বদলে যাওয়া শামীম ওসমান…

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ রিপোর্ট

২০০১ সালের তীব্র গরমের দিনটি জীবনগল্পের অন্যতম দিন হিসেবেই বিবেচিত হবে। কারণ সে দিনেই অপ্রত্যাশিত এক ঘটনা দেখে জীবনটাই বদলে ফেলে রাজপথ কাপাঁনো নেতা শামীম ওসমান। জীবন বদলে যাওয়া সেই ঘটনাই তরুণদের মাঝে রোববার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে বন্দরের এক অনুষ্ঠানে তুলে ধরেছেন আজকের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতা শামীম ওসমান নিজে-ই।

শামীম ওসমান বলেন, আজ থেকে ২১ বছর আগের কথা, ২০০১ সালের একদিনের একটি ঘটনা। আমার রাজনীতির পরিবর্তন এসেছে। সেদিন প্রচন্ড গরম পড়ে ছিল, নিঃশ্বাস নিতেই কষ্ট হচ্ছিল। আড়াইহাজারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা শেষ হয়েছে, ঘামে পুরো শরীর ভিজে আছে। আমি এসে পড়বো। এমন সময়ই এসএসএফের একজন এসে আমাকে বলছেন, স্যার, আপনাকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ডাকে। আমি গেলাম।

আমি বললাম, আপা আমাকে ডেকেছেন? উনি বললেন, হ্যা। আমি ডেকেছি। সকালে কিছু খাইনি, শরীরটা খুব খারাপ লাগছে, তুমি আমার সাথে যাবে একটু? আমি বললাম কোথায়? তিনি বললেন, চান্দিনা। আমি বললাম, এই শরীরে? তিনি বললেন, কিচ্ছু হবে না। চল যাই। এর মধ্যে হেলিকাপ্টারে উঠবো। গ্রামের কিছু বৃদ্ধ বৃদ্ধ মানুষ দূর থেকে দেখছে। বৃদ্ধ নারীদের শরীরে ব্লাউজ নাই। শিশুদের কেউ পেন্ট পড়েছে, কেউ পড়ে নাই। দূর থেকে হাত নাড়ছে। বাচ্চা গুলো হাসিনা হাসিনা বলে চিৎকার করছে। তখন হঠাৎ করে আপা ইউর্টান নিলেন, নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেতে না করছিলেন। তখন আস্তে করে প্রধানমন্ত্রী বললেন, সরে যাও। এড়া আমাকে মারবে না। আমাকে কারা মারবে, আমি জানি।

শামীম ওসমান বলেন, পিছে পিছে আমিও গেলাম। যাওয়ার পরে মহিলা গুলো বুকে জড়িয়ে ধরলো উনাকে। অবাক হয়ে দেখলাম, একটা মায়ের কাছে মেয়ে যেমন মাথা পেতে দেয়, একই ভাবে উনিও মাথাটা পেতে দিয়েছেন। ওই বৃদ্ধা লোক গুলো উনার মাথায় হাত দিয়ে দোয়া করলো, উনি মাথা পেতে দিলেন। আসার পথে বাচ্চা গুলো হাসিনা, হাসিনা বলে চিৎকার করছিলেন। উনি পিছন দিকে তাঁকিয়ে মুচকি হাসলেন। হেলিকাপ্টার উঠে গেলো, গায়ে ঘামের গন্ধ, তাই দূরে বসলাম। উনি বললেন, সামনে আসো। সামনে গিয়ে বসলাম, দেখলাম, চোখ দিয়ে পানি ঝড়ছে আর মুখি মিষ্টি একটা হাসি। আমি অবাক হলাম, বয়স কম ছিল, যা ইচ্ছা তাই বলতাম।

জিজ্ঞাস করলাম, আপা আপনি কাঁদেন না হাসেন? তখন প্রধানমন্ত্রী বললেন, শামীম দেখো। ওই মহিলা গুলো যখন বুকে জড়িয়ে ধরে না, তখন মনে হয়, আমার মা কবর থেকে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরেছে। এই বৃদ্ধ বৃদ্ধ লোক গুলো যখন আমার মাথায় হাত দিয়ে দোয়া করে, তখন আমার মনে হয়, আমার বাবা বলছে, মা তুই ভয় পাবি না, আমার দোয়া তোর সাথে আছে। আর শিশুরা যখন হাসিনা-হাসিনা বলে ডাকে, তখন মনে হয়, ছোট ভাই শেখ রাসেল আমাকে হাসু আপা, হাসু আপা বলে ডাকছে।

তিনি বলেন, এ দৃশ্য আমার জীবনের রাজনীতি বদলে দিয়েছে, আমার জীবনের মূলমন্ত্র বদলে দিয়েছে। রাজনীতি মানে আগে বুঝতাম, স্লোগান দেওয়া, মানুষের হাতের তালি নেওয়া। এখন রাজনীতি মানে বুঝি ইবাদত, মানুষের দোয়া নেওয়া। এখানে কি হবে আমি জানি না, একটাই জিনিস আমি জানি, আপনাদের মধ্যে জাতির পিতার কন্যা তাঁর মা, বাবা, ছোট ভাই ও আত্মীয়দের খুঁজে পায়।

প্রসঙ্গত, সেন্ট্রাল স্টোরেজ ডিপো (সিএসডি) ক্যাম্পাসে রাইস সাইলো এবং প্রিমিক্স কার্নেল ফ্যাক্টরি নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত তরুণ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে কথা গুলো বলেছেন তিনি।এসময় নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী এবং খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোসাম্মৎ নাজমানারা খানুম।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ