবরস্থানে। ঢাকা নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের মসজিদের পাশে গিয়ে দাফন দিতে হয়েছিল।

শামীম ওসমান বলেন, ৭৫ এর ১৫ আগস্টের কথা মনে পড়ে। পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী সেদিন কাউকে মারেনি, মেরেছে মোস্তাক বাহিনী। মোস্তাকরা এখনো ভেতরে বাইরে খুব সক্রিয়। তিন পুরুষ ধরে সংসদ সদস্য আমরা, দাদা বাবা আমরা। ২১ বার হত্যার চেষ্টা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীকে। ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলার তিনি মারা গেলে আজ বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থাকতোনা, আমরা থাকতাম না।

জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (গ্রেড-১) শেখ মুজিবর রহমান। আরো উপস্থিত ছিলেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোছাম্মাৎ নাজমানারা খানুম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ