সিদ্ধিরগঞ্জে ২ নং ওয়ার্ডে সন্ত্রাসী তৎপরতা, জিম্মি সাধারণ মানুষ


নিজস্ব প্রতিবেদক:

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জের ২নং ওয়ার্ডের মিজমিজি মাদ্রাসা রোড এলাকার একটি চিহ্নিত সন্ত্রাসী বাহিনীর কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে এলাকাবাসী। তারা রীতিমত সাধারণ মানুষের ঘুম হারাম করে তুলেছে। এলাকায় চাঁদাবাজি, হামলা, মারধরসহ নানা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও মহড়া দিয়ে বেড়াচ্ছে বাহিনীর সদস্যরা। সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদেরকে নানানভাবে হুমকি ধামকির মাধ্যমে রীতিমত জিম্মি করে রেখেছে। কারণে অকারণে মানুষের উপর হামলা, মারধর করে জখম করার মত সকল সন্ত্রাসী কার্যক্রম করছে তারা প্রকাশ্যে।

কাউন্সিলর ইকবালের ক্যাডার বাহিনীর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে মোক্তার (ভগ্নিপতি, ভূমিদস্যু), জসিম, পলাশ, সায়েম খান অরবিল, জামান, মাসুম, মহিউদ্দিন, গিয়াস উদ্দিন, শারজাহান। এরমধ্যে অরবিল আইনশৃংখলাবাহিনীর হাতে গ্রেপ্তারও হয়েছিল। গত শুক্রবার (১২ নভেম্বর) ঢাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের পলাশ নামে এক ছাত্র মিজমিজিতে তার বোনের বাসায় বেড়াতে আসে। রাত ১১টার দিকে হাটাহাটি করতে বাসার বাইরে বের হয় সে।

এসময় মিজমিজি মাদ্রাসা রোডস্থ বুকস গার্ডেনের সামনে তার গতিরোধ করে সন্ত্রাসী পলাশ, সায়েম খান অরবিল, জামান, মাসুদ।
এক পর্যায়ে পলাশের সাথে থাকা মূলবান জিনিসপত্র ছিনিয়ে নিয়ে তাকে ছিনতাইকারী আখ্যা দিয়ে সন্ত্রাসী অরবিলের নেতৃত্বে ৩০/৪০ জন সন্ত্রাসী এলোপাথারীভাবে মারধর করে। পরে তাকে টেনে হেচঁড়ে মদিনা মসজিদের সামনে নিয়ে দ্বিতীয় দফায় মারধর মারাত্মক আহত করে।
পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে এবং পরিবারের সহযোগিতায় তাকে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়। এ ঘটনায় পলাশের বোন তাফিফা সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অভিযোগ করতে যায়।

কিন্তু তার সাথে অসদাচরণ করে। এক পর্যায়ে লিখিত অভিযোগ দিতে বলে। কিন্তু অভিযোগ দেয়ার পরও চারদিনেও পুলিশ অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ করেনি। উল্টো সন্ত্রাসীরা দিনরাত নানাভাবে তাফিফা, তার স্বামী ও ভাইকে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে পরিবারটি চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। এদিকে এলাকাবাসী জানায়, অত্যন্ত অমানবিকভাবে নিরিহ ছেলেটাকে ছিনতাইকারী আখ্যা দিয়ে সন্ত্রাসীরা মেরেছে। এই ঘটনার বিচার না হলে সন্ত্রাসীরা দিন দিন আরও বেপোয়া হয়ে উঠবে। তারা আরও জানান, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার একজন ইন্সপেক্টরের সাথে সন্ত্রাসী পলাশ ও অরবিলের গভীর সখ্যতা রয়েছে।

ওই পুলিশ ইন্সপেক্টর সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় যোগদানের পর থেকে পলাশ ও অরবিল আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এছাড়া এই সন্ত্রাসীরা ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ইকবাল হোসেনের লোক হিসেবে এলাকায় পরিচিত। ইকবাল সরাসরি শেল্টার দিচ্ছে এই সন্ত্রাসী বাহিনীকে। তারই শেল্টারে সন্ত্রাসী পলাশ ও অরবিল গংরা যা ইচ্ছা তাই করে যাচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে কাউন্সিলর ইকবালের ব্যক্তিগত নাম্বারে ফোন দেয়া হলে (০১৭১০—-৯৪) রাজ্জাক নামে এক ব্যক্তি ফোন রিসিভ করে বলেন কাউন্সিলর সাহেব ফোনটি রেখে বাহিরে গেছেন।

পরে তাকে পরিচয় দিয়ে কাউন্সিলরকে কখন ফোনে পাবো বা অন্যকোনো নাম্বার ব্যবহার করেন কিনা জানতে চাইলে তিনি সদুত্তর দিতে পারেননি। একপর্যায়ে তিনি বলেন, কাউন্সিলর ঝামেলায় আছে। তিনি এলাকায় নেই।
আরেকটি সূত্র জানায়, কারাভোগের পর জামিনে এসে কয়েকদিন এলাকায় থেকে ফের আবারও কাউন্সিলর ইকবাল লাপাত্তা বা আত্মগোপনে চলে যান। বর্তমানে তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। এদিকে সাধারণ মানুষের নানান কাজ থাকে এর মধ্যে অতি জরুরী কাজও রয়েছে যার সমাধান ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মাধ্যমে করতে হয়।

আর কাউন্সিলর না থাকায় তাদের সেই সমস্যার সমাধান না হওয়ায় হয়রানির শিকার হচ্ছে তারা। প্রতিদিনই সেবা নিতে আসা নাগরিকরা ফিরে যান কাউন্সিলরের কার্যালয় থেকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকে সন্ত্রাসীদের মারধরের বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন মিয়া বলেন, ঘটনাটি সত্য, বোনের বাসায় বেড়াতে আসা একটা ছেলেকে ছিনতাইকারী আখ্যা দিয়ে অমানবিকভাবে মারধর করা হয়েছে। থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলাও নিচ্ছে না।

তাহলে মানুষ যাবে কোথায়? এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মশিউর রহমান পিপিএম বার জানান, প্রতিদিন অনেক অভিযোগ জমা পড়ে। সব অভিযোগ মনে রাখা যায়না। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকে মারধরের বিষয়ের অভিযোগটির বিষয়ে খোঁজ নিয়ে দেখছি। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জাননো যাবে।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ