মৃত্যুপুরীর সঙ্গে বসবাস

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ রিপোর্ট
নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার লালখা মোড় সড়ক। যে সড়কটি ছিল মানুষের পদারচণায় ও কোলাহলে মুখরিত। হঠাৎ পাঁচতলা একটি ভবনের নিচতলার ফ্ল্যাটে বিকট শব্দে বিষ্ফোরণের পর নিস্তব্ধ হয়ে পড়েছে পুরো এলাকা। ক্ষতিগ্রস্থ ভবনগুলোর আশপাশে নেই মানুষের চলাচল। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত তিন জনের মৃত্যু হয়েছে।
এদিকে বিস্ফোরণের পর ক্ষতিগ্রস্থ ভবন ধসে পড়ার শঙ্কায় পাশের বাড়ি ছাড়ছেন লোকজন। তবে বিকল্প ব্যবস্থা না করতে পেরে মৃত্যুর ভয় নিয়েই মৃত্যুপুরীর পাশের ভবনগুলোতে বাস করছেন অর্ধশতাধিক মানুষ।
ফতুল্লার লালখাঁর মোড়ে সাবেক ইউপি সদস্য মোক্তার হোসেনের পাঁচ তালা ভবনের নিচতলায় জমে থাকা গ্যাস বিষ্ফোরণে তার নিজ ভবনসহ ৩টি ভবন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। বিষ্ফোরিত ভবনের নিচতলার ৫টি ঘরের দেওয়াল চূর্ণবিচুন্ন হয়ে যাওয়ায় ভবনটি নড়বড়ে হয়ে গেছে। পিলারও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এতে ভবনটির অবস্থা আশঙ্কাজনক, বাশের খুঁটির ভরে দাড়িয়ে আছে ভবনটি। যেকোন মুহুর্তে ভবনটি ধসে পড়ার আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। পুনরায় ভয়াবহ দুর্ঘটনা এড়াতে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র যাচ্ছেন বিষ্ফোরিত ভবনের পাশ^বর্তী মানুষ। দুর্ঘটনা এড়াতে প্রশাসনের কাছে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেছেন এলাকাবাসী।
শুক্রবার (১২ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টায় ভবনে বিষ্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এ সোমবার (১৫ নভেম্বর) পর্যন্ত ৩জনের প্রাণহানি ও ৭ জন আহত হয়েছে। ঘটনার দিন ভবনটি সিলগালা করে দেন দায়িত্বরত প্রশাসনিক কর্মকর্তারা এবং পাশ^বর্তী ৩টি ভবনের বাসিন্দাদের সরিয়ে নেন। ধসে পড়ার ঝুঁকি এড়াতে ভবনের পিলারের স্থানে বাঁশ দিয়ে ঠেস দেওয়া হয়েছে।
এদিকে ভবনের ভিত্তি নড়ে যাওয়ায় আতঙ্কিত পাশ^বর্তী ভবন মালিকেরা। বিষ্ফোরিত ভবনের পাশ^বর্তী ভবনের স্বত্ত্বাধিকারী মোহাম্মদ ডালিম। তিনি বলেন, আমার নিজের বাড়ি। এখন হঠাৎ করে বাড়ি ছেড়ে কোথায় যাবো। মৃত্যু থাকলে তো কিছু করার নাই। কিন্তু পরিবারের জন্য ভয় পাচ্ছি। আমার বাড়ির পাশের অনেকই চলে গেছে। যারা ব্যবস্থা করতে পারে নাই, তারা আমার মতো অনেকেই মৃত্যুর ভয় নিয়েই বাস করছে। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ বিলম্ভ না করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করুন। নয়তো আবারো কোন একটা ভয়াবহ ঘটনার সম্মুখীন হতে পারি আমরা এলাকাবাসী।
গ্যাস লিকেজ থেকে ভবনে বিস্ফোরণ ঘটতে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। এ ঘটনার তদন্তে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রহিমা খাতুনকে আহ্বায়ক করে ৭ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।
তদন্ত কমিটির সদস্যপদে রয়েছেন জেলা গনপূর্তবিভাগের প্রতিনিধি। জেলা গনপূর্তবিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন এ বিষয়ে বলেন, আমাদের প্রতিনিধি বিষ্ফোরিত ভবনটি পরিদর্শন করেছে। প্রতিবেদনের কাজ শুরু হয়েছে। আলোচনা সাপেক্ষ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।
নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফীন বিষ্ফোরিত ভবন প্রসঙ্গে বলেন, আমাদের তদন্ত চলছে । তদন্ত পরবর্তী ভবনের ঝুঁকির প্রসঙ্গে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রহিমা খাতুন বলেন, তদন্ত কমিটির সকল সদস্য তাদের পরিদর্শন অনুযায়ী রিপোর্ট করবে। আগামী বৃহস্পতিবার কমিটির সদস্যদের নিয়ে মিটিং এর পরে এই ভবনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ